• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • IncomeTax Calculator: ১০ লক্ষ টাকার বেশি বেতনেও দিতে হবে না ট্যাক্স, জানুন বিস্তারিত!

IncomeTax Calculator: ১০ লক্ষ টাকার বেশি বেতনেও দিতে হবে না ট্যাক্স, জানুন বিস্তারিত!

যদি বার্ষিক বেতন ১০.৫ লক্ষ টাকা হয় তবে কর হিসেবে ১ পয়সাও কাটা যাবে না। এর জন্য দরকার সঠিক প্ল্যানিং।

যদি বার্ষিক বেতন ১০.৫ লক্ষ টাকা হয় তবে কর হিসেবে ১ পয়সাও কাটা যাবে না। এর জন্য দরকার সঠিক প্ল্যানিং।

যদি বার্ষিক বেতন ১০.৫ লক্ষ টাকা হয় তবে কর হিসেবে ১ পয়সাও কাটা যাবে না। এর জন্য দরকার সঠিক প্ল্যানিং।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আয় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্যাক্সের বোঝাও বাড়তে থাকে। তবে সঠিক পরিকল্পনা থাকলে বেশি টাকার স্যালারি ব্র্যাকেটের (Salary Bracket) মধ্যেও কর প্রদানে সাশ্রয় করা যেতে পারে। প্রায়ই দেখা যায় বেতন বাড়ার সঙ্গে করের অঙ্কও বৃদ্ধি পেতে থাকে। বিশেষ করে যাঁদের বার্ষিক আয় অনেক বেশি তাঁরা এই সমস্যার মুখোমুখি হন। উদাহরণস্বরূপ, যদি কোনও ব্যক্তির বেতন ১০ লক্ষ টাকা হয় তবে সেক্ষেত্র মোটা অঙ্কের ট্যাক্স ধার্য করা হয়। কিন্তু যদি বার্ষিক বেতন ১০.৫ লক্ষ টাকা হয় তবে কর হিসেবে ১ পয়সাও কাটা যাবে না। এর জন্য দরকার সঠিক প্ল্যানিং।

আরও পড়ুন: সম্পত্তি বিক্রয়ে মূলধনের ওপর ৫০ লক্ষ পর্যন্ত লাভে কী ভাবে কর ছাড় পাওয়া যাবে?

১০.৫ লক্ষ টাকা বার্ষিক বেতনে দিতে হবে না ট্যাক্স, কী ভাবে?

যদি একজন ব্যক্তির বয়স ৬০ বছরের কম হয় এবং তাঁর মাসিক বেতন ১০.৫ লক্ষ হয় তবে তিনি ট্যাক্সের ৩০% স্ল্যাবের মধ্যে পড়বেন।

১। প্রথমে স্ট্যান্ডার্ড ডিডাকশন হিসেবে ৫০,০০০ টাকা সরিয়ে দেওয়া যাক। ১০,৫০,০০০০-৫০,০০০ = ১০,০০,০০০

২। সরকারি নিয়মের ৮০সি (8০C) অনুযায়ী, EPF, PPF, ELSS, NSC-তে বিনিয়োগ করে বা দুই সন্তানের শিক্ষার জন্য টিউশন ফি হিসেবে ব্যবহার করে সর্বোচ্চ ১.৫ লক্ষ টাকা করমুক্ত করা যায়। অতএব, ১০ লক্ষ টাকা থেকে ১.৫ লক্ষ চলে গেলে হাতে পড়ে থাকে, ১০,০০০,০০০-১,৫০,০০০ = ৮,৫০,০০০ টাকা।

৩। আয়কর আইনের ধারা 8০CCD (১B)-এর অধীনে জাতীয় পেনশন সিস্টেমে (NPS) বিনিয়োগ করে বার্ষিক সর্বোচ্চ ৫০,০০০ টাকা ট্যাক্সমুক্ত করা যায়। ৮,৫০,০০০-৫০,০০০০ = ৮,০০,০০০ টাকা।

আরও পড়ুন: বাড়ল না কমল ? আজ কলকাতায় পেট্রোল ও ডিজেলের দাম কত ?

৪। হোম লোন থাকলে, ধারা ২4B অনুযায়ী ঋণ পরিশোধে ২ লক্ষ টাকার সুদে সরকারি কর ছাড় দাবি করা যায়। ৮,০০,০০০-২,০০,০০০ = ৬,০০,০০০ টাকা।

৫। আয়করের ধারা 8০D অনুযায়ী, স্ত্রী, সন্তান এবং নিজের স্বাস্থ্য বিমার ওপর ২৫,০০০ টাকা এবং বাবা-মায়ের জীবন বিমার জন্য ৭৫,০০০ টাকার ওপর কর ধার্য করা হয় না। ৬,০০,০০০-৭৫,০০০ = ৫,২৫,০০০ টাকা।

আরও পড়ুন: আধারের সঙ্গে প্যান কার্ড লিঙ্কড না থাকলে হতে পারে বড় লোকসান, জেনে নিন লিঙ্কিংয়ের পদ্ধতি.....

৬। আয়কর আইন 8০G-এর অধীনে কোনও সংস্থায় অনুদান বা সমাজকল্যাণ মূলক খরচার জন্য সর্বোচ্চ ২৫,০০০ টাকার ওপর কর ছাড় দেয় সরকার। উল্লেখ্য, এই সুবিধা পেতে আবেদনকারীকে প্রমাণ হিসেবে অনুদানের রসিদ দেখাতে হবে। ৫,২৫,০০০-২৫,০০০ = ৫,০০,০০০ টাকা।

৭। অবশেষে হাতে পড়ে থাকে ৫ লক্ষ টাকা এবং এই টাকার ওপর ট্যাক্স রিটার্ন করতে হবে। ৫ লক্ষ টাকার ট্যাক্স হবে ১২,৫০০ টাকা (২.৫ লক্ষ টাকার ৫%)। যেহেতু ৫ লক্ষ টাকার স্ল্যাবে ১২,৫০০ টাকা সরকারি ছাড় প্রদান করা হয়, সেক্ষেত্রে অবশেষে দেখা যায় মোট করের পরিমাণ দাঁড়ায় শূন্য!

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: