corona virus btn
corona virus btn
Loading

'অফিসে বসে নয়, এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখুন', আধিকারিকদের নির্দেশ শুভেন্দু অধিকারীর 

'অফিসে বসে নয়, এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখুন', আধিকারিকদের নির্দেশ শুভেন্দু অধিকারীর 

বুধবার সেচ দপ্তরের সচিব নবীন প্রকাশ-সহ অন্যান্য আধিকারিকদের সঙ্গে আমফান ঝড় পরবর্তী এলাকা পুনঃ নির্মাণ নিয়ে আলোচনা করেন মন্ত্রী । বৈঠকে বসিরহাট , জয়নগর , ডায়মন্ডহারবার , কাকদ্বীপ , তমলুক ও কাঁথি এলাকায় অবিলম্বে কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে ।

  • Share this:

#কলকাতা: বাঁধ ভেঙে গ্রামে জল ঢুকছে হু হু করে । ঘূর্ণিঝড় আমফানের পর উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং পূর্ব মেদিনীপুরের একাধিক জায়গায় এই ছবি ধরা পড়েছে । বহু জায়গায় জোয়ারের জল ঢুকে সমস্যা আরও বেড়েছে । এই অবস্থায় যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে দ্রুত বাঁধ মেরামতের জন্য সেচ দফতরের আধিকারিকদের জানালেন রাজ্যের সেচ ও জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ।

২০ মে, বুধবার ঘূর্ণিঝড় আমফানের জেরে ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাজ্যের তিন জেলা । নদী ও সমুদ্র তীরবর্তী এলাকার মানুষের অনেকেই নদী বাঁধের ওপরে বসবাস করেন । ভরা কোটালের জলে সেই সমস্ত নদীর বাঁধ ভেঙে গিয়েছে । আশে পাশের গ্রাম জলের তোড়ে ভেসে গিয়েছে । বহু গ্রাম এখনও জলমগ্ন । সেই সমস্ত জায়গায় দ্রুত বাঁধ মেরামতি না করলে সমস্যা আরও বৃদ্ধি পাবে । তাই অবিলম্বে বাঁধ সারানোর কাজ শুরু করতে হবে ।

বুধবার সেচ দপ্তরের সচিব নবীন প্রকাশ-সহ অন্যান্য আধিকারিকদের সঙ্গে  আমফান ঝড় পরবর্তী এলাকা পুনঃ নির্মাণ নিয়ে আলোচনা করেন মন্ত্রী । বৈঠকে বসিরহাট , জয়নগর , ডায়মন্ডহারবার , কাকদ্বীপ , তমলুক ও কাঁথি এলাকায় অবিলম্বে কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে । উত্তর ২৪ পরগনা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং  পূর্ব মেদিনীপুর এর আধিকারিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন মন্ত্রী । বৈঠকে আসন্ন পূর্ণিমার কোটালের আগেই বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা যেমন হিঙ্গলগঞ্জ , গোসাবা , সন্দেশখালি , পাথরপ্রতিমা-সহ সুন্দরবন এলাকার বাঁধ দ্রুত মেরামতি করার ব্যাবস্থা করা হয়, তার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ।

মন্ত্রী জানিয়েছেন অফিসে বসে থেকে শুধু মনিটরিং করা নয়, আগামিকাল থেকে উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের বাঁধগুলি সরেজমিনে পরিদর্শন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে । পরিস্থিতি দেখে দ্রুত রিপোর্ট তৈরি করে সচিব ও মন্ত্রীর কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে । যেহেতু জল না নামলে অন্যান্য কাজ শুরু করা যাবে না ,  তাই এই কাজ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শেষ করতে হবে । তবে শুধু দক্ষিণের জেলাগুলি নয়। উত্তরের জেলাগুলিতেও বিশেষ নজর দিতে বলা হয়েছে । আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হবে। এই সমস্ত এলাকায় যে সব নদী বাঁধ আছে সেখানেও যথাযথ নজর দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রী ।

ABIR GHOSHAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: May 27, 2020, 6:34 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर