ডেথ সার্টিফিকেট ছাড়াই এখানে দীর্ঘদিন ধরে দাহ করা হচ্ছে মৃতদেহ !

ডেথ সার্টিফিকেট ছাড়াই এখানে দীর্ঘদিন ধরে দাহ করা হচ্ছে মৃতদেহ !

বিভিন্ন জায়গা থেকে মৃতদেহ এইসব শ্মশানগুলোতে দাহ করে দিয়ে চলে যায় অনেকেই। কেউ দেখতে বা জানতে চায় না ওই মৃত ব্যক্তির পরিচয় বা মৃত্যুর কারণ।

  • Share this:

#মিনাখা: মিনাখা ব্লকে নেই কোনও বৈধ শ্মশান। এই ব্লকে ৩৫ থেকে ৪০ টি শ্মশান রয়েছে। বেশিরভাগ শ্মশানগুলোই বিদ্যাধরী নদীর উভয় পাশের নদীর চরের উপর। এইসব শ্মশানে নেই কোন সরকারি কর্মচারী। যার ফলে যে যার মত মৃতদেহ দাহ করে দিয়ে চলে আসে।

বিভিন্ন জায়গা থেকে মৃতদেহ এইসব শ্মশানগুলোতে দাহ করে দিয়ে চলে যায় অনেকেই। কেউ দেখতে বা জানতে চায় না ওই মৃত ব্যক্তির পরিচয় বা মৃত্যুর কারণ। বৃহস্পতিবার মিনাখা মালঞ্চ চক আহমেদপুর শ্মশানে এক মহিলার মৃতদেহ দাহ করতে আসে কয়েকজন অজ্ঞাত পরিচয় লোকেরা। তারা দেহটি দাহ করার জন্য তাড়াহুড়ো করতে থাকেন। সন্দেহ হওয়ায় তাদের কাছে মহিলার ডেথ সার্টিফিকেট চাওয়া হয়। ডেথ সার্টিফিকেট দেখাতে না পারায় পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। ততক্ষণে অবশ্য কয়েকজন পালিয়ে যায়। পুলিশ দেহ-সহ তিনজনকে আটক করেছে।

ওই মৃতদেহর পরিচয় বা মৃত্যুর কারণ জানতে চাওয়ায় ওই মৃতদেহ ছেড়ে চলে যায় মৃতদেহ সঙ্গে আসা অজ্ঞাতপরিচয় লোকেরা। ঘটনার খবর পেয়ে মিনাখা থানার পুলিশ মৃতদেহ শুক্রবার ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে। এই ঘটনার পর এলাকাবাসীর দাবি এইসব শ্মশান গুলোতে প্রশাসনের উদ্যোগে তৈরি হোক কমিটি। বা প্রশাসনের কোন লোক এখানে থাকুক। এই শব দাহ করতে আসা মৃতদেহ সঠিক পরিচয় পত্র বা ডেড সার্টিফিকেট দেখেই দাহ করার অনুমতি দেয় তার ব্যবস্থা করুক প্রশাসন।

শ্মশানে দাহ করতে আনা এক মহিলার মৃতদেহ ঘিরে রহস্য। দেহ আটকায় পুলিশ। মিনাখাঁর চকআহমেদপুর শ্মশানের ঘটনা। মহিলার মৃতদেহ নিয়ে আসেন স্থানীয় কয়েকজন শ্রমিক। তারা দেহটি দাহ করার জন্য তাড়াহুড়ো করতে থাকেন। সন্দেহ হওয়ায় তাদের কাছে মহিলার ডেথ সার্টিফিকেট চাওয়া হয়। ডেথ সার্টিফিকেট দেখাতে না পারায় পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। ততক্ষণে অবশ্য কয়েকজন পালিয়ে যায়। পুলিশ দেহ-সহ তিনজনকে আটক করেছে।

First published: February 7, 2020, 8:23 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर