Home /News /technology /
দিন আর রাতের মেয়াদ আজ সমান ১২ ঘণ্টা; বসন্ত বিষুবের উদযাপনে ফুলের সাজ পরল Google

দিন আর রাতের মেয়াদ আজ সমান ১২ ঘণ্টা; বসন্ত বিষুবের উদযাপনে ফুলের সাজ পরল Google

কমপিউটারে, স্মার্টফোনে চোখ রেখে Google-এর এই বিশেষ Doodle দেখলেও আসল ব্যাপারটি অনেকেরই এড়িয়ে যাবে চোখ থেকে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিশেষ বিশেষ দিনের উদযাপনে Google যে মনোহর Doodle-এ সেজে ওঠে, তার সাক্ষী থাকা যেন আমাদের একটা অভ্যাসে পরিণত হয়ে গিয়েছে। কিন্তু কমপিউটারে, স্মার্টফোনে চোখ রেখে Google-এর এই বিশেষ Doodle দেখলেও আসল ব্যাপারটি অনেকেরই এড়িয়ে যাবে চোখ থেকে, সেখানেই যান্ত্রিকতার কাছে হার মেনেছে প্রকৃতি। কিন্তু Google হার নয়, গাঁথতে বসেছে জয়ের মালা। তাই ফুলে ফুলে ছেয়ে গিয়েছে G, O, O, G, L আর E- এই পাঁচ অক্ষর!

২০ মার্চ, ২০২১ যে শুধুই একটা তারিখ হয়ে ক্যালেন্ডারের পাতায় জায়গা করার জন্য তৈরি হয়নি, সে কথা আজ মনে করিয়ে দিল Google। সত্যি বলতে কী, Google-এর এই বিশেষ Doodle-এর সূত্রেই অনেকের আজ মনে পড়ে যাবে বসন্ত বিষুবের কথা। মনে পড়ে যাবে যে আজ নিরক্ষরেখায় একেবারে সোজাসুজি এসে পড়ছে সূর্যের আলো। আর তার জেরেই আজ দিন এবং রাতের মেয়াদ একেবারে সমান সমান- পাক্কা ১২ ঘণ্টা করে!

এই জায়গায় এসে বিষুবের বৈজ্ঞানিক দিকটি সংক্ষেপে হলেও উল্লেখ করতেই হয়! সূর্য প্রতি বছরে নিরক্ষরেখাকে ঠিক দু'বার অতিক্রম করে। এর সূত্র ধরেই চলে উত্তরায়ণ এবং দক্ষিণায়ণের পালা। সেই সঙ্গে বছরে মোট দু'বার দিন এবং রাতের মেয়াদ সমান হয়। ১২ ঘণ্টা দিন এবং ১২ ঘণ্টা রাতের এই অবস্থানের দু'টি দিনকেই বিষুব নামে আখ্যা দেওয়া হয়ে থাকে। মার্চ বা বসন্তকালে যে দিনটি পড়ে, তাকে আমরা মহাবিষুব বা বসন্ত বিষুব নামে চিনি। অন্য পক্ষে, সেপ্টেম্বর মাস নাগাদ আবার যখন দিন আর রাতের মেয়াদ সমান হয়, সেই দিনটিকে আখ্যা দেওয়া হয় জলবিষুব বা শারদ বিষুব নামে। সেই সময়ে প্রকৃতিজগতে অবস্থান করে শরৎ ঋতু।

আমরা যাকে বিষুব বলে থাকি, তাকেই ইংরেজিতে বলা হয় ইক্যুইনক্স। এই পরিভাষাটি এসেছে দু'টি লাতিন শব্দের সমাহারে। লাতিনে ইকাস অর্থ সমান এবং নক্স অর্থ রাত। যে তারিখে রাত সমান, তাকেই বলা হচ্ছে ইক্যুইনক্স। Google সন্দেহ নেই বিদেশি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু সমান রাতের চেয়েও এই দিনটির উদযাপনে সংস্থা ফিরে গিয়েছে প্রাচীন ভারতীয় বসন্ত বর্ণনায়। আমাদের মনে করিয়ে দিয়েছে কালিদাসের কাব্যের কথা।

কবি তাঁর কুমারসম্ভবে লিখেছিলেন যে হরগৌরীর মিলন ঘটানোর জন্য কামদেব, রতি এবং বসন্ত উপস্থিত হয়েছিলেন শিবের তপোবনে। আর এক মুহূর্তে হিমালয়ের বরফকঠিন নিসর্গ ছেয়ে গিয়েছিল রাঙা ফুলের সাজে। সাড়া পড়ে গিয়েছিল প্রাণীজগতেও; জোড়ায় জোড়ায় হরিণ, হাতি পরস্পরের শরীরসুখে রত হয়েছিল। ফুলের মধুপানে ব্যস্ত হয়েছিল লুব্ধ ভ্রমর। Google-এর এই বিশেষ Doodle-এ শুধু জোড়া প্রাণীর উপস্থিতিটাই যা নেই! বাকি সবটুকু এক! তবে সজারুর পিঠের শক্ত কাঁটাও যে বদলে গিয়েছে ফুলের তোড়ায়, তা বসন্ত বিষুবের মাহাত্ম্য ছাড়া আর কী!

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

Tags: Google, Google Doodle, Spring

পরবর্তী খবর