আত্মীয়তার সুযোগে, নকল চাবি বানিয়ে ১৪ লাখের গয়না ও টাকা চুরি করে গ্রেফতার ছাত্রী

আত্মীয়তার সুযোগে, নকল চাবি বানিয়ে ১৪ লাখের গয়না ও টাকা চুরি করে গ্রেফতার ছাত্রী
প্রিয়া মাইতি নামে ওই পড়ুয়াকে গ্রেফতার করে নিজেদের হেপাজতে নিয়েছে পুলিশ।

প্রিয়া মাইতি নামে ওই পড়ুয়াকে গ্রেফতার করে নিজেদের হেপাজতে নিয়েছে পুলিশ।

  • Share this:

#হাওড়া: পাশের বাড়ির এক পড়ুয়া মেয়ে চুরি করেছিল প্রায় ১৪ লক্ষ টাকার সোনার গয়না এবং নগদ প্রায় ৪০ হাজার টাকা। জগাছা থানার পুলিশের তৎপরতায় সব চুরি যাওয়া অলঙ্কার এবং নগদ টাকা উদ্ধার হয়েছে। প্রিয়া মাইতি নামে ওই চোরকে গ্রেফতার করে নিজেদের হেপাজতে নিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে এই খবর জানিয়েছে হাওড়া সিটি পুলিশ। যদিও চুরিতে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে গত ৪ জানুয়ারি। চুরির ঘটনাটি ঘটে ৩ জানুয়ারি। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কাঠের ফার্নিচারের ব্যবসায়ী সুশান্ত রায়ের বাড়ি জগাছা সরকারি কলোনিতে। পাশের এলাকা ফুলবাগানে থাকে অভিযুক্ত প্রিয়া। সুশান্তবাবুর বাড়িতে মাঝেমধ্যে যাওয়া-আাস ছিল প্রিয়ার। এই যাওয়া-আসার মধ্যেই কোনওভাবে বাড়ির ও আলমারির চাবি নকল করে নেয় প্রিয়া। তারপর গত ৩ তারিখ কোনওভাবে সে সবার নজর এড়িয়ে ঘরে ঢুকে পড়ে এবং আলমারি খুলে অনেক সোনার গয়না এবং ৪০ হাজার টাকা নগদ নিয়ে চলে যায়। সুশান্তবাবুর ওই দিন রাতেই চুরির অভিযোগ করেন। তারপর পুলিশ ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ এবং অন্য কিছু সূত্র লাগিয়ে প্রিয়াকে গ্রেফতার করে।


জানা গিয়েছে, প্রিয়ার মা একটি চায়ের দোকান চালান। সংসারে অভাবও রয়েছে। তারমধ্যেও প্রিয়ার পড়াশুনো বন্ধ হতে দেননি তার মা।  সম্প্রতি স্কুল পাশ করে কলেজে পড়াশুনো শুরু করতে যাচ্ছিল সে। তার বিরুদ্ধে আগেও কোনও অভিযোগ নেই। তাই প্রিয়া অন্য কারও কথায় বা প্ররোচনায় এই ঘটনা ঘটিয়েছে কি না, তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। ছাত্রীটি জানিয়েছে বাড়ির সবার নজর এড়িয়ে সাবানের মধ্যে চাবির ছাপ নিয়ে একেই ধরণের চাবি বানিয়েছিলো সে ! কে এই ধরণের চাবি বানিয়েছে তাকেও খুঁজছে পুলিশ | এই ঘটনার সাথে কি তাহলে রয়েছে অন্য কোনো মাস্টারমাইন্ড । আর শুধু যদি অভাব মেটাতেই চুরি তাহলে আস্তে আস্তে একটা একটা করে সোনার গয়না চুরি করত, কেন এক সাথে এতো টাকার সোনার গয়না চুরি করলে সে ? বেশ কিছু প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে তদন্তকারীদের মাথায়।

Debasish Chakraborty

Published by:Piya Banerjee
First published: