Euro 2020: শিবিরে করোনার হানা, স্প্যানিশ ফুটবলারদের ভ্যাকসিন দেবে সেনা

স্পেন শিবিরে এখন করোনাই যেন সব থেকে বড় চিন্তা।

স্পেন শিবিরে এখন করোনাই যেন সব থেকে বড় চিন্তা।

  • Share this:

    #মাদ্রিদ:

    দলের অন্যতম সেরা দুজন তারকা করোনা আক্রান্ত। ইউরো কাপ শুরু হওয়ার দিন কয়েক আগে স্পেনের অধিনায়ক সার্জিও বুস্কেটস- এর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তার পরই গোটা শিবির কোয়ারেন্টাইনে চলে যায়। দিন দুয়েক পরেই দলের আরেক তারকা দিয়েগো লরেন্তের শরীরেও করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। ফলে মেগা টুর্নামেন্ট শুরুর আগে চাপে রয়েছে স্পেন। সুইডেনের বিরুদ্ধে ইউরো কাপের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে স্পেন। তার আগে শিবিরে করোনার হানা নিয়ে চিন্তা কোচ লুই এনরিক। যদিও গত তিনদিন ধরে ট্রেনিং করাচ্ছেন তিনি। তবে রিজার্ভ বেঞ্চ থেকে ১০-১১ জন ফুটবলারকে অনুশীলনে নামিয়েছেন তিনি। এবার জানা যাচ্ছে, দেশের সেনার সহযোগিতায় প্রতিটি ফুটবলারকে টিকা দেবে স্পেন।

    বুস্কেটস-এর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরে বাধ্য হয়ে গোটা স্পেন দল আইসোলেশনে চলে যায়। এর মধ্যে লিথুয়ানিয়ার বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে অনূর্ধ্ব -২১ দলকে নামাতে বাধ্য হন এনরিক। তবে সেই ম্যাচে লিথুয়ানিয়াকে ৪-০ গোলে দুরমুশ করে দেয় স্পেনের অনূর্ধ্ব-২১ দল। এর পরই স্পেনের স্বাস্থ্য বিভাগ ঠিক করে, ইউরো শুরুর আগেই প্রথম একাদশের সব ফুটবলারদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তবে স্প্যানিশ ফুটবলারদের কোন ভ্যাকসিন দেওয়া হবে তা এখনো জানা যায়নি। ভ্যাকসিনের কটি ডোজ দেওয়া হবে সেই ব্যাপারেও কিছু জানা যায়নি। স্পেন শিবিরে এখন করোনাই যেন সব থেকে বড় চিন্তা। স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন প্রতিটি ফুটবলারকে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য দেশের স্বাস্থ্য বিভাগের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছিল। ইতিমধ্যে স্পেনের যে সব অ্যাথলিটরা অলিম্পিকে অংশ নেবেন তাঁদের ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। তাহলে ফুটবলারদের নয় কেন! এমন প্রশ্ন তুলেছিল স্পেনের ফুটবল সংস্থা।

    লিথুয়ানিয়ার বিরুদ্ধে দুরন্ত খেলার পর অনূর্ধ্ব ২১ দলের ফুটবলারদের আপাতত মাদ্রিদেই রাখছে স্পেন। ১৪ জুন সুইডেনের বিরুদ্ধে প্রখম ম্যাচ খেলতে নামবে স্পেন। তার আগে দলের আর কোনও ফুটবলারের শরীরে করোনা ধরা পড়লে পরিস্থিতি বিগড়ে যেতে পারে। তখন অনূর্ধ্ব-২১ দলের ফুটবলারদের প্রয়োজন হবে। তাই তাদের আপাতত তাঁদের স্কোয়াডে রাখছেন এনরিক। এমনকী তাদের নিয়মিত অনুশীলনেও নামাচ্ছেন তিনি।

    Published by:Suman Majumder
    First published: