corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে রাঙ্গাপানি স্টেশনে লাগোয়া গ্রামবাসীদের পাশে রেল কর্মীরা

লকডাউনে রাঙ্গাপানি স্টেশনে লাগোয়া গ্রামবাসীদের পাশে রেল কর্মীরা

যাদের দু'বেলা অন্ন জোগার করা এই সময়ে দুষ্কর, তাদের পাশেই রয়েছে রেল

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনার কামড় বেড়েই চলছে। বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশো এখন করোনায় কাবু। রেহাই পায় নি আমাদের দেশও। ক্রমেই করোনার দাপট বাড়ছে রাজ্যেও। হু হু করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। আবার সুস্থ হয়েও ফিরছেন অনেকেই। করোনা মোকাবিলায় একমাত্র হাতিয়ার মানুষের জমায়েত বন্ধ করা। আর তাই লকডাউন চলছে দেশ জুড়েই। আগামী ৩ মে পর্যন্ত চলবে লকডাউন। পরবর্তীতে সময়সীমা বাড়বে কী না তা এখনও স্পষ্ট নয়। ইতিমধ্যেই হটস্পট, রেড জোন, অরেঞ্জ জোন চিহ্নিত করা হয়েছে রাজ্যেও। জোন গুলিতে র‍্যাপিড করোনা পরীক্ষা করা হবে। করোনার প্রভাব কমাতে লকডাউন মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী থেকে মুখ্যমন্ত্রী। না মানলেই যে অচিরেই বিপদ ডেকে আনা।

আর এই সুপার লকডাউনের জেরে খাদ্য সংকটে পড়েছে অসহায়, দরিদ্র লোকেরা। অনেকেই তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এই কঠিন সময়ে ওদের পাশে দাঁড়ানো এক চ্যালেঞ্জ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে চলেছেন বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন থেকে সহৃদয় মানুষেরা। যারা প্রতিনিয়ত হাজির হচ্ছেন অসহায়দের দুয়ারে। সঙ্গে খাবারের প্যাকেট নিয়ে। এগিয়ে এসছে রেলওয়ে মজদুর ইউনিয়নের সদস্যরাও। সংগঠনের এনজেপি শাখার সদস্যরা আজ পৌঁছন শিলিগুড়ি লাগোয়া রাঙ্গাপানি এলাকায়। রাঙ্গাপানি স্টেশন ঘেঁষা গ্রামে শুকনো খাবারের প্যাকেট নিয়ে পৌঁছয় সংগঠনের সদস্যরা। এলাকার ১৫০ জন দিন আনি দিন খাই দরিদ্র পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয় রেশন সামগ্রী।

সংগঠনের সম্পাদক সৌম্যজিৎ কর্মকার জানান, 'চাল, ডাল, তেল, সোয়াবিন, লবন, পারুটি তুলে দেওয়া হয়েছে। মাথাপিছু ৪ কেজি চাল, ৫০০ গ্রাম সরষের তেল, পরিমাণ মতো অন্য সামগ্রী প্যাকেট করে হাতে তুলে দেওয়া হয়। অন্তত আগামী ৪-৫ দিনের খাবারের রসদ তুলে দেওয়া হয়েছে'। চিফ কমার্শিয়াল ইন্সপেক্টর দেবাশীষ কার্জি জানান, 'সাধ্য মতো আগামীদিনেও স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় বস্তিবাসীদের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হবে। এর আগে এনজেপির টিকিট পরীক্ষকেরাও স্টেশনের কুলি পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেয়'। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলও পাশে দাঁড়িয়েছে দুঃস্থ, গরিবদের পাশে। যাদের দু'বেলা অন্ন জোগার করা এই সময়ে দুষ্কর, তাদের পাশেই রয়েছে রেল।

Partha Pratim Sarkar

First published: April 24, 2020, 10:02 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर