জেরক্স করা নোট দেখিয়ে টাকা দ্বিগুন করার টোপ, রায়গঞ্জে জালে প্রতারণা চক্র

Photo- Representative

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে শনিবার রাতে রায়গঞ্জ থানার আইসি সুরজ থাপার নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বিশেষ তল্লাশি অভিযান জেলখানা মোড় এলাকা থেকে চার প্রতারককে গ্রেপ্তার করে।

  • Share this:
#রায়গঞ্জ: 'যত টাকা দেওয়া হবে, তার দ্বিগুন টাকা ফেরত পাওয়া যাবে।' এমনই টোপ দিয়ে চলছিল প্রতারণার কারবার৷ সাধারণ মানুষকে    আকর্ষিত করার জন্য প্রচুর ফোটোকপি করা ৫০০ টাকার প্রচুর  জাল নোটও দেখানোর জন্য রাখা হতো। এভাবেই প্রতারণার ফাঁদ পেতেছিল রায়গঞ্জের চারজন প্রতারক। শেষ রক্ষা অবশ্য হলো না, পুলিশের জালে ধরা পড়ে গেল রায়গঞ্জ শহরের ওই প্রতারণা চক্রের মাথারা৷  ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে প্রচুর ৫০০ টাকার নোটের জেরক্স। এছাড়াও ৪টি মোটরবাইক, ৫টি মোবাইল ফোন,  কিছু কেমিক্যাল ও জেরক্স করার জন্য সাদা কাগজের বান্ডিল উদ্ধার করেছে পুলিশ৷  ধৃতদের এ দিন রায়গঞ্জ আদালতে তোলা হলে চারদিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  রায়গঞ্জ শহরের একদল প্রতারক সাধারণ মানুষের টাকা ডাবল করে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রচুর টাকা প্রতারণা করে চলেছে।পুলিশের কাছে এই খবর আসতেই  তদন্ত শুরু করে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে  শনিবার রাতে রায়গঞ্জ থানার আইসি সুরজ থাপার নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বিশেষ তল্লাশি অভিযান চালিয়ে  রায়গঞ্জ শহরের জেলখানা মোড় এলাকা থেকে চার প্রতারককে গ্রেপ্তার করে। ধৃতদের বাড়ি শ্যামাপল্লি, পশ্চিম বীরনগর ও সুভাষ কলোনিতে।  ধৃতরা হল প্রদীপ সাহা, পঙ্কজ প্রামাণিক,  রথীন অধিকারী ও উত্তম সরকার। ধৃতদের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে ৫০০ টাকার জেরক্স নোট উদ্ধার করে পুলিশ। ধৃত প্রতারকেরা এই জেরক্স করা নোটের বান্ডিল দেখিয়ে প্রলোভনের ফাঁদে ফেলত টাকা ডাবল করার লোভে পড়া মানুষের। রায়গঞ্জ পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অনুপম সিং জানিয়েছেন, আদালত ধৃতদের পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার আবেদন মঞ্জুর করেছে। এদের সাথে আরও কোনও চক্র যুক্ত আছে কিনা তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। Uttam Paul
Published by:Debamoy Ghosh
First published: