• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত আসানসোল!

শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত আসানসোল!

আগের লোকসভা নির্বাচনে হেরে যাওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে এবার আসানসোলে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে দল টিকিট দিয়েছে মুনমুন সেনকে ৷

আগের লোকসভা নির্বাচনে হেরে যাওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে এবার আসানসোলে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে দল টিকিট দিয়েছে মুনমুন সেনকে ৷

আগের লোকসভা নির্বাচনে হেরে যাওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে এবার আসানসোলে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে দল টিকিট দিয়েছে মুনমুন সেনকে ৷

  • Share this:

    #আসানসোল: আসানসোল। এই মুহূর্তে এই শহরে একটাই আলোচনা। তা হল লোকসভা নির্বাচন। চায়ের ঠেক থেকে শুরু করে বড় বড় ব্যবসায়ীরা সকলেই এখন ব্যস্ত এই আলোচনায়। শহরের চারিদিকে পড়েছে পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন। জোর কদমে চলছে দেওয়াল লিখনও। আসানসোল থেকে এবার তৃণমূলের হয়ে লড়ছেন মুনমুন সেন। আর বিজেপির প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়। দুজনেই চলচ্চিত্র জগতের মানুষ। মুনমুন সেনকে চেনেন না এমন বাঙালি নেই। আবার ওদিকে বাবুল সুপ্রিয়কে চেনেন না এমন কেউ নেই। দুজনেই তাঁদের কাজের জগতে বেশ খ্যাত। তবে রাজনীতির মঞ্চেও তাঁরা কেউ নতুন নয়। তবে এবার জোর লড়াইয়ে নেমেছেন এই দুই তারকা প্রার্থী ৷

    রাজনীতির চেনা মাঠেই ফের লড়াইয়ে নামছেন বাবুল ৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, পুরনো কেন্দ্রের অ্যাডভান্টেজের বদলে ইতিমধ্যেই কিঞ্চিৎ ব্যাকফুটে পদ্মশিবিরের প্রার্থী ৷ নির্বাচন কমিশন সতর্ক করা সত্ত্বেও বার বার নিজের নির্বাচনী গান ব্যবহার করে বিতর্কে বাবুল ৷ সম্প্রতি পুলিশ স্টেশনে ঢুকে দায়িত্বে থাকা পুলিশ অফিসারকে হুমকির ঘটনাতেও নেগেটিভ প্রভাব পড়েছে বাবুল সুপ্রিয়র ভাবমূর্তিতে ৷ অন্যদিকে, এর বিপরীতে মুনমুন সেন ৷ প্রথমবার মুনমুন সেনকে নিজেদের কেন্দ্রে পেয়ে উৎসাহী আসানসোলবাসী ৷

    আসানসোল বাবুলের চেনা মাঠ ৷ ২০১৪ সালে এই কেন্দ্র থেকে জিতেই সংসদে গিয়েছিলেন বাবুল সুপ্রিয় ৷ নিজের পুরনো কেন্দ্র থেকেই ফের বিজেপির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বাবুল ৷ বিপরীতে জোড়াফুলের তারকা প্রার্থী মুনমুন সেন ৷ ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে বাঁকুড়া থেকে তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়ে ছিলেন মুনমুন সেন । সেখানকার সিপিএমের দীর্ঘ দিনের সাংসদ বাসুদেব আচার্যকে পরাজিত করে জয়ী হন তিনি। আগের লোকসভা নির্বাচনে হেরে যাওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে এবার আসানসোলে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে দল টিকিট দিয়েছে মুনমুন সেনকে ৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, বাবুল সুপ্রিয়কে নির্বাচনে হারাতেই এই পন্থা নিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রচারে অবশ্য এই প্রশ্নের উত্তর নিজেই দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী ৷ বলেন, ‘যে পাঁচ বছরে কোনও কাজ করেনি ৷ সবসময় শুধু গালাগালি করে ৷ না বোঝে বাংলা সংস্কৃতি না বোঝে বিহারী সংস্কৃতি ৷ তাঁকে হারাতেই এখানে মুনমুনকে দাঁড় করিয়েছি ৷’

    বাবুল সুপ্রিয় ও মুনমুন সেনের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের রেশ চোখে পড়ছে আসানসোলের মানুষের মধ্যেও। সারা শহর পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন, ফ্ল্যাগে সেজে উঠলেও মজার বিষয় হল, আসানসোলের প্রধান বড় বাজার এলাকায় শুধু চোখে পড়ছে তৃণমূলেরই পোস্টার। আসানসোলে ঢুকতেই চোখে পড়বে মুনমুন সেনের একটা বড় হোর্ডিং এবং বাজারের প্রায় গোটাটাই ছেয়ে রয়েছে ঘাসফুলের পোস্টার ও পতাকায়। তার মাঝখান থেকে কোথাও কোথাও একটা দুটো চোখে পড়ছে বামেদের পতাকা। যে এলাকায় তৃণমূলের পোস্টারে ছেয়ে রয়েছে সেখানে কিন্তু কোথাও নেই বিজেপির একটা পতাকাও। তবে যে এলাকায় রয়েছে বিজেপির পোস্টার সে সব জায়গাতে কিন্তু তৃণমূলের একটা হলেও পোস্টার চোখে পড়ছে। যেন মনে হচ্ছে নির্বাচনের আগেই পোস্টার ফেস্টুন ব্যানারে বাবুল সুপ্রিয় থেকে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন মুনমুন সেন।

    এখানকার স্থানীয় মানুষের আবার এই বিষয়ে কিছু যুক্তিও রয়েছে। তাঁরা বলছেন, "এই এলাকায় এবার প্রচার সবচেয়ে বেশি করেছে তৃণমূল। মুনমুন সেনের জনসভাও চলছে জোর কদমে। তবে পাল্টা প্রচারে বাবুল সুপ্রিয়কেও দেখা যাচ্ছে। তিনিও এসেছেন মানুষের কাছে। জানতে চেয়েছেন তাঁদের কথা।" এক চা বিক্রেতার দোকানে বেশ কিছু মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। সেখানে যেতেই সামসুর রহমান বললেন,"দেখুন এবার অন্য বারের তুলনায় আমাদের এখানে প্রচার কম। তবে যেহেতু এবার আমাদের প্রার্থী মুনমুন সেন তাই এবার তৃণমূলের প্রতি এখানকার মানুষের আলাদা আবেগ রয়েছে। কারণ মুনমুন সেন যেভাবে আমাদের সবার কাছে আসছেন তাতে তিনি সবার মন জয় করে নিচ্ছেন।" তখনই আর এক ভদ্রলোক বললেন, 'যেই জিতুক না কেন এবার লোকসভা ভোটে সে যেন মানুষের জন্য কাজটা করে। আসানসোলে এই মুহূর্তে শান্তির পরিবেশ আছে ঠিকই। তবে সেই পরিবেশটা যেন সবসময় থাকে আমরা সেটাই চাইব।'

    ইতিমধ্যেই আসানসোলে মোতায়েন করা হয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। ২৯ এপ্রিল এখানে লোকসভা নির্বাচন। তার আগে সারা শহরেই রয়েছে একটা চাপা উত্তেজনা। সবাই সব কাজ করছেন ঠিকই, তবে মুখ্য বিষয় কিন্তু ভোট। অটোতে করেও মাইক হেঁকে চলছে প্রচার। তবে সেখানেও একটাই লাইন, 'বিপুল ভোটে জয়ী করুন তৃণমূল প্রার্থী মুনমুন সেনকে।' তবে আসানসোলের সাধারণ মানুষের বক্তব্য, "বাবুল সুপ্রিয় বা বিজেপির তরফে ভোটের আগে কিন্তু প্রচারে খুব একটা উত্তেজনা নেই এবার! গত বারের তুলনায় তাঁদের প্রচার এবার হালকা!" তবে কি তাঁরা নিশ্চিত এবারও তারাই জিতবেন? কারণ দিল্লি তাঁদের মজবুত, তাই আলাদা করে শহর নিয়ে বোধহয় তেমন চিন্তিত নন তাঁরা। কিংবা হয়তো আছে অন্য স্ট্রাটেজি! তবে বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ জয় করার লড়াইয়ে কোনও মাঠই খালি রাখতে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস। বাকিটা তো বলবে ভবিষ্যৎ।

    First published: