দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনায় কারণে বন্ধ পৌষমেলা, বোলপুর ডাকবাংলা মাঠে বিকল্প মেলা চাইছে ব্যবসায়ীরা

করোনায় কারণে বন্ধ পৌষমেলা, বোলপুর ডাকবাংলা মাঠে বিকল্প মেলা চাইছে ব্যবসায়ীরা

বেশ কয়েকটি ব্যাবসায়িক সংগঠন বোলপুরের ডাকবাংলো মাঠে বিকল্প মেলা করতে চেয়ে আবেদন করেছে বীরভূম জেলা পরিষদের কাছে

  • Share this:

#বোলপুর: করোনা আবহ এই বছর শান্তিনিকেতনে বন্ধ পৌষমেলা। বিশ্বভারতীর তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে করোনা আবহে মেলা বন্ধ রাখার। তাই বোলপুরের বেশ কয়েকটি ব্যাবসায়িক সংগঠন বোলপুরের ডাকবাংলো মাঠে পৌষ মেলার বিকল্প মেলা করতে চেয়ে আবেদন করেছে বীরভূম জেলা পরিষদের কাছে। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ, মঙ্গলবার বৈঠকে বসে বীরভূম জেলা প্রশাসন। বৈঠক হয় বীরভূম জেলা পরিষদে। উপস্থিত ছিলেন বীরভূম জেলা পরিষদের মেন্টর অভিজিৎ সিংহ, জেলাশাসক বিজয় ভারতী, বীরভূম জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং-সহ অন্যান্য আধিকারিকেরা।

বোলপুরের ডাকবাংলো মাঠে পৌষ মেলার বিকল্প মেলার আবেদন বিভিন্ন ব্যাবসায়িক সংগঠনের পক্ষে করা হলেও তাতে এখনই অনুমতির শিলমোহর দিচ্ছেনা বীরভূম জেলা প্রশাসন। বীরভূম জেলা পরিষদের মেন্টর অভিজিৎ সিংহ জানিয়েছেন বিকল্প পৌষ মেলা নিয়ে মেলা আয়োজন করার জন্য যারা আবেদন জানিয়েছেন তাদের সঙ্গে কথা বলা হবে প্রথমে, জানা হয়ে তাদের পরিকল্পনা সম্পর্কে। কারণ করোনা আবহে মেলা করতে গেলে সামাজিক দূরত্ব মাঠে বেশি দরকারি। তাছাড়া যে জেলা পরিষদের বোলপুরের যে ডাকবাংলো মাঠে মেলা করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে সেই জায়গায় কতগুলি স্টল বসতে পারবে, স্টলে কত মানুষের ভিড় হতে পারে সব জানার পরই চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পাশাপাশি মেলা করতে গেলে সেই সমস্ত জায়গা খতিয়ে দেখে দমকল বিভাগ, স্বাস্থ্য বিভাগের অনুমতি প্রয়োজ হবে মেলার উদ্যোক্তাদের। তবে বোলপুরের স্থানীয় মানুষদের বক্তব্য শীতকালে বোলপুরের প্রধান আকর্ষণ থাকে শান্তিনিকেতনের পৌষ মেলা, করোনা আবহের জন্য এই বছর সেই মেলা হবে না বলে জানা গিয়েছে। তাই বিকল্প যদি একটা মেলা বোলপুর ডাকবাংলা মাঠ এই পাওয়া যায় তাহলে ক্ষতি কি? কারণ এই ডাকবাংলা মাঠ শান্তিনিকেতনের পৌষ মেলার মাঠ থেকে খুব একটা দূরে নয়। তাই পৌষ মেলার সাজ বিকল্প প্রশ্ন রাতেই মেটাতে চাইছে বোলপুরের মানুষজন। এখন বীরভূম জেলা প্রশাসন কি সিদ্ধান্ত নেয় তার ওপরে নির্ভর করছে সবকিছু।

Supratim Das
Published by: Ananya Chakraborty
First published: December 15, 2020, 7:07 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर