উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পরই উত্তর দিনাজপুর জেলা জুড়ে ছাত্র বিক্ষোভ

student agitation in uttar dinajpur after class 12 result

ভবিষ্যত নিয়ে প্রশ্নের মুখে বহু পরীক্ষার্থী...

  • Share this:

#রায়গঞ্জ:  উচ্চমাধ্যমিকের ফল ঘোষণার পর থেকেই উত্তর দিনাজপুর জেলার জুড়ে ছাত্র বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। উত্তর দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন স্কুলে ভাঙচুর, রাস্তা অবরোধ হয়। শিক্ষকদের দাবি উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশ সঠিক ভাবে না হওয়ায় ছাত্রছাত্রী,অবিভাবক, এবং সাধারণ মানুষের সঙ্গে শিক্ষকদের সম্পর্ক খারাপ হয়ে পড়ছে। উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশের আগে শিক্ষকদের উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষক সংসদের বৈঠক হলে এই সমস্যা দেখা দিত না।

করোনা আবহের কারনে মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হয়নি। ইতিমধ্যে মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশ হয়েছে। মাধ্যমিক ১০০ শতাংশ পাশ করানো হয়েছে।উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ সেই পথে না হেঁটে ৯৭ শতাংশ কিছু বেশি পাশ করিয়েছে। সমস্যা তৈরি হয়েছে মূল্যায়নের পদ্ধতি নিয়ে। একাদশ শ্রেণীতে বহু মেধাবি ছাত্রছাত্রী সেরকম গুরুত্ব দেন না। উচ্চমাধমিকের আগে ছাত্রছাত্রী পড়ায় মনোনিবেশ করে উচ্চমাধ্যমিকে ভাল ফল করে থাকে। এবারে একাদশ শ্রেণীর পরীক্ষাকে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ গুরুত্ব দেওয়ায় বহু মেধাবি ছাত্রছাত্রীর আশানুরূপ ফল হয় নি। ফলে  উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া, চাকুলিয়ার এবং রায়গঞ্জে একাধিক স্কুলে ছাত্র বিক্ষোভ হয়। ছাত্রছাত্রীরা রাস্তায় নেমে তার প্রতিবাদ জানায়। সেই বিক্ষোভ অব্যাহত। কানকি, রায়গঞ্জ, ইটাহারে বেশ কয়েকটি স্কুলে আসবাবপত্র ভাঙচুর, রাস্তা অবরোধ করে।পুলিশ এবং পরিচালন সমিতির হস্তক্ষেপে ছাত্র আন্দোলন তুলে দিলেও ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। কানকি শ্রী জৈন বিদ্যামন্দিরের ছাত্র অভিজিৎ কুমার জানান, একাদশ শ্রেনীর মূল্যায়ন সঠিকভাবে স্কুল কর্তৃপক্ষ না দেওয়াতে উচ্চমাধ্যমিকে তাদের সঠিক নম্বর আসেনি। আশানুরূপ ফল না হওয়ায় তারা ভাল স্কুলে ভর্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবেন। তাদের মূল্যায়ন সঠিক না হওয়া পর্যন্ত তারা লাগাতর আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

এই বিদ্যালয়ের শিক্ষক তন্ময় যশ জানান, ছাত্ররা যেভাবে হতাশা গ্রস্থ হয়ে পড়েছেন তাতে ছাত্রদের মধ্যে এই ক্ষোভ তৈরী হতেই পারে। প্রধান শিক্ষক বিষয়টি শিক্ষা দপ্তরের নজরে আনার জন্য ইতিমধ্যে পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন।আগামী সোমবার ছাত্রছাত্রী, অবিভাবক এবং পরিচালক মন্ডলিদের বৈঠক করে পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করবেন।ইটাহার চূড়ামন হাইস্কুলের ক্ষুব্ধ ছাত্ররা অফিস রমে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ।সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করার অভিযোগে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাপস বড়াল পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।পুলিশ অভিযোগ পেয়ে স্কুলে আসেন।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইটাহার থানার পুলিশ।চূড়ামন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক তাপস বড়াল জানান, মূল্যায়ন অধিকাংশ ছাত্রছাত্রীর ক্ষোভ আছে ছাত্ররা মার্কশিট নেবার আগে তার সঙ্গে আলোচনা করে ক্ষোভের কথা জানিয়েছে। কিন্তু ছাত্রদের একাংশ আচমকাই তেড়ে গিয়ে ভাঙচুর চালায়। তবে বেশী ক্ষতি হয়নি।

Uttam Paul

Published by:Debalina Datta
First published: