সরকারি কর্মীদের অফিসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক এই জেলায়

সরকারি কর্মীদের অফিসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক এই জেলায়

সব অফিসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে বলা হয়েছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় সব সরকারি অফিসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হল। কর্মীরা এসে আগে স্যানিটাইজারে হাত জীবাণুমুক্ত করবে, তারপর অন্য কাজ - কর্মীদের এমনই নির্দেশ দিয়েছেন পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক। অফিসগুলি যাতে প্রয়োজনীয় পরিমান হ্যান্ড স্যানিটাইজার পান তারও ব্যবস্থা করা হয়েছে। মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির বরাত দেওয়া হয়েছে। রাত জেগে দ্রুততার সঙ্গে তারা ইতিমধ্যেই কয়েকশো লিটার হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে ফেলেছেন। এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার পরীক্ষার পর সাধারণ বাসিন্দাদেরও বিক্রি করা হবে।

পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী বলেন, হ্যান্ড স্যানিটাইজারকে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর আওতায় নিয়ে আসা হলেও বাজারে তার অভাব রয়েছে। অনেকেই দোকানে খুঁজেও হ্যান্ড স্যানিটাইজার পাচ্ছেন না। অথচ এই অবস্থায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার খুবই প্রয়োজন। আমরা তাই মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে দিয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করাচ্ছি। মেমারি বড়শুলের কয়েকটি গোষ্ঠী রাত জেগে এই কাজ করছে। আমরা তাদের কাঁচা মাল সরবরাহ করেছি। তারা তা থেকে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করছে। সরকারি সব দফতরকে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে বলা হয়েছে। সব অফিসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে বলা হয়েছে। কর্মীদের আগে তাতে হাত জীবাণুমুক্ত করে তারপর অফিসের কাজে যুক্ত হতে বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির তৈরি এই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দাম বাজার চলতি বিভিন্ন নামি কোম্পানির হ্যান্ড স্যানিটাইজারের থেকে কম হবে। তবে একই রকম কার্যকর হবে বলেই আশা করা হচ্ছে। এগুলি এখন ল্যবরেটরিতে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার পর তা সাধারণ মানুষের জন্য বাজারে আনা হবে। বাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের অভাব মেটানো ও কালোবাজারি আটকাতেই এই উদ্যোগ। এর আগে মেমারির পাল্লা রোড পল্লীমঙ্গল সমিতিও হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করেছিল। তারা অ্যালোভেরা ও সার্জিক্যাল স্পিরিট দিয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে। তাদেরও কাঁচামাল সরবরাহ করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরিতে সহযোগিতা করছে জেলা প্রশাসন।

Saradindu Ghosh

First published: March 21, 2020, 8:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर