খেলা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

কোহলির দল থেকে বাদ পড়া বাঁচান ধোনি, জানালেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার

কোহলির দল থেকে বাদ পড়া বাঁচান ধোনি, জানালেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার
File Photo

ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে হতশ্রী (তিন টেস্ট মিলিয়ে ৭৬) পারফরম্যান্স করা বিরাট, রিকি পন্টিংদের বিরুদ্ধেও প্রথম দুই টেস্টে ব্যাট হাতে ছিলেন চূড়ান্ত ফ্লপ। চার ইনিংস মিলিয়ে তিনি করেছিলেন যথাক্রমে ১১,০, ২৩, ০, ৯।

  • Share this:

#মুম্বই: সাল ২০১১-১২। ভারতীয় দল থেকে প্রায় বাদ পড়তে চলেছিলেন বিরাট কোহলি। ত্রাতার ভূমিকায় উত্তীর্ণ হয়ে রক্ষা করেন ক্যাপ্টেন এমএস ধোনি। এমনটাই জানালেন দেশের প্রাক্তন ক্রিকেটার সঞ্জয় মঞ্জরেকর। সেবার অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়ে ভারত ০-৪ হোয়াইটওয়াশ হয়ে ফিরেছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে হতশ্রী (তিন টেস্ট মিলিয়ে ৭৬) পারফরম্যান্স করা বিরাট, রিকি পন্টিংদের বিরুদ্ধেও প্রথম দুই টেস্টে ব্যাট হাতে ছিলেন চূড়ান্ত ফ্লপ। চার ইনিংস মিলিয়ে তিনি করেছিলেন যথাক্রমে ১১,০, ২৩, ০, ৯।

শেষ দু'টো টেস্টে কোহলিকে বসানোর কথাই ভেবে ফেলেছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। কিন্তু কোহলির সমর্থনে দাঁড়িয়ে ছিলেন ধোনি। পারথে তৃতীয় টেস্টে কোহলি ৪৪ ও ৭৫ রান করেন। অ্যাডিলেডে গিয়ে সিরিজের শেষ ও চতুর্থ টেস্টে ক্রিকেটের দীর্ঘতম ফরম্যাটের প্রথম শতরানের স্বাদ পান কোহলি।

মঞ্জরেকর সোনি স্পোর্টস নেটওর্য়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলছেন, "বিরাট কোহলি তো বিরাট কোহলিই, সে সবসময় রানের রাস্তা খুঁজে নেয়। ২০১১-১২ সিরিজে ভারত ০-৪ হেরেছিল, কোহলির ওই সিরিজে একমাত্র ভারতীয় হিসাবে সেঞ্চুরি করেছিল। কোহলি তখন তরুণ ক্রিকেটার ছিল। সিডনি টেস্টের পরেই ও দল থেকে বাদ পড়তে চলছিল। ধোনির সমর্থনেই ও পারথে ৭০ ও পরে অ্যাডিলেডে সেঞ্চুরি করে।"

আগামী ১৭ ডিসেম্বর থেকে বহু প্রতীক্ষিত ভারত-অস্ট্রেলিয়া চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু হচ্ছে। এই অ্যাডিলেডে ডে-নাইট টেস্টে মুখোমুখি হবে বিরাট বাহিনী। মঞ্জরেকর বলছেন, অ্যাডিলেডের পিচ অনেকটা ভারতের পিচের মতো। তাঁর সংযোজন, "অ্যাডিলেডে বহু ভারতীয় ব্যাটসম্যান রান পেয়েছে। এখানকার পিচ আমাদের পিচের মতো। গতি আছে, কিন্তু বাউন্সার বুক পর্যন্ত ওঠে। কিন্তু এবার যেহেতু গোলাপি বলে দিন-রাতের খেলা হবে, ফলে সব হিসেব বদলে যাবে। কোহলি কিন্তু ২০১৪-১৪ মরসুমে চারটি শতরান করেছে এখানে।" মঞ্জরেকর আশাবাদী কোহলি এবারও জ্বলে উঠবেন এখানে।

Subhapam Saha

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 14, 2020, 6:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर