হোম /খবর /শিলিগুড়ি /
গান নিয়ে কটাক্ষ হজম হল না মেয়রের, কৈফিয়ৎ চাইতে হাজির শিক্ষিকার বাড়িতে!

Siliguri News: তাঁর গান নিয়ে ব্যঙ্গ! কৈফিয়ৎ চাইতে সটান শিক্ষিকার বাড়িতে হাজির মেয়র

শিক্ষিকা স্মৃতিকণা ভট্টাচার্য মেয়রের গানের কমেন্ট বক্সে লিখেছিলেন, 'গানচর্চা শেষ হলে ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে এসে একটু রাস্তার বেহাল অবস্থা দেখে যান।' আর তাতেই মন খারাপ হয় মেয়রের।

  • Hyperlocal
  • Last Updated :
  • Share this:

শিলিগুড়ি: মেয়র গৌতম দেবের রবীন্দ্র সঙ্গীত প্রীতি ও চর্চার কথা শিলিগুড়ির বেশিরভাগ মানুষই জানেন। আজকাল অবসর সময়ে রবীন্দ্র সঙ্গীত গেয়ে তা টুকটাক সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করেন। সম্প্রতি তাঁর তেমনই একটি রবীন্দ্র সঙ্গীতের ভিডিওর কমেন্ট বক্সে ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য করেন ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের এক মহিলা। যিনি পেশায় একজন শিক্ষিকা। উল্লেখ্য এই ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডেরই কাউন্সিলর গৌতম দেব। কিন্তু ঐ শিক্ষিকার মন্তব্যকে খোলামনে নিতে পারেননি মেয়র। তাঁর গান নিয়ে ব্যঙ্গ করায় তিনি আহত হন। আর তাই সটান দলবল নিয়ে মন্তব্যের কৈফিয়ৎ চাইতে হাজির হয়ে গেলেন ওই শিক্ষিকার বাড়ি!

শিক্ষিকা স্মৃতিকণা ভট্টাচার্য মেয়রের গানের কমেন্ট বক্সে লিখেছিলেন, 'গানচর্চা শেষ হলে ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে এসে একটু রাস্তার বেহাল অবস্থা দেখে যান।' আর তাতেই মন খারাপ হয় মেয়রের। কেন তাঁর গানের কমেন্ট বক্সে এমন মন্তব্য করেছেন তা জানতে সাত সকালেই ওই শিক্ষিকার বাড়ি গিয়ে হাজির হন গৌতম দেব।

আরও পড়ুন: আত্মীয়ের বাড়ি ঘুরতে গিয়ে সদ্য বিবাহিত স্ত্রীর নিথর দেহ নিয়ে ফিরলেন মিঠু!

অবশ্য মেয়রকে সামনে দেখেও ঘাবড়ে যাননি ওই শিক্ষিকা। বরং গৌতম দেবকে বাড়ির ভেতরে এনে সামনে বসিয়ে মন্তব্যের কারণ ব্যাখ্যা করেন। স্মৃতিকণা ভট্টাচার্য পরিষ্কার জানান, তাঁর মন্তব্যে মেয়রের আঘাত পাওয়ার মত কিছু নেই। সত্যিই তাঁদের ওয়ার্ডের রাস্তাঘাটের অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করা যায় না। তাই তিনি তাঁর প্রতিবাদ মেয়রের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। তিনি একদম সঠিক মন্তব্য করেছেন বলেও জানান ওই শিক্ষিকা।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে শিলিগুড়ির মেয়র গৌতম দেব পরে বলেন, রাস্তা বেহাল থাকলে সে কথা বলতেই পারেন। কিন্তু সেখানে গানের প্রসঙ্গ তুলে হেয় করা কেন হবে? পাশাপাশি জানিয়েছেন, তাঁর নিজের ওয়ার্ডের রাস্তা সংস্কারের জন্য ইতিমধ্যেই টেন্ডার পাস হয়ে গিয়েছে। খুব দ্রুত কাজ শুরু হবে। উল্লেখ্য, শিলিগুড়ি ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা ভেবেছিলেন তাঁদের ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মেয়র হলে ওয়ার্ডের আরও বেশি উন্নতি হবে। কিন্তু গত এক বছরে তাঁদের সেই আশা হতাশায় পরিণত হয়েছে বলে দাবি করেন ওয়ার্ডের বহু বাসিন্দা।

অনির্বাণ রায়

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

Tags: Gautam deb, Siliguri News, TMC