Home /News /sports /
৪১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ান হিসেবে উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন অ্যাশলে বার্টি

৪১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ান হিসেবে উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন অ্যাশলে বার্টি

মহিলাদের সিঙ্গলস উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন বার্টি

মহিলাদের সিঙ্গলস উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন বার্টি

দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচ ছিল ফাইনালটি। একেবারে নজরকাড়া। এই ম্যাচে চেক প্রজাতন্ত্রের ক্যারোলিনা প্লিসকোভাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলেন বার্টি। ৬-৩, ৭-৬, ৬-৩ সেটে জিতলেন তিনি

  • Share this:

    #লন্ডন: বেশ কয়েক বছর ধরে মহিলাদের টেনিসে তিনি নিজের পরিচয় দিয়েছেন। ভবিষ্যতের লম্বা রেসের ঘোড়া প্রমাণ করেছিলেন আগেই। কিন্তু টেনিস বিশ্বের প্রতিষ্ঠা পেতে গেলে কুলীন উইম্বলডন জেতা বড় মাপকাঠি। সেটাই এতদিন ছিল না বর্টির। অনেক টেনিস পন্ডিত মনে করেন নিজেকে ধরে রাখতে পারলে আধুনিক প্রজন্মের অন্যতম সেরা মহিলা খেলোয়াড় হতে পারেন এই মেয়েটি। টুর্নামেন্টের অন্যতম আকর্ষণই থাকে মহিলাদের সিঙ্গলস লড়াইকে ঘিরে। এবার সেই আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে গেলেন বিশ্বের এক নম্বর তারকা, অস্ট্রেলিয়ার অ্যাশলে বার্টি।

    প্রত্যাশা মতোই জিতলেন বিশ্বের এক নম্বর অস্ট্রেলিয়ার তারকা অ্যাশলে বার্টি। দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচ ছিল ফাইনালটি। একেবারে নজরকাড়া। এই ম্যাচে চেক প্রজাতন্ত্রের ক্যারোলিনা প্লিসকোভাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হলেন বার্টি। ৬-৩, ৭-৬, ৬-৩ সেটে জিতলেন তিনি। ২০১২ সালের পর এই প্রথম নারীদের কোনো ফাইনাল গড়াল তিন সেটে।

    এদিন শুরু থেকেই চেনা ফর্মেই খেলা শুরু করেন বার্টি। প্রথম সেটটি জিতে নেন ৬-৩ সেটে। সবাই যখন ধরে নিয়েছে সহজে দ্বিতীয় সেটেও জিতে যাবেন বার্টি। তখনই ঘুরে দাঁড়ালেন ক্যারোলিনা। দ্বিতীয় সেটটি ৭-৬ ব্যবধানে জিতে নেন রাশিয়ান টেনিস খেলোয়াড়। কিন্তু তৃতীয় সেটেই বার্টি প্রমাণ করলেন কেন তিনি বিশ্বের এক নম্বর টেনিস খেলোয়াড়।

    ৬-৩ ব্যবধানে ওই সেট এবং ম্যাচটি জিতে নেন বার্টি। এটি তার প্রথম উইম্বলডন। শেষ বার অস্ট্রেলীয় হিসেবে উইম্বলডন জিতেছিলেন এভোনে গুলাগং, যাঁকে বার্টি নিজের আদর্শ বলে মানেন। শুধু তাই নয়, ১৯৭১ সালের সেই ফাইনালে গুলাগং যে পোশাক পরে নেমেছিলেন, সেই ধাঁচে নিজের ফাইনালের পোশাক তৈরি করেছিলেন বার্টি। ম্যাচ শেষে স্বাভাবিকভাবেই আবেগে ভেসে যান তিনি।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: Wimbledon

    পরবর্তী খবর