• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • মাথায় নয়, কোমরে গজিয়ে উঠেছে শিং !

মাথায় নয়, কোমরে গজিয়ে উঠেছে শিং !

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

শিং না থাকলেও, সিংহ হওয়া যায়। কিশোর কুমার কবে বলেছিলেন। তবে আমাদের রাঢ়বঙ্গের এক ভদ্রলোকের শিং হয়ে উঠেছিল মাথাব্যাথার আসল কারণ।

  • Share this:

    #পুরুলিয়া: শিং না থাকলেও, সিংহ হওয়া যায়। কিশোর কুমার কবে বলেছিলেন। তবে আমাদের রাঢ়বঙ্গের এক ভদ্রলোকের শিং হয়ে উঠেছিল মাথাব্যাথার আসল কারণ। তার শিং মাথায় নয়, কোমরের কাছে গজিয়ে উঠেছিল। যা চুপিসারে একটু একটু করে বাড়ছিল। শেষমেশ পুরুলিয়া জেলা হাসপাতালের শল্য চিকিৎসকদের হাতযশে সুস্থ হলেন হাবু গোপ। শরীর থেকে বের হল প্রায় আট সেন্টিমিটারের শিং।

    সামান্য পরিকাঠামোয় বিরলে রোগের সফল অস্ত্রোপচার করা যায় তা আরও একবার দেখিয়ে দিল পুরুলিয়া জেলা সদর হাসাপাতাল। হাবু গোপ নামে এক ব্যক্তির কোমরেরর উপরের অংশ থেকে একটি শিং বের করলেন চিকিৎসকরা। শনিবার সফল অপারেশন হল। পুরুলিয়া শহর থেকে প্রায় পনেরো কিলোমিটার দূরে চাকলতোড় গ্রামে বাড়ি পেশায় দিনমজুর হাবুর।

    বছর দুয়েক আগে ছোট একটা ফুসকুড়ির মতো কিছু দেখেছিলেন। যাকে ডাক্তারি পরিভাষায় বলা হয় সিস্ট। পরে তা বাড়তে বাড়তে শক্ত হয়ে ছাগলের শিংয়ের মতো আকার নেয়। আচমকা শরীরে এই পরিবর্তনে তিনি প্রচণ্ড সমস্যায় পড়েন। কাজকর্ম করতে অসুবিধা হয়। পোশাক পরতেও সমস্যা হচ্ছিল। ওষুধ খেয়ে কোনও কাজ না হওয়ায় পুরুলিয়া সদর হাসপাতালে যোগাযোগ করেন তিনি। ডাক্তারি পরিভাষায় এই শিংয়ের মতো বস্তুটিকে বলা হয় 'সিবেসিয়াস হর্ন'। তাঁদের মতে প্রায় আট সেন্টিমিটার ব্যাসের এতবড় হর্ন বিরল। লোমকূপে ঘর্ম গ্রন্থির সংক্রমণ থেকে সিবেসিয়াস সিস্ট তৈরি হয়। এটি সংক্রমিত হয়ে শরীরে দীর্ঘদিন থেকে গেলে তা শিং-এর আকার নেয়। যা এক ধরনের টিউমার। তবে অপারেশন খুব কঠিন ব্যাপার নয়।

    -চিকিৎসক পবন মণ্ডলের তত্ত্বাবধানে শনিবার সকালে শুরু হয় অপারেশন। অস্ত্রোপচারের পর শিং-এর মতো একটি বস্তু তাঁর শরীর থেকে আলাদা করেন ওই শল্য চিকিৎসক। বাইট - পবন মণ্ডল, চিকিৎসক ভিও- হাসপাতালে দেখা যায় চনমনে রয়েছেন হাবু। শরীরের সঙ্গে লেগে থাকা শিংয়ের মতো বস্তুটি আলাদা হওয়ায় যেন হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন। হাবুর শরীর থেকে বের হওয়া শিং-এর মতো বস্তুটির হিস্টোপ্যাথলজি করা হবে। তারপর এব্যাপারে আরও তথ্য আসবে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। তবে এই প্রথম নয়, এর আগে পুরুলিয়া জেলা সদর হাসপাতাল একাধিক সাফল্য পেয়েছে। কাটা আঙুল জোড়া লাগিয়েছে। কখনও, জটিল টিউমার অপারশেন সফলভাবে করেছে।
    First published: