corona virus btn
corona virus btn
Loading

রশি দিয়ে টানা হল ফুলে সাজানো চারচাকা গাড়ি, তাতেই মন্দিরপ্রাঙ্গন ঘুরলেন জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রা

রশি দিয়ে টানা হল ফুলে সাজানো চারচাকা গাড়ি, তাতেই মন্দিরপ্রাঙ্গন ঘুরলেন জগন্নাথ-বলরাম-সুভদ্রা

রথে নয়, জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা চাপলেন স্যান্ট্রো গাড়িতে,  বীরভূমের হেতমপুরে গৌরাঙ্গ মঠে

  • Share this:

#বীরভূম: রথে নয়, জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা চাপলেন স্যান্ট্রো গাড়িতে,  বীরভূমের হেতমপুরে গৌরাঙ্গ মঠে,  মঠ চত্বরেই ঘুরলেন তারা৷ বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস যেভাবে দিন দিন বেড়ে চলেছে, সঙ্গে বেড়ে চলেছে মৃত্যুর সংখ্যাও, আর এই করোনাভাইরাস মানুষের জীবনে অনেক কিছু দেখিয়ে দিল এবং শিখিয়ে দিল৷

হেতমপুর রাজবাড়ীর পাশেই রয়েছে গৌরাঙ্গ মন্দির, আর এই মন্দিরের প্রতিষ্ঠা করেন মহারাজা রাম রঞ্জন চক্রবর্তীর স্ত্রী মহারানী পদ্ম সুন্দরী দেবী৷   এই মন্দিরের দেবতাদের গ্রাম ঘোরানোর জন্যই সুদূর ইংল্যান্ডের স্টুয়ার্ট কোম্পানি থেকে নিয়ে আসা হয়েছিল পিতলের রথ৷  ওই রথ আজও বর্তমান রয়েছে৷ যদিও এই রথের দায়িত্ব এখন রাজবাড়ির ব্রজবালা ট্রাস্টের৷

রাজবাড়ীর আর্থিক অবস্থা খারাপ এর জন্য 2007 সালে কুমার মাধবী রঞ্জন চক্রবর্তী ও সুরঞ্জন চক্রবর্তী গৌরাঙ্গ মন্দিরটি গৌরাঙ্গ তুলে দেন৷ কারণ সেই সময় তাদের পূজো চালানোর মত ক্ষমতা ছিল না, পুজো যাতে বন্ধ না হয়ে যায় সেই  জন্য গৌরাঙ্গ মঠের হাতে তুলে দেন৷  তারপর থেকেই গৌরাঙ্গ মঠ তাদের দায়িত্ব পালন করে আসছে৷

গৌরাঙ্গ মঠের পক্ষ থেকে দুবরাজপুর থানায় লিখিত ভাবে জানিয়ে দেয় যে রথযাত্রায় কোন অনুষ্ঠান করবেন না এবং যে মেলা বসে সেটিও বসাবে না৷ তবে রথ উপলক্ষে স্নানযাত্রা, নেত্রোৎসব, রথের দিন যে পূজা_অর্চনা হয় সেটি হবে রীতি মেনে শুধুমাত্র মঠের সন্ন্যাসীর করবেন৷

আজ রথযাত্রা, রীতি মেনে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা রথে চেপে গ্রাম পরিক্রমা করত- কথায় আছে জগন্নাথদেব রথে চেপে ভক্তদের কাছে দর্শন দিতে যান৷  কিন্তু এইবার করোনা আবহে দেখা গেল এক অন্য চিত্র৷  রথ নয়, এবার সত্যিকারে গাড়িতে চড়লেন জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা৷ আর এই গাড়ি করে মন্দির চত্বরে ঘোরানো হলো জগন্নাথ দেবকে৷ রথ যেহেতু রাজবাড়ীর ব্রজবালা ট্রাস্টের৷ তাই রথ দেওয়ার অনুমতিও তাদের৷  এইবারই প্রথম রাজবাড়ী থেকে রথ গৌরাঙ্গ মন্দিরে এল না ৷ অন্যদিকে রীতি মেনেও জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা কে রথে চড়াতে হবে কিন্তু রথ না পাওয়া যাওয়ায় এবার সত্যিকারে গাড়িতে চাপানো হয় বিগ্রহ গুলিকে এবং এভাবে রথযাত্রা পালন করা হয়৷ দুবরাজপুরের হেতমপুর গৌরাঙ্গ মঠের সম্পাদক ভক্তি বারীদি ত্রিদন্ডী মহারাজ জানান রাজবাড়ী থেকে রথ যেহেতু এবার মাঠে আসেনি তাই মঠেরই স্যান্ট্রো গাড়ি করে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা কে ঘোরানো হলো মঠ চত্বরে৷  রথে যেমন দড়ি বা রশি থাকে ভক্তদের টানার জন্য, গাড়িতেও বাধা হয়েছিল রশি বা দড়ি৷ গাড়িটি ফুল দিয়ে সাজানো হয়েছিল এবং বিগ্রহ গুলিকে বসানোর জন্য সিংহাসন করা হয়েছিল৷  গৌরাঙ্গ মঠের সম্পাদক ভক্তি বারিদি ত্রিদন্ডী মহারাজ আজ রশি টেনে রথের শুভ সূচনা করেন৷ ভক্তদের জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করা হয়েছে, তারা যেন বাড়িতে বসেই রথযাত্রা দেখতে পান৷  সরকারি নিয়ম মেনেই অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হল॥ গাড়ি করে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা কে মঠ চত্বরে ঘুরিয়ে আনার পর বন্ধ করে দেওয়া হয় গৌরাঙ্গ মঠের গেট৷  এরপর মঠের সন্ন্যাসীরা রীতি মেনে ভেতরে পূজা অর্চনা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান করছে৷

Supratim Das

Published by: Debalina Datta
First published: June 23, 2020, 2:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर