দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ডিজিটাল কার্ডে রেশন মেলেনি! গ্রাহকের বাড়িতে রেশন পৌঁছে দেবে প্রশাসন

ডিজিটাল কার্ডে রেশন মেলেনি! গ্রাহকের বাড়িতে রেশন পৌঁছে দেবে প্রশাসন

কার্যক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, অনেকে ডিজিটাল রেশন কার্ড দেখালেও তাদের রেশন দিতে চাইছেন না রেশন ডিলার।

  • Share this:

#বর্ধমান:  ডিজিটাল রেশন কার্ড থাকা সত্ত্বেও ডিলার রেশন না দিয়ে ফিরিয়ে দিল সেই গ্রাহকের বাড়িতে রেশনের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেবে জেলা প্রশাসন। সোমবার এমনটাই জানালেন জেলাশাসক।  পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী বলেন, ডিজিটাল রেশন কার্ডে রেশন দিতে বাধ্য রেশন ডিলার। গ্রাহক ডিজিটাল রেশন কার্ড দেখালে রেশন দিতে বাধ্য ডিলার। গ্রাহকের নাম এন্ট্রি না হয়ে থাকলে তার দায় সেই গ্রাহকের নয়। সেই দায় জেলা খাদ্য দফতরের। তার দায় গ্রাহকের ওপর চাপানো যাবে না। ডিজিটাল রেশন কার্ড দেখালেই রেশন মিলবে। পয়লা মের আগে এমনটাই ঘোষণা করেছিল পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন।

জেলাশাসক জানিয়েছিলেন, পুরনো কার্ডে কোনও রেশন মিলবে না। তবে ডিজিটাল রেশন কার্ড যাদের থাকবে তাদের ফেরত পাঠাতে পারবে না রেশন ডিলার। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, অনেকে ডিজিটাল রেশন কার্ড দেখালেও তাদের রেশন দিতে চাইছেন না রেশন ডিলার।  তার নাম এখনও এন্ট্রি হয়নি বা তার কার্ডের নম্বরে এখনও খাদ্য সামগ্রী বরাদ্দ হয়নি বলে তাদের ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছে বিভিন্ন রেশন ডিলার। সেইসব গ্রাহকরা পৌরসভায়, জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। জেলা খাদ্য দফতরের সামনেও প্রচুর গ্রাহক ডিজিটাল রেশন কার্ড নিয়ে ভিড় করেন। তাদের বক্তব্য, ডিজিটাল কার্ড থাকা সত্ত্বেও রেশন মিলছে না। অথচ নাম এন্ট্রি করার জন্য যা প্রয়োজনীয় সেই সহায়তা খাদ্য দফতর থেকেও মিলছে না। আমরা তাহলে যাব কোথায়?

এ ব্যাপারে জেলা শাসক বিজয় ভারতী বলেন, ডিজিটাল কার্ড থাকা সত্ত্বেও রেশন মেলেনি এমন অভিযোগ পাইনি। ডিজিটাল কার্ড দেখানোর পরও রেশন ডিলার রেশন দিতে না চাইলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে জেলা প্রশাসন।এ ব্যাপারে এখনও কোনও গ্রাহক অভিযোগ জানাননি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলেই সেই রেশন ডিলারকে শোকজ করা হবে। পাশাপাশি ওই গ্রাহকের বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া নিশ্চিত করবে জেলা প্রশাসন।

জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় বলেন, এখানে রেশনে  খাদ্য সামগ্রী সরবরাহে গোলমাল এড়াতে আগাম পুলিশি বন্দোবস্ত করা হয়েছিল। এখনও পর্যন্ত তেমন কোনও অশান্তি ঘটেনি। এই কদিনে বেশিরভাগ বাসিন্দারাই রেশনের খাদ্য সামগ্রী সংগ্রহ করেছেন। বাকি দিনগুলোতেও যাতে শান্তিপূর্ণভাবেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাসিন্দারা রেশন সংগ্রহ করেন তা সুনিশ্চিত করতে উপযুক্ত পুলিশি বন্দোবস্ত করা হয়েছে।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: May 4, 2020, 4:05 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर