• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • পূর্ব বর্ধমানে করোনার পরীক্ষা আরও বাড়ানোর নির্দেশ দিল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর

পূর্ব বর্ধমানে করোনার পরীক্ষা আরও বাড়ানোর নির্দেশ দিল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর

গত সপ্তাহে সংখ্যা বাড়িয়ে এক হাজার নমুনা সংগ্রহ ও তা পরীক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল

গত সপ্তাহে সংখ্যা বাড়িয়ে এক হাজার নমুনা সংগ্রহ ও তা পরীক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল

গত সপ্তাহে সংখ্যা বাড়িয়ে এক হাজার নমুনা সংগ্রহ ও তা পরীক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনার পরীক্ষা আরও বাড়ানোর নির্দেশ দিল রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। আগে এই জেলায় গড়ে ৫০০টি করে করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছিল। গত সপ্তাহে সেই সংখ্যা বাড়িয়ে এক হাজার নমুনা সংগ্রহ ও তা পরীক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। করোনার সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় সেই টার্গেট আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন গড়ে দেড় হাজার করে নমুনা সংগ্রহ ও তা পরীক্ষা করার জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর।

প্রতিদিন কতগুলি করে অ্যান্টিজেন টেস্ট ও কতগুলি লালারসের নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে তার বিস্তারিত রিপোর্ট পাঠাতে বলা হয়েছে। জেলার সব প্রান্ত থেকেই নিয়মিত করোনা পরীক্ষা নিশ্চিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী বলেন, যত বেশি পরীক্ষা করা যাবে ততোই করোনা আক্রান্তদের চিহ্নিত করে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে। শুধু তাই নয়,আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসার আওতায় আনা গেলে তাদের মধ্য দিয়ে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনাও কমে আসবে। তাই করোনা পরীক্ষার প্রতিদিনের লক্ষ্যমাত্রা যাতে পূরণ করা সম্ভব হয় তার সবরকম চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বর্ধমানের নবাবহাট বাসস্ট্যান্ডে লালারসের নমুনা সংগ্রহ করার জন্য কিয়স্ক বসানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেখানে বাস যাত্রী ও বাসকর্মীদের অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সড়কপথে পরিবহণের মাধ্যমে যাতে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে না পারে তা নিশ্চিত করতেই এই ব্যবস্থা। পাশাপাশি কাটোয়া ও কালনায় ভাগীরথীর ফেরিঘাটে যাত্রীদের লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেখানেও অ্যান্টিজেন টেস্ট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর পরীক্ষা বাড়ানো নিশ্চিত করতে লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিলেও নানা কারণে এই লক্ষমাত্রা সব দিন পূরণ করা যাচ্ছে না বলে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যাচ্ছে, গত আট দিনের মধ্যে চারদিন দেড় হাজারের বেশি নমুনা সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে। আবার বেশ কয়েকদিন লক্ষ্যমাত্রা ধারেকাছেও পৌঁছানো যায়নি। গত ৯ আগস্ট এই জেলায় ৫৯৬টি নমুনা সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছিল। ১০ আগস্ট ১৫৬২ নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরের দিন তা আবার কমে ১৩৩০ এ নেমে আসে। তার পর দিন দেড় হাজারের ওপর নমুনা সংগ্রহ করা গিয়েছে। ১২ আগস্ট ১৬২৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৩ আগস্ট ১৫১৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৪ আগস্ট ১৭৫০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ১৫ আগস্ট আবার তা কমে মাত্র ৭১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। ১৬ আগস্ট ৯৫৪ জন নমুনা সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে।

Saradindu Ghosh

Published by:Ananya Chakraborty
First published: