• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • করোনা, ডেঙ্গির পাশাপাশি হেপাটাইটিস চিকিৎসায় জোর বর্ধমান মেডিকেলে

করোনা, ডেঙ্গির পাশাপাশি হেপাটাইটিস চিকিৎসায় জোর বর্ধমান মেডিকেলে

শুধুমাত্র ভাইরাল হেপাটাইটিস আউটডোর পরিষেবা চালু করাই নয়, বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মডেল টেস্টিং সেন্টারও হচ্ছে।

শুধুমাত্র ভাইরাল হেপাটাইটিস আউটডোর পরিষেবা চালু করাই নয়, বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মডেল টেস্টিং সেন্টারও হচ্ছে।

শুধুমাত্র ভাইরাল হেপাটাইটিস আউটডোর পরিষেবা চালু করাই নয়, বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মডেল টেস্টিং সেন্টারও হচ্ছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: করোনার সংক্রমণ রয়েছেই। তার সঙ্গেই চিকিৎসকদের উদ্বেগ বাড়াচ্ছে ভাইরাল হেপাটাইটিস। এই সময়ে ডেঙ্গির পাশাপাশি ভাইরাল হেপাটাইটিস ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভাইরাল হেপাটাইটিস আউটডোর পরিষেবা শুরু হতে চলেছে। সপ্তাহে দু’দিন হাসপাতালের আউটডোরে ভাইরাল হেপাটাইটিস চিকিৎসা পরিষেবা মিলবে। শুধুমাত্র ভাইরাল হেপাটাইটিস আউটডোর পরিষেবা চালু করাই নয়, বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মডেল টেস্টিং সেন্টারও হচ্ছে। এর ফলে হেপাটাইটিসে আক্রান্ত রোগীদের খুব সহজেই শনাক্ত করা যাবে। চিকিৎসকরা বলছেন, রোগ সনাক্ত করা গেলে সেই অনুযায়ী দ্রুত চিকিৎসা শুরু করা সম্ভব হবে। এর ফলে বহু বাসিন্দা উপকৃত হবেন।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ষার শুরু থেকে শীত জাঁকিয়ে পড়ার আগে পর্যন্ত ভাইরাল হেপাটাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। অর্থাৎ জুন মাসের শুরু থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত অনেকেই ভাইরাল হেপাটাইটিসে আক্রান্ত হন। বছর দুয়েক আগেই কেন্দ্রীয় সরকার হেপাটাইটিস কন্ট্রোল প্রোগ্রাম শুরু করেছিল। গত বছর থেকে রাজ্য সরকার এই কর্মসূচি নিয়েছে। এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে এবছর বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হেপাটাইটিসের আউটডোর পরিষেবা চালু করা হচ্ছে।

বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, হাসপাতালের জরুরি বিভাগের উল্টোদিকের নবনির্মিত ভবনে ভাইরাল হেপাটাইটিসের মডেল টেস্টিং সেন্টার তৈরি করা হবে। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রক্তদান শিবিরে গ্রহণ করা রক্ত এই সেন্টারে পরীক্ষা করা হবে। সেই রক্তে হেপাটাইটিসের অস্তিত্ব থাকলে রক্তদাতাকে সনাক্ত করে তার চিকিৎসা করা হবে। বর্ধমান মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক শ্যামল কান্তি পালকে এই কর্মসূচির নোডাল অফিসার হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। মডেল টেস্টিং সেন্টারে যাঁরা কাজ করবেন আগামী সপ্তাহে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

Published by:Rukmini Mazumder
First published: