Sonu Sood: হন্যে হয়ে জরুরি ইঞ্জেকশন খুঁজছিলেন হরভজন সিং, বিপদে হাজির সোনু সুদ

ভারতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটার জরুরি ইঞ্জেকশন খুঁজছিলেন হন্যে হয়ে।

ভারতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটার জরুরি ইঞ্জেকশন খুঁজছিলেন হন্যে হয়ে।

  • Share this:
    #মুম্বই: অক্সিজেন, জরুরি ওষুধ, ভ্যাকসিন, আইসিইউ বেড- সব কিছুরই যেন আকাল গোটা দেশে। এমন মহমারীর জন্য আমাদের দেশ একটুও তৈরি ছিল না। এমনিতেই এদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে হাজার অভাব-অভিযোগ। আর সেসব অভিযোগ যে মিথ্যে নয় তা যেন করোনা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে গেল। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে গোটা দেশে। ইতিমধ্যে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার সতর্কবার্তা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে আপাতত দ্বিতীয় ঢেউয়ের মারাত্মক প্রভাবেই নাজেহাল অবস্থা ভারতের। বহু রোগী অক্সিজেনের অভাবে কষ্ট পাচ্ছেন। অনেকেই এই জরুরি পরিস্থিতিতে রোগীদের কাছে অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছেন। তবে তাতেও যেন অভাব পূরণ হচ্ছে না। দেশজুড়ে শুধুই হাহাকার। সাধারণ মানুষ হোক বা সেলেব্রিটি, কেউই এই পরিস্থিতিতে সঠিক পরিষেবা পাচ্ছেন না। অক্সিজেন, ওষুধের জোগান সময়মতো হচ্ছে না। যার জেরে অনেক রোগী প্রাণ হারাচ্ছেন। তবে এই কঠিন পরিস্থিতিতে বলিউড তারকা সোনু সুদ যেন সুপারম্যান হয়ে এসেছেন। কখনও সাধ্যের মধ্যে, কখনও আবার নিজের ক্ষমতার বাইরে গিয়েও মানুষকে সাহায্য করছেন তিনি। গত বছর লকডাউনের সময় ভিন রাজ্যে থাকা বহু শ্রমিককে নিজস্ব উদ্যোগে বাড়িতে ফিরতে সাহায্য করেছিলেন সোনু। পরোপকারের প্রতিজ্ঞা করেছেন যেন তিনি। আর সেই প্রতিজ্ঞা তিনি এখনও পালন করে চলেছেন। করোনা দ্বিতীয় ঢেউয়ের এই অস্থির সময়েও মানুষের কাছে অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দিচ্ছেন তিনি। কখনও আবার কোনও রোগীকে হাসপাতালে বেডের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। ভারতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটার Remedesivir Injection খুঁজছিলেন হন্যে হয়ে। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে লেখেন, কারও কাছে এই ইঞ্জেকশন থাকলে যেন নির্দিষ্ট একটি ঠিকানায় অবিলম্বে পৌঁছে দেয়। ভাজ্জির সেই পোস্টে আচমকা রিপ্লাই দেন সোনু সুদ। ইঞ্জেকশন সঠিক সময়ে জায়গামতে পৌঁছে যাবে। ভাজ্জিকে এমনটাই বলে আশ্বস্ত করেন সোনু। যেমন কথা তেমন কাজ। সেই ওষুধ জায়গামতো পৌঁছে দেন সোনু। এর পর হরভজনও ফের একটি পোস্ট করে সোনু সুদকে ধন্যবাদ জানান। এই কঠিন সময়ে সোনু সুদ যেন আরও মানুষের পাশে থাকতে পারেন। ভাজ্জি সেই কামনাই করেছিলেন।
    Published by:Suman Majumder
    First published: