World Cup Qualifiers: সেই সুনীল ছেত্রীর কাছেই হারল বাংলাদেশ, ভারতের ঘরে তিন পয়েন্ট

বাংলাদেশকে জিততে দেন না সুনীল ছেত্রী। ফের প্রমাণিত।

বাংলাদেশকে জিততে দেন না সুনীল ছেত্রী। ফের প্রমাণিত।

  • Share this:

    #দোহা:

    গুরপ্রিত সিং সান্ধু সোমবার হোটেলের রুমে থাকলেও পারতেন! বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নেমে এদিন তাঁকে একটিও শট সামলাতে হল না। একবারের জন্যও পরীক্ষার মুখে পড়লেন না ভারতীয় গোলকিপার। ২০১৯ সালের ১৫ অক্টোবর বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ার ম্যাচে ভারতীয় দলকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু এদিন জাাল ভুঁইয়ার দলের সেই ঝাঁঝ ছিল না। সেদিন যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে শুরু থেকেই অ্যাটাকিং খেলছিলেন বাংলাদেশের ফুটবলাররা। কিন্তু এদিন জেমি ডের বাংলাদেশ যেন রক্ষণ সামলাতেই বেশি ব্যস্ত ছিল। পারলে দশজনকেই ডিফেন্সে নামিয়ে দিতেন বাংলাদেশের কোচ! গোল করার কোনও চেষ্টাই দেখা গেল না জামাল ভূঁইয়াদের। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রক্ষণাত্মক খেলে গেল বাংলাদেশ। আর মাঝে মধ্যে ছোটখাটো ফাউল করে ভারতীয় দলের ছন্দ নষ্ট করার চেষ্টা করলেন বাংলাদেশের ফুটবলাররা। ভারতীয় দলের ফুটবলারদের একের পর এক আক্রমণ সামলানোই এদিন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল বাংলাদেশের ফুটবলারদের কাছে। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হল না। ম্যাচটা ২-০ গোলে হারতে হল বাংলাদেশকে।

    কথায় বলে অ্যাটাক ইজ দ্য বেস্ট ডিফেন্স। কোনও দল যদি এতটাই রক্ষণাত্মক হয়ে খেলে তা হলে তাদের গোল খাওয়ার ঝুঁকি এমনিতেই বেড়ে যায়। এদিন সেটাই হল বাংলাদেশের সঙ্গে। বারবার ভারতীয় স্ট্রাইকাররা বাংলাদেশের ডিফেন্স ভাঙার চেষ্টা করছিলেন। বেশ কয়েকবার সহজ সুযোগ পেলেন সন্দেশ ঝিঙ্গানরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তালা খুলে দিলেন সেই সুনীল ছেত্রী। পরিসংখ্যান বলছে, সুনীল ছেত্রী থাকলে ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ জিততে পারে না। সেই পরিসংখ্যান যে একেবারে সত্যি তা এদিনের ম্যাচে আরো একবার প্রমাণ হয়ে গেল। বাংলাদেশের জমাট রক্ষণ ভাঙতে বারবার ব্যর্থ হচ্ছিলেন ভারতীয় ফুটবলাররা। এমনকী সুনীল ছেত্রীও এদিন দ্বিতীয়ার্ধে আনমার্কড থাকা অবস্থায় একটি সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন। কিছুক্ষণ পরই অবশ্য নিজের জাত চিনিয়ে দেন ভারতীয় অধিনায়ক। অসাধারণ একটি ক্রস ফলো করে বাংলাদেশের জালে বল জড়িয়ে দেন সুনীল।

    সদ্য করোনা জয় করে উঠেছেন তিনি। গত ম্যাচে কাতারের বিরুদ্ধে তাঁকে বেশিক্ষণ মাঠে রাখেননি ভারতীয় দলের কোচ ইগর স্টিমাচ। কিন্তু এদিন তাঁকে ছন্দেই দেখাল। প্রথম থেকেই গোল করার জন্য মরিয়া ছিলেন ছেত্রী। একটা সময় মনে হচ্ছিল বাংলাদেশের রক্ষণ ভেঙে আর গোল করা হবে না ভারতের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মুশকিল আসান হলেন সেই সুনীল ছেত্রী।

    Published by:Suman Majumder
    First published: