Home /News /alipurduar /
Alipurduar: দৈনিক মজুরি বৃদ্ধিতে খুশি নন চা বাগানের শ্রমিকরা! ফের অন্দোলনের হুমকি

Alipurduar: দৈনিক মজুরি বৃদ্ধিতে খুশি নন চা বাগানের শ্রমিকরা! ফের অন্দোলনের হুমকি

চা শ্রমিকদের দৈনিক পারিশ্রমিক ৩০ টাকা বৃদ্ধি করল শ্রমদপ্তর,সামান‍্য পারিশ্রমিক বৃদ্ধিতে খুশি নন চা শ্রমিকরা। দৈনিক ২০২ টাকা থেকে দৈনিক ২৩২ টাকা করা হল পারিশ্রমিক।

  • Share this:

    আলিপুরদুয়ার: চা শ্রমিকদের দৈনিক পারিশ্রমিক ৩০ টাকা বৃদ্ধি করল শ্রমদপ্তর,সামান‍্য পারিশ্রমিক বৃদ্ধিতে খুশি নন চা শ্রমিকরা। দৈনিক ২০২ টাকা থেকে দৈনিক ২৩২ টাকা করা হল পারিশ্রমিক। কিন্ত এই সামান্য বৃদ্ধিতে খুশি নন চা বাগানের শ্রমিকরা । মঙ্গলবার রাজ‍্য শ্রম দফতর নির্দেশিকা জারি করে জানায় চা শ্রমিকদের দৈনিক পারিশ্রমিক ৩০ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। উল্লেখ্য গত ৮ জুন আলিপুরদুয়ার জেলার হাসিমারা এলাকায় এসে মুখ‍্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন চা শ্রমিকদের বেতন ১৫% বৃদ্ধি হবে। মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৪ জুন শ্রম দপ্তরের পক্ষ থেকে জারী করা হয় যে ৩০ টাকা দৈনিক পারিশ্রমিক বৃদ্ধি করা হল। কিন্তু এই ৩০ টাকা বৃদ্ধিতে খুশি নন চা শ্রমিকরা। আলিপুরদুয়ার জেলার চা শ্রমিক বাসন্তী গৌড় জানান,\"এই অল্প বেতন বৃদ্ধি আমরা মানছি না। ২০০টাকা যেখানে তেলের দাম, সেখানে ২৩২ টাকা দিয়ে সংসার চালাই কিভাবে?\" চা শ্রমিক সন্তোষী লোহারা জানান, \"এই সামান্য পারিশ্রমিক বৃদ্ধিতে আমরা খুশি না। বর্তমানে মূল‍্যবৃদ্ধির যুগে ৩০ টাকা বৃদ্ধি করে কিছু হবেনা। কমপক্ষে ৩৫০ টাকা দৈনিক মজুরি করতে হবে।\"

    দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি বেড়েছে শোনার পরেও এদিন খুশির হাওয়া দেখা যায়নি। আলিপুরদুয়ারের কোনো বাগানে । বরং থমথমে মুখ নিয়ে চা পাতা তুলতে দেখা যায় চা শ্রমিকদের। পান্তি লোহারা নামের অপর এক চা শ্রমিক জানান,\"শুধু খাওয়া দাওয়াটাই তো আর সংসার নয়। সন্তানদের পড়াশুনো আছে।সেই টাকা তো আর মিলবে না।\" চা বাগানের শ্রমিকদের নুন‍্যতম মজুরি প্রদানের দাবিতে বারবার সোচ্চার হয়েছেন শ্রমিকরা। শিলিগুড়ির শ্রমিকভবনে নুন্যতম মজুরি প্রদানের আঠারোতম বৈঠক নিষ্ফলা হতেই ক্ষুব্ধ হয় চা শ্রমিকরা।

    আরও পড়ুনঃ জয়গাঁর দলসিংপাড়া চা বাগানের ঝোড়ার জলে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামীণ সড়ক

    এই কারণে কাজে যোগ দেওয়ার আগে একঘন্টা গেট মিটিং-এ সামিল হয়েছেন তারা। আলিপুরদুয়ার জেলার প্রতিটি চা বাগানের ছবি এমন। শেষ ২০১৮সালের অক্টোবর মাসে চা শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি হয়। ১৭৬ টাকা থেকে তা ২০২ টাকা হয়। তারপর আর বাড়েনি বেতন। এবারে ২৩২ টাকা মজুরি বৃদ্ধি হল। কিন্তু তবুও মুখে হাসি নেই শ্রমিকদের। শ্রমিকদের কথায় যেখানে কেরোসিন তেলের দাম বেড়েছে। শাকসবজির দাম বেড়েই চলেছে।

    আরও পড়ুনঃ উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পাশ করানোর দাবিতে কামাখ্যাগুড়িতে পথ অবরোধ পড়ুয়াদের

    সেখানে ২৩২ টাকা মজুরি দিয়ে সব কেনাকাটা মুশকিল হয়ে পড়েছে। চা শ্রমিকদের মতে নুন্যতম মজুরি বাড়িয়ে ৩৫০ টাকা বা তার ওপরে করা হোক। তাহলেই তাদের আট ঘন্টা কাজ করা সার্থক হবে। এক কথায় এই মজুরি বৃদ্ধি তারা মেনে নিচ্ছেন না। তাদের কথায় এইটুকু বেতন বৃদ্ধি কেবল তাদের সান্তনা দেওয়া।

    Ananya Dey
    First published:

    Tags: Alipurduar, Tea Garden

    পরবর্তী খবর