ভোটে কোনও রকম 'তকমা' চায় না ওরা,দাবি বাড়ুক নিরাপত্তা...

Pooja Basu | News18 Bangla
Updated:May 11, 2019 03:46 PM IST
ভোটে কোনও রকম 'তকমা' চায় না ওরা,দাবি বাড়ুক নিরাপত্তা...
Pooja Basu | News18 Bangla
Updated:May 11, 2019 03:46 PM IST

#পুরুলিয়া: হোটেলের ঘরেই বসেই শোনা যাচ্ছিল জয় শ্রী রামের ধ্বনি৷ পুরুলিয়া শহরের একেবারে প্রাণকেন্দ্রে আকাশ হোটেলর ঘরে বসেই বুঝতে পারছিলাম মোদির সভার আঁচ৷ তবে সময় যত গড়াল ততই রোদের তাপের সঙ্গে সঙ্গে মোদি উন্মাদনা ধরা পড়ল প্রখরভাবে৷ শ্রী রাম নিয়ে কোন মন্ত্রোচ্চারণে মনের শান্তি হওয়া উচিৎ কিন্তু এই ধ্বনি উত্তেজনা বাড়ায়, সঙ্গে কোথাও যেন ভয়ের জন্ম দেয়৷ দেয় ধ্বংসের বার্তা৷ আসলে যারা ৯দশকের শেষের দিকে বেড়ে উঠেছি, তাদের কাছে বাবরির মসজিদ ভাঙার সেই স্মৃতি তুলে আনে জয় শ্রী রাম ধ্বনি৷ এই আওয়াজের সঙ্গে জড়িযে অনেক অসহায় ছবি৷ তবে সে তো বেশ কয়েকযুগ আগের ঘটনা৷ আপাতত অযোধ্যার জমি মামলা সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন৷

কিন্তু বাংলার মাটিও যে এই ধ্বনিতে কাঁপতে পারে, পুরুলিয়ায় না গেলে টের পেতাম না৷ একসময় এই পুরুলিয়ায় ছিল মাওবাদী বাড়বাড়ন্ত৷ তৃণমূল সরকারের দৌলতে সেও আজ অতীত৷ কিন্তু অশান্তি থামেনি৷ নতুন করে অশান্তি শুরু হয়েছে শাসকদল ও বিজেপিকে কেন্দ্র করে৷ পঞ্চায়েত ভোট তার কিছু বার্তা দিয়েছে ইতিমধ্যেই৷ শাল-পিয়ালের জঙ্গল, অযোধ্যার হিল টপ, ছোট ছোট আদিবাসী গ্রাম থেকে ছৌ-নাচনি শিল্পের যে ধারা বয়ে নিয়ে আসছে পুরুলিয়া তাতেই আজ লাগছে গেরুয়ার ছোঁয়া৷ পুরুলিয়ায় কয়েক পা ঘুরলে বা সাধারণের কথায় তা যে কেউই আন্দাজ করতে পারবেন৷

তবে কথা বলতে চাইছিলাম তরুণ প্রজন্মের সঙ্গে বা এমন কেউ যার ভোটের হাতিখড়ি হতে চলেছে৷ এতদিন হয়ত পরিবারের থেকে শুনেছেন ব্যালট বক্স বা ইভিএমের কথা৷ এবার নিজেরা প্রত্যক্ষ করবেন এসব৷ এবার ভোট নিয়ে সচেতন হবেন তারা৷ অষ্টাদশী ছেলে-মেয়েরা কতটা বিশ্বাসী এই গৈরিকীকরণে? একসময় তাদের সঙ্গে জুড়েছিল মাওবাদী তকমা৷ এখন সেটা সরে গিয়ে গেরুয়ার আস্ফালনে কী আদৌ মত রয়েছে প্রথমবার ভোটাধিকার পাওয়া নাগরিকদের৷ তারই খোঁজে বেড়িয়ে পড়লাম৷

দেখুন প্রথমবার হাতে পড়বে ভোটের কালি, ভোট নিয়ে কী আশা, কী দাবি পুরুলিয়ার যুব সম্প্রদায়ের

শুনেছিলাম, পুরুলিয়া স্টেশন বেশ সুন্দর৷ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে বিশেষ উদ্যোগ নেন স্টেশন মাষ্টার৷ আদ্রা ডিভিশনের ডিআরএম শরোদ কুমার শ্রীবাস্তবের নেতৃত্বে এই অভিযান শুরু হয়েছে অনেকদিন আগেই৷ স্বচ্ছ্বতা মিশনে কেন্দ্র থেকে বাড়তি ফান্ডও মঞ্জুর করেছেন তিনি৷ স্টেশন পরিষ্কার রাখতে তার এই উদ্যোগকে সকলেই স্বাগত জানিয়েছেন৷ সেই স্টেশন চত্বরে ঢুঁ মারতে গিয়েই দেখা মিলল একদল পড়ুয়ার৷ কথা বলে জানা গেল তারা সকলেই প্রথমবার ভোট দেবেন৷ রথ দেখা কলা বেচা দুটিই হল আমার৷ স্টেশন দেখাও হল সঙ্গে যাদের সঙ্গে কথা বলতে চাইছিলাম, তাদেরও পেলাম৷

Loading...

শুরু হল আড্ডা৷ কী চাই প্রশ্ন করতে অনেকে অনেক উত্তর দিলেন৷ কেউ গুছিয়ে বললেন অনেক কিছু কেউ বা অল্প কথাতেই সারলেন তার দাবির কথা৷ কিন্তু সকলের দাবির তালিকায় উঠল নিরাপত্তার কথা৷ মেয়েরা তো বটেই ছেলেরাও চান সুরুক্ষা ব্যবস্থা বাড়ুক৷ বুঝলাম, কোথাও যেন ভয় কাজ করছে ওদের মনে৷ ওরা চাইছে না কোন নামেই ট্যাগ করা হোক ওদের৷ ইন্টারনেটের যুগে দাঁড়িয়ে ওরা জানে তাদের শহরে চাকরি নেই৷ ভাল কিছু করতে হলে রাজ্য বা দেশের বাইরে পাড়ি দিতে হবে৷ কিন্তু সেখানে পুরুলিয়াবাসী বলে ওদের মাওবাদী বা গৈরিক তকমা জুটবে না তো? এই ভয় নিয়ে বেড়ে ওঠা পুরুলিয়ার যুব সমাজ চায় ভোট হোক, ভোটের মতো করে৷ কোন দলের বিশেষ প্রভাব যেন না থাকে৷

পুরুলিয়া স্টেশনের দেখা মিলল প্রথমবার ভোটারদের সঙ্গে৷ ভোট নিয়ে তাদের সঙ্গেই হল আড্ডা৷ পুরুলিয়া স্টেশনের দেখা মিলল প্রথমবার ভোটারদের সঙ্গে৷ ভোট নিয়ে তাদের সঙ্গেই হল আড্ডা৷

একুশ শতকের সাক্ষী হয়েই পৃথিবীতে এসেছেন যারা, তারা এবার প্রথমবার ভোটের আঙিনায়৷ আঙুলে ভোটের কালি লাগার অপেক্ষায় রয়েছে পুরুলিয়ার নতুন ভোটাররা৷ এরা সকলেই বিশ্ব নাগরিক৷ কিন্তু কীভাবে তাদের সামনে খুলবে বিশ্বের জানালা, তারই অপেক্ষায় তারা৷ উন্নতমানের চাকরি চাই, বললেন এক যুবক৷ যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও ভাল ও গতিময় না হলে তো সেটা সম্ভব নয়৷ সেই দিকে নজর দিক সরকার৷ ভোট দিতে গিয়ে এই ইস্যুগুলি মাথায় থাকবে৷ বন্ধুর বক্তব্যের সঙ্গে সহমত অন্যরাও৷

এবার পুরুলিয়া লোকসভা কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ১৬,৪১,৩৪২ জন ৷ যার মধ্যে একেবারে নতুন ভোটার ৫৪৬৮৮ জন ৷ এই নতুন ভোটাররাই দেশের ভবিষ্যৎ ৷ দিন বদলানোর স্বপ্ন নিয়েই তাঁরা দাঁড়াবেন ভোটের লাইনে ৷ পঞ্চায়েত নির্বাচনের নিরিখে পুরুলিয়ায় কিছুটা দাপট রয়েছে বিজেপির৷ তৃণমূলের এখানে সম্মানের লড়াই ৷ গতবারের তৃণমূলের জয়ী প্রার্থী মৃগাঙ্ক মাহাতকেই আবার প্রার্থী করেছে তৃণমূল৷ বিজেপির এখানে প্রার্থী জ্যোর্তিময় সিং মাহাতো ৷ মোদির সভায় এখানে শয়ে শয়ে বিজেপি প্রার্থী জয় শ্রী রাম ধ্বনি তুলে মিছিলে পা মেলান ৷ পুরুলিয়ার আদিবাসীদের সঙ্গে গভীর যোগ রয়েছে আরএসএসের ৷ বিস্তৃত হয়েছে তাদের শাখা-সংগঠন৷ তাই তো এই নির্বাচনে জোর লড়াই বললে কিছুটা কম বলা হবে ৷ বলা ভাল নিজেদের কেন্দ্র দখলে রাখার সব চেষ্টা করবে বিজেপি৷ ইতিমধ্যেই পুরুলিয়া কেন্দ্রটি যে তাদের টার্গেট, বিজেপি নেতাদের সঙ্গে কথা বললেই তা স্পষ্ট হয়৷ অন্যদিকে এভাবে তাদের জেতা আসনে বিজেপিকে দাঁত ফোটাতে সব রকম বাধা তৈরি করবে রাজ্যের শাসক দল৷

তাই ভোট ঘিরে ধুন্ধুমারের একটা আশঙ্কা করছেন পুরুলিয়াবাসী৷ তবে এতেই ঘোর আপত্তি নতুন ভোটারদের৷ অনেক স্বপ্ন ঘিরে এই ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চলেছেন তারা৷ ভোট মানেই যে দলীয় কন্দোলের পথে হাঁটছে রাজ্য, সেটাই না পসন্দ তাদের৷ মিলেনিয়াল ভোটাররা চাইছেন ভোট হোক অবাধ ও সুষ্ঠু৷ এটা তো যে কোন সাধারণ নাগরিকদেরই দাবি৷ তবে অষ্টাদশী মেয়েরা চান নিরাপত্তা৷ যেই জিতুক, যারই সরকার হোক, তারাই যেন নজর দেয় নারী সুরক্ষায়৷ এমনই দাবি উঠে এল পুরুলিয়ার ব্যস্ত স্টেশনে কয়েকজন যুবক-যুবতীর মুখোমুখি হয়ে৷ সঙ্গে অবশ্যই সার্বিক উন্নয়নের দাবি৷ চোখে অনেক স্বপ্ন৷ মনে অনেক তাগিদ৷ আগ্রাসী মনোভাব নিয়েই এগিয়ে চলেছে নতুন প্রজন্মের ভোটাররা৷ নিজেদের ভালমন্দ বুঝে নিতে তারা তৈরি আর তারই প্রভাব পড়বে ভোটবাক্সে৷

আরও দেখুন

First published: 02:54:52 PM May 11, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर