Howrah News|| হাওড়া প্ল্যাটফর্ম থেকে চলন্ত ট্রেনে ছুঁড়ে দিয়েছিলেন ব্যাগ, নিজে পা রাখতেই যাত্রীর সঙ্গে যা ঘটল...

Howrah Station Incident: মহিলা RPF কর্মীর চেষ্টায় প্রাণে বাঁচলেন এক রেল যাত্রী। নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই ব্যক্তির জীবন বাঁচালেন হাওড়া স্টেশনের মহিলা RPF-র সাব ইনস্পেক্টর নিতু কুমারী।

Howrah Station Incident: মহিলা RPF কর্মীর চেষ্টায় প্রাণে বাঁচলেন এক রেল যাত্রী। নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই ব্যক্তির জীবন বাঁচালেন হাওড়া স্টেশনের মহিলা RPF-র সাব ইনস্পেক্টর নিতু কুমারী।

  • Share this:

#হাওড়া: মহিলা RPF কর্মীর চেষ্টায় প্রাণে বাঁচলেন এক রেল যাত্রী। নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়েই ব্যক্তির জীবন বাঁচালেন হাওড়া স্টেশনের মহিলা RPF-র সাব ইনস্পেক্টর নিতু কুমারী।

ঘটনাস্থল হাওড়া স্টেশনের দশ নম্বর প্ল্যাটফর্ম। ঘড়িতে তখন বেলা ১টা বেজে ১০ মিনিট। ১২ নম্বর প্লাটফর্ম থেকে ছেড়ে যাচ্ছে শক্তিপুঞ্জ এক্সপ্রেস।ট্রেনের ঠিক শেষের বগি থেকে হঠাৎ করেই দেখা যায় এক ব্যক্তি দৌড়ে আসছেন। প্রথমে সেই ব্যক্তি নিজের ব্যাগটি ট্রেনের কামরায় ছুড়ে দেন, তারপর নিজে উঠতে গিয়েছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত পা ফস্কে প্ল্যাটফর্ম  আর ট্রেনের মধ্যে পড়ে যান। ভারসাম্য না থাকায় ক্রমশই ট্রেনের নিচে চলে যাচ্ছিলেন ওই যাত্রী। ঠিক সেই সময়েই ঘটনাটি নজরে আসে প্ল্যাটফর্মে কর্তব্যরত RPF কর্মী নিতু কুমারীর।

আরও পড়ুন: দিঘার উত্তাল সমুদ্রে তলিয়ে যাচ্ছিলেন মদ্যপ পর্যটক, প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে বাঁচালেন নুলিয়ারা

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, রেল পুলিশের ওই কর্মীর নজরে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই তিনি কোনও দিকে না তাকিয়ে ছুটে যান ওই যাত্রীর কাছে। নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে ব্যক্তিকে টেনে বার করে আনেন। ততক্ষণে আসে পাশে থাকা আরও দুই RPF কর্মী বিষয়টি দেখতে পান, তাঁরাও প্রাণপণ দৌড়ে গিয়ে সাহায্যের হাত বাড়ান। সব মিলিয়ে রক্ষা পায় প্রাণ। রেল পুলিশ সূত্রে জ্জানা গিয়েছে, সামান্য আহত হলেও ওই ব্যক্তির কোনও বড় ক্ষতি হয়নি। আঘাতও তেমন গুরুতর নয়। RPF কর্মীদের কোথায়, মানুষের সচেতন করতে রেলের তরফে দিন রাত প্রচার করা হলেও, মানুষ প্রতিদিন এই ধরণের দায়িত্ব জ্ঞানহীন কাজ করেই চলেছেন।

এ দিকে, মহিলা RPF কর্মী নিতু দেবী, রবিকান্ত কুমার এবং আর ইসলামকে এই সাহসিকতার জন্য RPF-র তরফ থেকে পুরস্কৃত করা হবে বলে জানানো হয়েছে। সাব ইন্সপেক্টর নিতু কুমারীর দাবি, আমরা মানুষকে সাহায্যের জন্য দিন রাত সজাগ রয়েছি। তাই মানুষ যদি একটু সতর্ক হন, তাহলে এই সব দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব। রেল পুলিশের দাবি, প্রতিদিনই এই ধরণের ঘটনা নজরে আসে। আগে থেকে নজরে পড়লে আমাদের রক্ষীরা চলন্ত ট্রেনে ওঠার আগেই যাত্রীকে আটকে দেন। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের নজর এড়িয়ে ঘটনা ঘটছে। আমাদের নজরে এলে সেই ব্যক্তিকে ফাইন করাও হয়। তবে কোনও শাস্তি দিয়েই এই বিষয় এড়ানো সম্ভব নয়, তার জন্য মানুষকেই আরও সচেতন হতে হবে। আজকের দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তির জীবনহানি ঘটতেই পারত। শুধু তাই নয়, তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে নিতু কুমারীও প্রাণ হারাতে পারতেন, তাই সাবধান হওয়া প্রয়োজন।

Debashish Chakraborty 

Published by:Shubhagata Dey
First published: