৫টি সহজ ধাপে তৈরি করুন পার্সোনাল বাজেট

একটি পার্সোনাল বাজেট তৈরি করা যা আপনাকে নিজের আয় এবং খরচের হিসেব বুঝতে সাহায্য করবে, এবং আপনি নিজের ফাইন্যান্সের দায়িত্ব নিজেই নিতে পারবেন

একটি পার্সোনাল বাজেট তৈরি করা যা আপনাকে নিজের আয় এবং খরচের হিসেব বুঝতে সাহায্য করবে, এবং আপনি নিজের ফাইন্যান্সের দায়িত্ব নিজেই নিতে পারবেন

  • Share this:

    যতটা আয় করছেন তার পুরোটাই ব্যয় করে ফেলা বা, ঋণের বোঝা বাড়িয়ে তোলার পরিবর্তে, একদম উল্টো পথে হাঁটার জন্য এটাই হল সেরা সময়। আর এর সবচেয়ে সোজা উপায় হল, একটি পার্সোনাল বাজেট তৈরি করা যা আপনাকে নিজের আয় এবং খরচের হিসেব বুঝতে সাহায্য করবে, এবং আপনি নিজের ফাইন্যান্সের দায়িত্ব নিজেই নিতে পারবেন। জেনে নিন এমন পাঁচটি উপায় যার মাধ্যমে একটি বাস্তববাদী এবং কার্যকরী পার্সোনাল বাজেট বানাতে পারবেন।

    ১. নিজের লক্ষ্য জানুন এবং সঠিক পদ্ধতি ব্যবহার করুন

    একটু সময় বের করে প্রথমে বোঝার চেষ্টা করুন যে কেন আপনার এই বাজেট তৈরি করা দরকার, এটাই হবে আপনার প্রথম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। মনে করুন যে আপনি জীবনের কী অর্জন করতে চাইছেন এবং সেই মতো নিজের লক্ষ্য স্থির করুন। হতে পারে আপনি নিজের ক্রেডিট কার্ডের সমস্ত ঋণ শোধ করে দিতে চান কিংবা বিনিয়োগ করার জন্য যথেষ্ট পরিমাণে সেভিংস করতে চান। সবার প্রথমে বুঝতে হবে যে আপনার কাছে কী রয়েছে এবং আপনি কতটা পর্যন্ত যেতে পারবেন, সমৃদ্ধি নিশ্চিত করার জন্য পরিকল্পনা করার সময় এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

    একবার যদি আপনি বুঝে যান যে আপনার অবস্থান ঠিক কোনখানে, তারপরে ভাবার চেষ্টা করুন যে, প্রতিটি জিনিস যাতে নিজের ট্র্যাকে থাকে তা নিশ্চিত করার জন্য আপনি কোন পদ্ধতি অবলম্বন করবেন। এই পদ্ধতি হতে পারে শেয়ার করার মতো অনলাইন শীট, আপনার ব্যাঙ্কের অ্যাপ বা সনাতনী লেজারের মতো সহজ কিছু।

    ২. কোথা থেকে শুরু করবেন?

    নিজের আয়ের দিকে নজর দিলে, ট্যাক্স কাটার পরে প্রত্যেক মাসে খরচ করার জন্য আপনার কাছে কত টাকা পড়ে থাকে তা হিসেব করার মাধ্যমে আপনি নিজের বর্তমান আর্থিক স্ট্যাটাস বুঝতে পারবেন। এর জন্য আপনার ১ নম্বর ধাপ এবং আপনার খরচের প্রবাহ সম্পর্কে জানাটা কাজে লাগবে। এবার নিশ্চিত ভাবেই যে খরচগুলি হবে বলে আপনি জানেন বা অনুমান করতে পারছেন, সেগুলি যোগ করার মাধ্যমে আপনার বাজেট তৈরি করতে শুরু করুন। সাবধানী হওয়ার জন্য অনিশ্চিত কোনও আয় থেকে থাকলে তা এখানে যোগ করার দরকার নেই, কারণ সেই পরিমাণ আপনি সারা বছর ধরে পেতে পারেন আবার না-ও পারেন।

    ৩. আপনার ব্যয়গুলি ট্র্যাক করুন

    প্রতি মাসে আপনি গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের জন্য কত টাকা ব্যয় করেন তা নির্ণয় করার খুবই জরুরি, যেমন- মেম্বারশিপ ফি, প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এবং খাবার এই তালিকায় থাকবে। যদি আপনার কাছে অন্তত তিন মাসের তথ্য থাকে, তাহলে তার উপরে ভিত্তি করে গোটা বছরের গড় খরচের হিসেব করাটা খুবই সহজ হয়ে যাবে। মনে রাখবেন, এখানে বড় ধরনের আইটেমের পাশাপাশি ছোটখাট মাসিক খরচ সবই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে যেমন, ভ্রমণের খরচ, ম্যানিকিওর এবং অন্যান্য, যা আপনাকে সঠিক বাজেট তৈরি করতে সাহায্য করবে।

    ৪. সহজ পথ খুঁজে নিন সাশ্রয় ও নিজের ভবিষ্যৎ নিরাপদ করার জন্য

    যে কোনও আদর্শ পরিস্থিতিতে, যে বাজেট আপনি তৈরি করবেন সেখানে অবশ্যই সাশ্রয় করার জায়গা থাকতে হবে, সেটার পরিমাণ যতই কম হোক না কেন। আর একটি উপায় হল, প্রতি মাসে, তিন মাসে একবার, বছরে দুই বার কিংবা বছরে একবার অথবা লামসাম হিসেবে খরচ করতে পারবেন, এমন একটি পরিমাণ স্থির করুন এবং সেই পরিমাণ বিনিয়োগ করুন একটি বহুমুখী জীবন বীমা প্রোডাক্টে যেমন HDFC Life Click2Wealth Policy*। এর আকর্ষণীয় অফার বিনিয়োগকারীকে ভালো রিটার্ন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়, বহু মিউচুয়াল ফান্ডের চেয়ে এবং চার্জ অনেকটাই কম এবং এটি আপনার টাকা কয়েকগুণ বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য ভালো উপায়, এর জন্য পাবেন কর ছাড় এবং একটি জীবন বিমার কভারের সুরক্ষা।

    এর সেরা ফিচারগুলির মধ্যে রয়েছে:

    আনলিমিটেড ফ্রি ফান্ড সুইচ এবং প্রিমিয়াম রিডাইরেকশান

    ম্যাচিওরিটি১ –এর সাথে মর্টালিটি চার্জ ফেরত

    বিশেষ সংযোজন যেমন, পাঁচ বছরে আপনার ফান্ডের জন্য প্রিমিয়ামের ১০১% বরাদ্দ করা হবে

    ১ দিনে ক্লেম সেটেলমেন্ট আরও জানুন 

    ৯৯.০৭% ক্লেম সেটল করা হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ক্লেমের ট্রেন্ড দেখুন

    ৫. ট্র্যাকে থাকার জন্য পিরিয়ডিক রিভিউ শিডিউল করুন

    সব রকম ভাবে রিসার্চ করুন যাতে আপনি ব্যয় কমাতে পারেন এবং সাশ্রয় করতে পারেন, এটি খুবই জরুরি। কিন্তু তার পাশাপাশি অপ্রত্যাশিত যে কোনও খরচের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। তারপরেও বাজেট বানানো সম্পূর্ণ হওয়ার পরে আপনাকে সবচেয়ে জটিল কাজটি করতে হবে। প্রতি কোয়ার্টারে অন্তত একবার, আপনার সমস্ত খরচ ও বাজেট পুনর্বিবেচনা করুন এবং যদি দেখেন যে প্রথম কোয়ার্টারে আপনার এভাবে চালাতে খুবই অসুবিধা হয়েছে, তাহলে নিজের উপরে আরোপ করা বিধিনিষেধ আরও একটু শিথিল করুন। আপনার অ্যাকাউন্টগুলি সমালোচকের দৃষ্টিতে দেখুন এবং যে সমস্ত ক্ষেত্রে সমস্যা রয়েছে বলে মনে হচ্ছে, সেগুলি সংশোধন করুন।

    সবার শেষে, যদি এই পরিকল্পনা কার্যকর করার বিষয়ে বারবার বিলম্ব করে থাকেন, তাহলে আমরা বলব আর অপেক্ষা করবেন না। এখনই আপনার ফাইন্যান্স রিবুট করার সেরা সময় এবং আরও স্থিতিশীল, নিরাপদ ভবিষ্যতের দিকে যাত্রা শুরু করুন। ভাগ্য আপনার সহায় হোক!

    *HDFC Life Click 2 Wealth হল একটি ইউনিট লিঙ্কড, নন পার্টিসিপেটিং লাইফ ইনস্যুরেন্স প্ল্যান যা অফার করে মার্কেটের সাথে লিঙ্ক করা রিটার্ন, তার পাশাপাশি আপনাকে ও আপনার পরিবারকে মূল্যবান আর্থিক সুরক্ষা প্রদান করে। আরও বিশদে জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: