দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বছরের প্রথম দিনে চড়ুইভাতিতে মেতে শহরের বাসিন্দারা, হই-হুল্লোড়ের মধ্যে দিয়ে বর্ষবরণ উদযাপন

বছরের প্রথম দিনে চড়ুইভাতিতে মেতে শহরের বাসিন্দারা, হই-হুল্লোড়ের মধ্যে দিয়ে বর্ষবরণ উদযাপন

ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিনে পিকনিকে মাতলেন শহরের বাসিন্দারা।

  • Share this:

#বর্ধমান: ইংরেজি নববর্ষের প্রথম দিনে পিকনিকে মাতলেন বর্ধমানের বাসিন্দারা। বর্ধমানের সদরঘাটে দামোদরের তীরে সকাল থেকেই ভিড় করেছেন চড়ুইভাতি করতে আসা বাসিন্দারা। বেলা যত বাড়ছে ততোই ভিড় বাড়ছে এখানে। খাওয়া দাওয়া গল্পগুজবে আনন্দে কাটাচ্ছেন অনেকেই। একদিকে চলছে রান্নাবান্না, অন্যদিকে দামোদরের বেলাভূমি ও স্বচ্ছ শীতল জলে পা ডুবানোর মজা নিচ্ছেন প্রকৃতি প্রেমিকরা। নাচে গানে হুল্লোড়ে উৎসবের পরিবেশ বর্ধমানের সদর ঘাট জুড়ে। ছোটরা মেতে উঠেছে ব্যাডমিন্টন,ক্রিকেট খেলায়। ঘুড়িও ওড়াচ্ছে কেউ কেউ। সব মিলিয়ে ঘরের বাইরে সারাদিন নতুন বছরের মজা নিচ্ছেন অনেকেই।

বর্ধমানের জনপ্রিয় পিকনিক স্পটগুলোর মধ্যে অন্যতম সদরঘাট। কৃষক সেতুর পাশে চওড়া দামোদরের সৌন্দর্যের টানে নতুন বছরের প্রথম দিনে ভিড় করেন অনেকেই। এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে মাসের পর মাস ঘরের বাইরে সেভাবে বেরোনো হয়নি অনেকেরই। করোনা সংক্রমণ অনেকটা কমতেই সাহস করে বাসিন্দারা এদিন চড়ুইভাতিতে বেরিয়েছেন। সবুজ আলুক্ষেত, হলুদ ফুল ফুটে থাকা সরষে ক্ষেতের পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া চড়ুইভাতির আনন্দে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে।

এ দিন বর্ধমানের লাকুড্ডি জল কল মাঠেও চড়ুইভাতি করতে আসা বাসিন্দাদের উপচে পড়া ভিড়। পাশাপাশি ইদিলপুর বাংলো বা পাল্লা রোড সেচ বাংলোয় চড়ুইভাতি করতে এসেছেন অনেকেই। ব্যাপক ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে আউশগ্রামের ভালকি মাচানে। এখানের শাল পিয়ালের জঙ্গলে বনভোজনের মজা উপভোগ করছেন জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বাসিন্দারা। সব মিলিয়ে সাউন্ড বক্স বাজিয়ে নাচ, শীতের মিষ্টি রোদ পিঠে নিয়ে পছন্দের খাবারে রসনা পরিতৃপ্ত করার মধ্য দিয়ে নিউ ইয়ার পালন করছেন অনেকেই।

কালনায় ভাগীরথীর তীরে এবং কাটোয়া মহাকুমার ভাগীরথী ও অজয়ের তীরে বিভিন্ন পিকনিক স্পটগুলিতে ব্যাপক ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে। তবে আলোচনায় বারেবারেই উঠে আসছে ফেলে আসা বছরের উদ্বেগের নানান ঘটনা। সকলেই চাইছেন নতুন বছর নতুন আশা নিয়ে উপস্থিত হোক। গত বছরের মহামারির ভয়াবহতা কাটিয়ে এবার নিউ নরমালের হাত ধরে সমৃদ্ধি আসুক ঘরে ঘরে।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: January 1, 2021, 10:31 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर