Home /News /south-bengal /

জামাইষষ্ঠীতে শ্বশুরবাড়িতে এসে আর বাড়ি ফেরা হলনা দম্পতির

জামাইষষ্ঠীতে শ্বশুরবাড়িতে এসে আর বাড়ি ফেরা হলনা দম্পতির

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

জামাইষষ্ঠীতে শ্বশুরবাড়ি এসে এক দম্পতির দেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো শান্তিপুরে। অন্ত:সত্তা স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন করে স্বামী আত্মঘাতী হয়েছেন বলে অনুমান করছে পুলিশ

  • Share this:

    #শান্তিপুর: জামাইষষ্ঠীতে শ্বশুরবাড়ি এসে এক দম্পতির দেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো শান্তিপুরে। অন্ত:সত্তা স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন করে স্বামী আত্মঘাতী হয়েছেন বলে অনুমান করছে পুলিশ ৷ শনিবার শান্তিপুরের বাগানেপাড়ায় মিতালির বাপের বাড়িতে তাদের দেহ উদ্ধার হয়। বিশ্বজিতের বাড়ি কোতয়ালি থানার ভালুকা বটতলা এলাকায়।

    পেশায় দিনমজুর ছিলন তিনি। দশ মাস আগে শান্তিপুর পুরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাগানেপাড়ার বাসিন্দা মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়েকে ভালবেসে বিয়ে করেছিলেন বিশ্বজিৎ। মৃতার বাবা পেশায় ভ্যানচালক। মিতালি অন্তঃসত্তাও ছিলো। গত সোমবার ঐ দম্পতি জামাইষষ্ঠীতে শান্তিপুরে আসে। শনিবার দুপুরে খাওয়াদাওয়ার পর তাদের বাড়ি ফিরে যাওয়ার কথা ছিলো। বাবা কাজে বেড়িয়ে গিয়েছিলেন ।

    তাঁর মা দোকানে যান বাজার করতে। তিনি ফিরে এসে দেখতে পেয়েছিলেন ঘরে মিতালির দেহ পড়ে আছে। ঐ ঘরেই বিশ্বজিতের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান তিনি। পরে শান্তিপুর থানার পুলিশ দেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। কি কারনে এই ঘটনা তা নিয়ে তারা ধোয়াশায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন মিতালির বাপের বাড়ির লোকজন। তবে সূত্রের খবর, মিতালির স্বামী বিশ্বজিৎ অলস প্রকৃতি ছিলেন। কাজকর্ম করতে চাইতেন না।

    এতে সংসারে আর্থিক সঙ্কট তৈরি হয়েছিল। মিতালি অন্তসত্তা হয়ে পড়ায় সমস্যা বাড়ে। জামাইষষ্ঠীতে শ্বশুরবাড়ি এসে বাড়ি ফিরতে চাইছিলেন না বিশ্বজিৎ। এখানেই কয়েকদিন কাজকর্ম না করে খাওয়া দাওয়া করে কাটিয়ে দিতে চাইছিলেন। কিন্তু মিতালির ভ্যানচালক বাবার পক্ষে এতদিন ধরে খরচ চালানো সম্ভব হচ্ছিলনা। এদিন সকালেই মৃতা স্ত্রী স্বামীর সাথে এই বিষয়ে কথা বলে। মৃত স্বামী দুপুরে খাওয়া দাওয়া করে বাড়ি ফিরে যাবেন এমনটাই বলেছিলেন । এরমধ্যে ফাকা বাড়িতে তাদের দেহ উদ্ধার হয়।

    First published:

    Tags: Couple, Died, Married, Nadie, Shantipur

    পরবর্তী খবর