হোম /খবর /পশ্চিম মেদিনীপুর /
পচা গন্ধের সন্ধানে মাটি খুঁড়তেই মারাত্মক দৃশ্য, প্রেমিকাকে খুন করেছে প্রেমিক!

West Midnapore News: পচা গন্ধের সন্ধানে মাটি খুঁড়তেই মারাত্মক দৃশ্য, প্রেমিকাকে খুন করে মাটিতে পুঁতেছে প্রেমিক!

X
প্রেমিকাকে [object Object]

মঙ্গলবার পবিত্রার দেহ উদ্ধার করা হয় এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে। তারপরই ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ।

  • Share this:

    #পশ্চিম মেদিনীপুর: দু'জনই বিবাহিত। দু'জনেরই সন্তান আছে। তবে, পরকীয়ার টানে সেই ঘর-সংসার-সন্তানদের ছেড়ে, গ্রামের পাশে জঙ্গল সংলগ্ন এলাকায় 'কুঁড়ে ঘর' তৈরি করে গত ৬ বছর ধরে বসবাস করছিলেন। এলাকাবাসীদের মতে, প্রথম কয়েক বছর সব ঠিকঠাকই ছিল। তারপরই ছন্দপতন। শুরু হয় সঙ্গিনীর উপর প্রেমিকের অকথ্য অত্যাচার, নির্যাতন। এভাবেই চলতে থাকে।

    এর মধ্যেই, সোমবার দুপুরে বছর ৪২ এর তরুণ সিং- এর প্রেমিকা বছর ৩২ এর পবিত্রা সিং 'রহস্যমৃত্যু'র ঘটনা সামনে আসে এলাকাবাসীর কাছে। অভিযোগ, পবিত্রাকে খুন করে পুঁতে দিয়েছে তাঁর সঙ্গী বা প্রেমিক। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে ইতিমধ্যে। মঙ্গলবার ওই গ্রামে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে দেহ উদ্ধার করা হয় এবং ময়নাতদন্ত-সহ সমস্ত ধরনের পুলিশি তদন্ত হবে বলে জানা গিয়েছে।

    আরও পড়ুন: বাসন্তী হাইওয়েতে বাইক রেষারেষি, প্রাণ গেল ৩ যুবকের!

    প্রসঙ্গত, খড়গপুর গ্রামীণ থানার খেমাশুলি সংলগ্ন ভালুকমাচা গ্রামের বাসিন্দারা জানালেন, গতকাল দুপুর ৩ টা-সাড়ে ৩ টা নাগাদ তরুণ নামে ওই প্রেমিক এলাকাবাসীদের মধ্যে কয়েকজনের বাড়িতে গিয়ে জানায়, পবিত্রার মৃত্যু হয়েছে। দাহ করতে হবে। এলাকাবাসী জানান, এখন তাঁরা চাষের কাজে ব্যস্ত, কিছুক্ষণ দেরি হবে। অভিযোগ, এর মধ্যেই পবিত্রাকে নিজেদের 'কুঁড়ে ঘর' থেকে কিছুটা দূরে,‌ মাঝ জঙ্গলে গর্ত খুঁড়ে পুঁতে দেয় তরুণ। আর এতেই সন্দেহ দানা বাঁধে এলাকাবাসীর মধ্যে। খবর দেওয়া হয় খড়গপুর লোকাল থানায়।

    আরও পড়ুন: শ্রদ্ধাকে খুনের কোনও অনুশোচনা নেই, পলিগ্রাফ পরীক্ষায় স্বীকার আফতাবের!

    সোমবার বিকেলে গ্রামে পুলিশ গিয়ে প্রাথমিক তদন্তের পর তরুণ সিং-কে প্রথমে আটক ও পরে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার, পবিত্রার দেহ উদ্ধার করা হয় এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে। তারপরই ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। যদিও গ্রামের আপামর পুরুষ মহিলা জানাচ্ছেন, দু'জনই নিজেদের স্বামী, স্ত্রী, পরিবার ও সন্তানদের ছেড়ে একসঙ্গে ঘর বাঁধতে চেয়েছিল। বছর ৪২ এর তরুণের স্ত্রী ও দুই ছেলে ভালুকমাচা গ্রামেই থাকে। পবিত্রার ক্ষেত্রেও তাই।

    যদিও স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশকে তরুণ জানিয়েছে, পবিত্রা অসুস্থ ছিল। তাঁর মৃত্যু স্বাভাবিক ভাবেই হয়েছিল। তবে পুঁতে ফেলার কথা জেরায় ইতিমধ্যে সে স্বীকার করেছে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার জেরে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিশের একটি সূত্রের দাবি, অতিরিক্ত মারধরের ফলে অসুস্থ হয়ে মৃত্যু হয়েছিল পবিত্রার। এদিকে, তরুণকে গ্রেফতার করে এদিন তোলা হয় খড়গপুর মহকুমা আদালতে। তাকে নিজেদের হেফাজতে নিতে আদালতে আবেদন জানাচ্ছে পুলিশ।পার্থ মুখোপাধ্যায়

    First published:

    Tags: Crime News, Murder, West Midnapore news