সিডনিতে নতুন করে করোনা সংক্রমণে বাড়ছে দুশ্চিন্তা, সতর্ক ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

সিডনিতে নতুন করে করোনা সংক্রমণে বাড়ছে দুশ্চিন্তা, সতর্ক ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

গোলাপি বলে ডে-নাইট টেস্টের বাইরেও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) কড়া নজর রাখতে হচ্ছে করোনা পরিস্থিতির ওপর৷ কারণ ফের এই মারণ ভাইরাস মাথা চাড়া দিয়েছে সিডনির উত্তরের সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায়৷

গোলাপি বলে ডে-নাইট টেস্টের বাইরেও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) কড়া নজর রাখতে হচ্ছে করোনা পরিস্থিতির ওপর৷ কারণ ফের এই মারণ ভাইরাস মাথা চাড়া দিয়েছে সিডনির উত্তরের সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায়৷

  • Share this:

    #সিডনি: অ্যাডিলেড ওভালে চলছে ভারত-অস্ট্রেলিয়া চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ৷ গোলাপি বলে ডে-নাইট টেস্টের বাইরেও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) কড়া নজর রাখছে করোনা পরিস্থিতির ওপর৷ কারণ ফের এই মারণ ভাইরাস মাথা চাড়া দিয়েছে সিডনির উত্তরের সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকায়৷ জানা যাচ্ছে ২৮ জনের নতুন করে করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে৷ আশঙ্কা করা হচ্ছে সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে৷ অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসন সেখানকার বেশ কিছু রাজ্য ও অঞ্চল সীমান্তে বিধিনিষেধ জারি করেছে৷ 

    এখন প্রশ্ন, বর্ডার-গাভাস্কর ট্রফির বাকি ম্যাচগুলি হবে নাকি করোনার জন্য দেশে ফিরে আসবে টিম ইন্ডিয়া? সিএ জানিয়ে দিয়েছে যে, পূর্ব নির্ধারিত সূচি মেনেই সিডনিতে তৃতীয় টেস্ট ম্য়াচ হবে৷ ঘটনাচক্রে এই সিডনিতেই ইন্ডিয়া-অস্ট্রেলিয়া তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ এবং জোড়া প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে৷

    সিএ-র অন্তর্বর্তী মুখ্য আধিকারিক নিক হকলি এসইএন রেডিওকে বলেছেন, "আমাদের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তর আলোচনা করেছি, বৈঠকে বসেছি৷ আমরা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছি৷ করোনা নিয়ে কেউ আতঙ্কিত নই৷  পুরো গ্রীষ্ম জুড়েই আমাদের প্লেয়ারদের বাবল হাবে রেখেছি৷ এখন ধৈর্য্য ধরে দেখতে চাই৷ আমার মনে হয় অস্ট্রেলিয়ার সরকার অতিমারীর পরিস্থিতি দুর্দান্ত ভাবে সামাল দিয়েছে৷"

    সিডনি টেস্ট নিয়েও যাবতীয় অনিশ্চয়তা দূর করে দিয়েছেন হকলি৷ তিনি বলেছেন, "আমার মনে হয় না এসসিজি টেস্ট হওয়া নিয়ে কোনও সন্দেহ আছে৷ আমাদের বাবল হাব যথাস্থানেই আছে৷ বিবিএল, ডব্লিউবিবিএল, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের  ক্রিকেটাররা একদম সুরক্ষাবিধি মেনেই রয়েছে৷ আমাদের মেডিক্যাল টিম খুব ভাল কাজ করছে৷ দেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগে আছি৷ ক্রিকেটের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তার কোনও বিষয় নেই৷

    অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন পেসার ব্রেট লি অ্যাডিলেড টেস্টের মাঝপথেই সিডনি ফিরে গিয়েছেন৷ সম্প্রচারক সংস্থা ফক্স স্পোর্টস ও চ্যানেল সেভেন বহু সিনিয়র কর্মীকে বসিয়ে রাখতে বাধ্য হয়েছে৷ অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে জনবহুল এলাকা সিডনি৷ ফলে সংক্রমণের ভয় থেকেই যাচ্ছে৷

    Published by:Subhapam Saha
    First published: