প্রেমিকা বিবাহিত! রাগে হাত-পা বেঁধে গলা টিপে খুন প্রেমিকের, পরে করলেন আত্মহত্যা

প্রেমিকা বিবাহিত! রাগে হাত-পা বেঁধে গলা টিপে খুন প্রেমিকের, পরে করলেন আত্মহত্যা
News18 Bangla Creative

প্রেমিকার হাত বাঁধা দেহ উদ্ধার পুকুরে। পাশের গ্রামে বাড়িতে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার প্রেমিকের। দু দুটি মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে।

  • Share this:
# ভাতার : প্রেমিকার হাত বাঁধা দেহ উদ্ধার পুকুরে। পাশের গ্রামে বাড়িতে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার প্রেমিকের। দুটি মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে। তবে কি প্রেমিকাকে খুন করে আত্মঘাতী  প্রেমিক ? ভ্য়ালেনন্টাইনস ডে-র আগে এই প্রশ্নই ঘুরছে এলাকায়। বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্কের জেরেই খুন, নাকি এই দুটি মৃত্যুর পিছনে অন্য কোনও রহস্য।  খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ। তবে পরকীয়ার জেরে প্রেমিকাকে খুন করে আত্মঘাতী প্রেমিক। এমনই  দাবি মহিলার আত্মীয় পরিজন থেকে এলাকার বাসিন্দাদের। পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের ছাতনি গ্রামের বাসিন্দা পম্পা রায়। বয়স ৩৭ বছর। দীর্ঘ দুই বছর ধরে তাঁর সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত  সম্পর্ক  ছিল খেরুর গ্রামের বাসিন্দা জয়ন্ত সিংহের। ছ মাস আগে, প্রেমিক জয়ন্ত প্রেমিকা পম্পা রায়কে নিয়ে পালিয়ে যান।  দু মাস পর  পম্পা  তাঁর স্বামী তপন রায়ের কাছেই ফিরে আসেন।  এরপরও পরিবারের লোকজন কোনও আপত্তি না করে বিষয়টি মেনে নিয়েছিল। পম্পার দুটি সন্তান রয়েছে। তাদের মুখ চেয়েই পম্পার ভুল মেনে নিয়েছিল পরিবার। সোমবার রাতে টিভি দেখে ১১টি নাগাদ ঘুমতে যান পম্পা। এরপর মঙ্গলবার সকালে বাড়ির কাছে পুকুরে একটি মৃতদেহ ভাসতে দেখা গেলে শোরগোল পড়ে যায়। তুলে আনার পর দেখা যায় সেই দেহ পম্পার।  দু হাত বাঁধা ছিল। তবে কী রাতে বাড়ি থেকে গোপনে বেরিয়ে ছিলেন পম্পা ? তখনই তাঁকে খুন করে দেহ পুকুরে ফেলে দেওয়া হয় ?  খতিয়ে দেখছে পুলিশ।
অপর দিকে এদিন সকালেই খেরুর গ্রামে বাড়িতে জয়ন্ত সিংহের  ঝুলন্ত মৃতদেহ পাওয়া যায়। তাঁর মা ঘরে ছেলেকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে খেরুর গ্রামে। তবে কী পম্পাকে খুন করে বাড়ি ফিরে আত্মঘাতী হন জয়ন্ত ? পম্পা রায়ের স্বামী তপন রায়ের অভিযোগ, তাঁর স্ত্রীকে খুন করে জলে ফেলে দেওয়া হয়েছে। তার দুহাত দড়ি দিয়ে বাঁধা ছিল। ঘটনার খবর পেয়ে ভাতার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশ দুটো মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। কী কারণে দুজনের মৃত্যু হল সে ব্যাপারে নিশ্চিত হতে জোরদার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। মৃতদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজে পাঠানো হচ্ছে। Saradindu Ghosh
First published: February 11, 2020, 4:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर