রাস্তায় লুটোপাটি খায় জাতীয় পতাকা, কুড়িয়ে মানুষকে শিক্ষা দেন বালির 'ফ্ল্যাগ ম্যান'

১৬ অগাস্ট, ২৭ জানুয়ারির মতো দিনগুলিতে রাস্তায় পড়ে থাকে জাতীয় পতাকা। ছোটবেলায় মাকে দেখতেন সেই পতাকা কুড়িয়ে ব্যাগে রাখতে। মায়ের দেখানো পথে হাঁটেন বিশেষভাবে সক্ষম এই যুবক।

১৬ অগাস্ট, ২৭ জানুয়ারির মতো দিনগুলিতে রাস্তায় পড়ে থাকে জাতীয় পতাকা। ছোটবেলায় মাকে দেখতেন সেই পতাকা কুড়িয়ে ব্যাগে রাখতে। মায়ের দেখানো পথে হাঁটেন বিশেষভাবে সক্ষম এই যুবক।

  • Share this:

#বালি:

ছোটবেলায় প্রথম নিজের মাকে দেখেছিলেন রাস্তায় পড়ে থাকা জাতীয় পতাকা তুলে নিও ব্যাগে রাখতে! সেই থেকেই শুরু। এখন তাঁর কাছে এই রাস্তায় পড়ে থাকা প্রায় এক লক্ষ কাগজ ও প্লাস্টিকের পতাকা রয়েছে। না শখে তিনি এমনটা করেন না। করেন অন্যের ভুল শুধরে দিতে। হাওড়ার বালির নিশ্চিন্দা দেশবন্ধু লেনের বিশেষভাবে সক্ষম যুবক আজ হয়ে উঠেছেন "Flag Man"। প্রিয়রঞ্জন সরকার (মনু ) ছোট থেকেই শারীরিক দিক থেকে বিশেষভাবে সক্ষম। তিনি ঠিক করে কথা বলতে পারেন না | সমাজের সেই অবহেলিত যুবক আজ অবহেলিত ভারত মায়ের সন্মান রক্ষায় বদ্ধপরিকর।

২৩ জানুয়ারী, ২৬ জানুয়ারি হোক বা ১৫ অগাস্ট, দেশ জুড়ে মহা সামারোহে উদ্যাপন হয় এই দিনগুলি। জাতীয় পতাকায় সেজে ওঠা গলি থেকে রাজপথ। কিন্তু বিশেষ দিনগুলির পরের দিন কি মানুষ মনে রাখে গলি রাজপথে লাগানো তেরঙ্গা কাগজের টুকরোগুলির কথা! মনে রাখে দেশের সম্মানের কথা? কেউ রাখুক বা না রাখুক, মনে রাখে মনু। বিশেষ দিনগুলির পরেরদিন সকাল সকাল ব্যাগ হাতে বেরিয়ে পড়েন তিনি। যেখানেই পরে থাকতে দেখেন জাতীয় পতাকা, সেখানেই নিজের পায়ে থাকা জুতো খুলে সেই পতাকা তুলে নিয়ে প্রণাম করে ব্যাগে ভরে নিয়ে আসেন বাড়িতে।

রাস্তায় এই যুবকের কাজ কর্ম দেখে প্রথম প্রথম সবাই পাগলের উপাধি দিলেও আজ তাঁর এই কর্মকান্ডের সঙ্গী হয়েছেন ৫২ জন। সমাজের বেশ কিছু বিশিষ্ট মানুষ তাঁর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তাঁর এই কাজের সম্মানে জুটেছে রাজ্য সরকরের সেচ বিভাগের অস্থায়ী চাকুরিও। আজ নিয়ম করে মনু রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় ভারত মায়ের সন্মান রক্ষা করতে। ৭৫ বছরের স্বাধীনতা দিবসে তাঁর সংকল্প ও মানুষের কাছে আবেদন, এবার বন্ধ হোক জাতীয় পতাকার অসম্মান।

Published by:Suman Majumder
First published: