corona virus btn
corona virus btn
Loading

কর্তৃপক্ষের টালবাহানা উড়িয়ে জেএনইউ-র পাশে এ বার IIT-খড়গপুর, শুরু হল বিক্ষোভ

কর্তৃপক্ষের টালবাহানা উড়িয়ে জেএনইউ-র পাশে এ বার IIT-খড়গপুর, শুরু হল বিক্ষোভ
আইআইটি খড়গপুর

ইতিমধ্যেই জেএনইউ-তে হামলার বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছে আইআইটি কানপুর, মুম্বই ও বেঙ্গালুরুর পড়ুয়ারা৷ এবার সেই পথে দেশের সবচেয়ে বড় ও প্রাচীন আইআইটি খড়গপুরের পড়ুয়ারাও।

  • Share this:

#খড়গপুর: আইআইটি কর্তৃপক্ষ রাজি হয়নি, এমন কোনও প্রতিবাদ বিক্ষোভে ছাত্রছাত্রীর সামিল হোক। তাই নানা ভাবে আটকানোর চেষ্টা করেছে। অবশেষে সেই বাধা অতিক্রম করেই বিক্ষোভে নামল আইআইটি খড়গপুরের ছাত্রছাত্রী ও গবেষক পড়ুয়ারা। কয়েকদিন আগেই 'মোদী কোট'কে দেশে দাঙ্গার প্রতীক বলেছিলেন আইআইটি খড়গপুরের পড়ুয়ারা৷ বুধবার সেই পড়ুয়াদেরই ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখা গেল জেএনইউ-তে মুখোশ পরা গুন্ডাদের হিংস্র আক্রমণের বিরুদ্ধে ধিক্কারে ফেটে পড়তে।

ইতিমধ্যেই জেএনইউ-তে হামলার বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছে আইআইটি কানপুর, মুম্বই ও বেঙ্গালুরুর পড়ুয়ারা৷ এবার সেই পথে দেশের সবচেয়ে বড় ও প্রাচীন আইআইটি খড়গপুরের পড়ুয়ারাও। বুধবার বিকেলে নিজেদের ক্লাসের নির্ধারিত সময়ের পরেই আইআইটি খড়গপুর ক্যাম্পাসের বাইরে প্রধান ফটকের কাছে জমা হন বিক্ষোভকারী পড়ুয়ারা। প্রথম দিকে সংখ্যায় কিছুটা কম থাকলেও ক্রমশ ভিড় জমতে থাকে বিক্ষোভকারীদের। কিছুক্ষণের মধ্যেই চলে আসেন শ'খানেক ছাত্রছাত্রী। হাতে প্ল্যাকার্ড আর মুখে শ্লোগান নিয়ে ধিক্কারে ফেটে পড়েন ছাত্রছাত্রীরা। জেএনইউ-র প্রাক্তন ছাত্র তথা ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভাপতি কানহাইয়া কুমারের ঢংয়েই চলতে থাকে ভূখমারি থেকে তানাশাহী আর ক্যাম্পাসে গুন্ডাগিরি থেকে বুর্জোয়া শাসনের নাগপাশ থেকে 'আজাদি' চাওয়ার শ্লোগান।

আইআইটি-র এক গবেষক পড়ুয়া অমিতাভ ঘোষ জানালেন, 'আলিগড় মুসলিম ইউনিভর্সিটি, জামিয়া মিলিয়া, জেএনইউ-র মতো প্রতিষ্ঠানগুলিতে বর্বর আক্রমণ নেমে আসছে। উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানগুলির ওপর পরিকল্পিত হামলা হচ্ছে। আগামিকাল হয়ত আমরাও সেই আক্রমণের শিকার হব। আমরা শিক্ষা ক্ষেত্রে এই গুন্ডাগিরি থেকেই আজাদি চাইছি। আমরা সামজিক ভেদাভেদ থেকে আজাদি চাইছি। আমরা জানি, আগামিকাল সরকারের কেউ কেউ আমাদের 'টুকরে টুকরে গ্যাং' বলবে। আমরা তাতে পরোওয়া করি না।'

আরেক গবেষক পড়ুয়া সায়ন দাশগুপ্তের কথায়, 'আমাদের একটু দেরি হয়ে গেল কারণ আমরা চেষ্টা করেছিলাম কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়েই এই প্রতিবাদ করতে৷ কিন্তু অনেক টালবাহানা করে তাঁরা এই প্রতিবাদটাই আটকে দিতে চেয়েছিলেন। বাধ্য হয়েই আমাদের ক্যাম্পাসের বাইরে এসে করতে হল। তাও তো দেখছেন কত নিরাপত্তারক্ষী রাখা হয়েছে। এরাও চেষ্টা করছেন প্রতিবাদ আটকানোর জন্য।'

First published: January 8, 2020, 11:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर