Home /News /astrology /
Sakat Chauth 2022 : শুভযোগ রয়েছে দুপুর পর্যন্ত, কী ভাবে সিদ্ধিদাতাকে প্রসন্ন করবেন সঙ্কষ্টী চতুর্থীতে?

Sakat Chauth 2022 : শুভযোগ রয়েছে দুপুর পর্যন্ত, কী ভাবে সিদ্ধিদাতাকে প্রসন্ন করবেন সঙ্কষ্টী চতুর্থীতে?

File photo

File photo

Sakat Chauth 2022 : নির্জলা উপবাস রেখেই পুজো অর্চনা করা হয় এবং চাঁদ দেখার পরই আজকের দিনে সকলে উপবাস শেষ করেন।

  • Share this:

#কলকাতা: পুরাণে মাঘ মাসকে মোক্ষের মাস বলা হয়ে থাকে। এই মাসের গুরুত্ব অনেক। কথিত আছে, এই মাসে গঙ্গা-যমুনা-সহ বিভিন্ন পবিত্র নদীতে স্নান করলে সমস্ত পাপ নাশ হয়। এই মাসে অন্যান্য বিভিন্ন পুজোর সঙ্গে ২টি বিশেষ পুজো করা হয় ভগবান গণেশকে উৎসর্গ করে। একটি গণেশ জয়ন্তী, অপরটি সকট চৌথ বা সঙ্কষ্টী চতুর্থী। ভারতে সাধারণত উত্তরের রাজ্যগুলিতে এই বিশেষ পুজোর রীতি আছে।

আজ সকট চৌথ। কথিত আছে, মাঘ মাসের কৃষ্ণপক্ষের চতুর্থীর দিন উপবাস জীবনের সমস্ত ঝামেলা এবং দুঃখ দূর করে পরিবারকে ভালো রাখার জন্য করা হয়ে থাকে। নির্জলা উপবাস রেখেই পুজো অর্চনা করা হয় এবং চাঁদ দেখার পরই আজকের দিনে সকলে উপবাস শেষ করেন। আজ শুভযোগের সময় সকাল থেকে শুরু হয়েছে, চলবে দুপুর ৩টে ০৬ পর্যন্ত। এই সময়কেই সবচেয়ে শুভ বলা হচ্ছে আজকের দিনে।

সকট চৈথ ২০২২ - শুভ মুহূর্ত

হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, মাঘ মাসের চতুর্থীর দিন এটি পালিত হয়। সেই হিসেবে আজ দেশের উত্তরের রাজ্যগুলিতে এই পুজো হচ্ছে। চতুর্থী শুরু হচ্ছে সকাল ৮.৫১ থেকে চলবে আগামীকাল অর্থাৎ ২২ জানুয়ারি সকাল ৯.১৪ পর্যন্ত। মঘা নক্ষত্র থাকছে আজ সকাল ৯.৪৩-এ। এই মঘা নক্ষত্র ভালো কাজের জন্য খুব একটা শুভ বলে মানা হয় না। তাই সকট চতুর্থীর পুজো বা উপাসনা সবটাই সকাল ৯.৪৩-এর পর করা উচিত।

সকট চৌথ ২০২২ - চাঁদ ওঠার সময়

আদকের দিনে চাঁদ দেখে ব্রতীরা উপবাস ভাঙেন। তাই চাঁদ ওঠার সময় এক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ। আজ চাঁদ দেখার সময় রাত ৯টা।

সকট চৌথ ২০২২- পুজোর জন্য গণেশ মন্ত্র

গণেশ পুজোর সময় আজ ওম গম গণপতয়ে নমঃ, শ্রী গণেশা নমঃ, ওম বক্রতুন্ডয় নমঃ, ওম একদন্তায়ৈ বিদ্মহে বক্রতুণ্ডয়া ধীমহি তন্নো দন্তি প্রচোদয়াত, ওম বক্রতুণ্ড মহাকায় সূর্যকোটি সমপ্রভ, নির্বিঘ্নম কুরু মে দেব সর্বকার্ষেষু সর্বদা- এই মন্ত্রগুলো পাঠ করা যেতে পারে।

আরও পড়ুন- পঞ্জিকা ২১ জানুয়ারি: দেখে নিন নক্ষত্রযোগ, শুভ মুহূর্ত, রাহুকাল এবং দিনের অন্য লগ্ন!

সকট চৌথ ২০২২ - সকট চৌথ ও তার ইতিহাস

কথিত আছে, রাজা হরিশচন্দ্রের সময়ে একজন মৃৎশিল্পী ছিলেন। তাঁর তৈরি মাটির হাড়ি, রান্নার জিনিসে রান্না ঠিক মতো করা যেত না। তাই ধীরে ধীরে তাঁর আয় কমে যায় এবং এই সমস্যার কথা তিনি এক পুরোহিতকে জানান।

পুরোহিত তাঁকে বলেন, এই সমস্যার সমাধানে যখনই তিনি রান্না করবেন তার আগে ওই রান্নার বাসনগুলিকে একটি বাচ্চার সঙ্গে জলে রেখে দিতে হবে। এই কাজটি করলে তাঁর এই সমস্যা দূর হবে। কথা মতো, মৃৎশিল্পী একাজ করেন। যেদিন তিনি এই কাজ করেন সেই দিনটি ছিল সকট চৌথ। যে বাচ্চাটিকে জলে রাখা হয়েছিল তাঁর মা এই দিন সকট চৌথের ব্রত পালন করেছিলেন এবং উপোস করেছিলেন। তিনি উপবাসের মধ্যেই তাঁর সন্তানকে খুঁজছিলেন কিন্তু অনেক খোঁজার পরও পাননি। অবশেষে সন্তান যাতে ভালো থাকে এবং তাঁকে রক্ষা করতে ওই মা সেদিন গণেশের কাছে প্রার্থনা করেন।

 আরও পড়ুন- রাশিফল ২১ জানুয়ারি; দেখে নিন কেমন যাবে আজকের দিন

অন্য দিকে, পরের দিন অর্থাৎ সকট চৌথের পরের দিন মৃৎশিল্পী দেখেন ওই বাসনে সত্যিই ভালোভাবে রান্না করা গিয়েছে। তিনি বিস্মিত হন এবং দেখেন ছেলেটি এখনও বেঁচে আছে। ওই ছেলেটি বাঁচিয়ে রেখেছিলেন গণেশ। পুরো বিষয়টি শিল্পী রাজার কাছে গিয়ে জানান। রাজা তখনই ওই মহিলা এবং ওই বাচ্চাটিকে তলব করেন। মহিলা পুরো বিষয়টি বলেন রাজাকে, জানান, সকট চৌথের দিন তিনি উপবাস করে গণেশের কাছে প্রার্থনা করেছিলেন যাতে তাঁর সন্তান সুস্থ থাকে। পরে গোটা রাজ্যে সকলের মুখে মুখে ছড়িয়ে যায় এই কাহিনী এবং শোনা যায় তার পর থেকেই মায়েরা আজকের দিনে সন্তানদের ভালোর জন্য এই ব্রত পালন করে থাকেন।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Lord Ganesha

পরবর্তী খবর