Home /News /business /
Cashew Nut Price: অতিমারিতে ইমিউনিটি বাড়াতে ৩ লক্ষ টন কাজু খেয়েছেন ভারতীয়রা! দাম বাড়বে বাদামের

Cashew Nut Price: অতিমারিতে ইমিউনিটি বাড়াতে ৩ লক্ষ টন কাজু খেয়েছেন ভারতীয়রা! দাম বাড়বে বাদামের

Cashew Nut Price: অতিমারির পর দেশে কাজুবাদামের চাহিদা বৃদ্ধির ফলে রফতানি কমছে। তবে এর অন্য কারণ রয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, ভিয়েতনামের মতো দেশগুলো কাজুবাদামের রফতানি বাড়িয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কোভিড ১৯ অতিমারি শুরু হওয়ার পর থেকেই মানুষ আগের তুলনায় অনেক বেশিি স্বাস্থ্য সচেতন হয়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ড্রাই ফ্রুটসের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে প্রায় দেড় গুণ। ফলে এ বারের উৎসবের মরসুমে দাম বাড়তে চলেছে ড্রাই ফ্রুটসের (Dry Fruits)।

মানিকন্ট্রোলের এক রিপোর্ট বলছে, কাজু এবং কোকো উন্নয়ন অধিদফতর (ডিসিসিডি) জানিয়েছে, দেশে কাজুর (Cashew nuts) ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে এখন বহু রফতানিকারী সংস্থাই বাইরের চাহিদার পরিবর্তে অভ্যন্তরীণ বাজারের দিকে নজর দিচ্ছে। বর্তমানে দেশে কাজুর বার্ষিক বিক্রয়ের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লক্ষ টনে, যা অতিমারির আগে ছিল ২ লক্ষ টন। দেশে ব্র্যান্ডেড কাজু বিক্রির হারও এক বছর আগের তুলনায় প্রায় ৩০-৪০ শতাংশ বেড়েছে।

তবে দেশে কাজুর বাড়তি চাহিদার ৬০ শতাংশই আসে বাইরে থেকে। অথচ দেশে ব্যবহারের তুলনায় কাজু উৎপাদন বাড়ছে না। এমন পরিস্থিতিতে চাহিদা মেটাতে আফ্রিকা থেকে কাঁচা কাজু বাদাম আমদানি করা হচ্ছে। ২০২১-২২ সালে ভারত ৭.৫ লক্ষ টন কাজু উৎপাদন করেছিল, যেখানে এই সময়ের মধ্যে কাঁচা কাজু আমদানি করা হয়েছিল ৯.৩৯ লক্ষ টন। তবে শীঘ্রই আমদানির মাত্রা ১০ লক্ষ টন ছাড়িয়ে যাবে বলেই মনে হচ্ছে। দেশে কাজুর প্রক্রিয়াকরণ ক্ষমতাও ১৮ লক্ষ টনে পৌঁছেছে, যা এক বছর আগেও ছিল মাত্র ১.৫ মিলিয়ন টন।

আরও পড়ুন: নতুন বাড়ি কেনার পরিকল্পনা করছেন? চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে এই ১০টি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি!

বিশেষজ্ঞদের দাবি, আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে কাজুর দাম বাড়তে চলেছে। কাজুর চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে দাম তেমন একটা বাড়তে না-পারলেও সেপ্টেম্বরের পর উৎসবের মরসুম শুরু হলেই এর দাম বাড়তে শুরু করবে। বর্তমানে প্রতি কেজি ৯৫০-১২০০ টাকার প্রিমিয়াম কাজু ৭০০-৮৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, সাধারণ ভাবে কাজুর দাম এখনও কেজি প্রতি ৫৫০-৬৫০ টাকা পর্যন্ত রয়েছে। তবে আশা করা যাচ্ছে যে, চলতি আর্থিক বছরের দ্বিতীয়ার্ধে কাজুর দাম আরও বাড়বে।

আরও পড়ুন: সস্তায় সোনা কেনার এটাই শেষ সুযোগ, শীঘ্রই বিপুল দাম বাড়তে চলেছে গয়নার

অতিমারির পর দেশে কাজুবাদামের চাহিদা বৃদ্ধির ফলে রফতানি কমছে। তবে এর অন্য কারণ রয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, ভিয়েতনামের মতো দেশগুলো কাজুবাদামের রফতানি বাড়িয়েছে। আট বছর আগে পর্যন্ত ভারত বছরে ১,০০,০০০ টন কাজু রফতানি করতো, যা ২০২১-২২ আর্থিক বছরে ৫১,৯০৮ টনে নেমে এসেছে। ঠিক এর বিপরীতে ভিয়েতনামে স্থানীয় ব্যবহার হ্রাস পাওয়ায় এর রফতানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভিয়েতনাম এখন বিশ্বের বৃহত্তম কাজু রফতানিকারী দেশ হয়ে উঠেছে। আর রফতানি কমার প্রধান দুটি কারণ হল- প্রথমত, অভ্যন্তরীণ বাজারে চাহিদা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বাইরে আমাদের পণ্য পাঠানোর খুব বেশি প্রয়োজন ছিল না। এ ছাড়াও ভারতীয় কাজু বিশ্ব বাজারে প্রতিযোগিতামূলক অবস্থায় না-থাকায় উৎপাদকরা অভ্যন্তরীণ বাজারের দিকে বেশি মনযোগ দিচ্ছেন। বিশ্ব বাজারে আমাদের কাজুর দাম পাউন্ড প্রতি ৩.৫০ ডলার আর ভিয়েতনামের কাজুর দাম প্রতি পাউন্ড ২.৮ ডলার।

Published by:Teesta Barman
First published:

Tags: Cashew Nuts, Covid-19 Pandemic

পরবর্তী খবর