পুলওয়ামায় শহীদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাতে ৪৪টি চারা গাছ রোপন

পুলওয়ামায় শহীদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাতে ৪৪টি চারা গাছ রোপন

শিলিগুড়ির ২০ নম্বর ওয়ার্ড কমিটিকে এই উদ্য়োগের জন্য় প্রস্তাব দেয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

  • Share this:
#শিলিগুড়ি: পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় নিহত জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাল শিলিগুড়ি। গত বছর ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় বিস্ফোরণে নিহত হন ৪৪ জন জওয়ান। নিহত জওয়ানদের  স্মৃতিতে শুক্রবার শিলিগুড়ির ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন করা হয়। এদিন ৪৪টি চারা গাছ লাগানো হয়েছে। নিহত জওয়ানদের নামেই একেকটি গাছের নাম রাখা হবে। বিভিন্ন ধরনের এই গাছের মধ্য়ে রয়েছে মেহগনি, বকুলও। দূষণ নিয়ন্ত্রণ, বাতাসে অক্সিজেনের পরিমাণ বাড়ানোর লক্ষ্যেই এই উদ্য়োগ বলে জানিয়েছেন উদ্য়োক্তারা।
শিলিগুড়ির ২০ নম্বর ওয়ার্ড কমিটিকে এই উদ্য়োগের জন্য় প্রস্তাব দেয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। নিহত জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য় যৌথ উদ্য়োগের প্রস্তাব দেন তারা। স্থানীয় কাউন্সিলর রঞ্জন সরকার জানান, "স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রস্তাব নিয়ে এলে ফেরানো হয়নি। এলাকায় প্রচুর গাছ আগেও লাগানো হয়েছে। আর শহিদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাতে এমন উদ্যোগের বিকল্প নেই। যাঁরা দেশের জন্যে প্রাণ দিয়েছেন, তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য।"
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের অন্য়তম সদস্য় শক্তি পাল সেনাবাহিনীতেই চাকরি করেন। সীমান্তে থাকার কারণে তিনি শুক্রবারের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি। তবে চিঠি দিয়ে উদ্য়োগকে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি। তাঁর দাবি, "নিহত জওয়ানদের ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। তবে গাছ লাগানোর ফলে আরেকটি প্রাণ বেড়ে ওঠার জায়গা পাবে।"
নিহত জওয়ানদের ছবি টাঙিয়েও শ্রদ্ধা জানানো হয়। অনুষ্ঠানের অন্য়তম উদ্য়োক্তা অভয়া বসু জানান, "গাছ লাগালে পরিবেশের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রিত হয়। প্রাণও বাঁচে। গাছ লাগান, প্রাণ বাঁচান। তাই এই উদ্যোগ।"
শুক্রবার দিনভর শিলিগুড়িতে নানাভাবে পুলওয়ামা হামলায় নিহতদের শ্রদ্ধা জানায় বিভিন্ন সংস্থা। কোথাও দরিদ্রদের বস্ত্র বিতরণ করা হয়, আবার কোথাও মোমবাতি মিছিল করে শ্রদ্ধা জানানো হয়। তবে একটু অন্য়রকমভাবে নজির গড়ল ২০ নম্বর ওয়ার্ড। শুধু ১৪ ফে্রুয়ারি নয়, সারা বছরই গাছেদের সঙ্গে থেকে যাবে নিহত জওয়ানদের স্মৃতি। উদ্য়োক্তাদের দাবি, যাতে অঙ্কুরেই বিনষ্ট না হয়, বছরভর গাছের পরিচর্যাও করা হবে। এদিনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন শহরবাসী।
পার্থপ্রতিম সরকার
First published: February 14, 2020, 5:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर