• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • অনলাইন ক্লাসের একঘেয়েমি কাটাতে খুদেদের মধ্যে অঙ্কন প্রতিযোগিতার ভাবনা স্কুলের !

অনলাইন ক্লাসের একঘেয়েমি কাটাতে খুদেদের মধ্যে অঙ্কন প্রতিযোগিতার ভাবনা স্কুলের !

যেমন খুশি আঁকো। অর্থাৎ স্কুল থেকে কোনও বিশেষ সাবজেক্ট বলা হয়নি। ঘরে বসেই কচিকাঁচারা পেন্সিল দিয়ে আঁকল ছবি।

যেমন খুশি আঁকো। অর্থাৎ স্কুল থেকে কোনও বিশেষ সাবজেক্ট বলা হয়নি। ঘরে বসেই কচিকাঁচারা পেন্সিল দিয়ে আঁকল ছবি।

যেমন খুশি আঁকো। অর্থাৎ স্কুল থেকে কোনও বিশেষ সাবজেক্ট বলা হয়নি। ঘরে বসেই কচিকাঁচারা পেন্সিল দিয়ে আঁকল ছবি।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: অতিমারী করোনা মোকাবিলায় বন্ধ রয়েছে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়। কবে খুলবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, তা এখনও স্পষ্ট নয়। অনলাইনে চলছে ক্লাস। এমনকি পরীক্ষাও শুরু হয়েছে অনলাইনে। বাড়িতে বসেই সময় কাটাতে হচ্ছে পড়ুয়াদের। বড় ক্লাসের ছাত্র, ছাত্রীরা বাড়ির বাইরে ইচ্ছে হলেই বের হতে পারছে মাঝেমধ্যে। স্কুল, কলেজের বাইরে বন্ধু, বান্ধবদের সাথে দেখা হচ্ছে। প্রাইভেট টিউশনও চালু হয়নি সব জায়গায়। উঁচু ক্লাসের ছাত্র, ছাত্রীরা নিজেদের মধ্যে গ্রুপ স্টাডিও করতে শুরুও করেছে। কিন্তু সবচাইতে সমস্যায় নীচু ক্লাসের পড়ুয়ারা। ঘরবন্দি কচিকাঁচা পড়ুয়ারা। রুটিন মাফিক অনলাইন ক্লাস। বহুদিন হল স্কুলের দেখা নেই। দেখা নেই বন্ধু, বান্ধবীদের সাথেও। ক্লাস টিচারের সঙ্গেও সরাসরি দেখা নেই। মুখে বলতে না পারলেও আজ ওরাই সবচাইতে একঘেয়েমির মধ্যে আছে। অনলাইন ক্লাস আর কার্টুনের মধ্যেই নিজেদের আটকে রেখেছে ওরা। কেজি, নার্সারির পড়ুয়াদের মধ্যে এবারে তাই অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে শিলিগুড়ির পাঞ্জাবী পাড়ার একটি বেসরকারি ইংরেজী মাধ্যম স্কুল কর্তৃপক্ষ।

যেমন খুশি আঁকো। অর্থাৎ স্কুল থেকে কোনও বিশেষ সাবজেক্ট বলা হয়নি। ঘরে বসেই কচিকাঁচারা পেন্সিল দিয়ে আঁকলো ছবি। তারপর রঙ পেন্সিল দিয়ে ফুটিয়ে তোলে নিজেদের আঁকা ছবি। বেশিরভাগ পড়ুয়াই ঘর, বাড়ি, গাছপালার ছবি আঁকে। তারপর অভিভাবকদের মোবাইল বন্দি হয়ে পৌঁছে যায় স্কুল কর্তৃপক্ষের হাতে। স্কুলের ডিরেক্টর সন্দীপ ঘোষাল জানান, ঘরে বসে থাকতে থাকতে একঘেয়েমি জীবন চলে আসে। তাই মন ঘোরাতেই এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এর আগে মন পছন্দ ফাস্টফুড তৈরী থেকে রাধা, কৃষ্ণ সাজার প্রতিযোগিতাও করা হয়। স্কুল পড়ুয়াদের পাঠ্য বইয়ের বাইরেও ব্যস্ত রাখতেই এমন ভাবনা। যেমন খুশি আঁকো প্রতিযোগিতায় বিচারকদের বিচারে সেরাদের পুরস্কৃত করা হবে। যাতে ওদের মধ্যে আরও উৎসাহের জন্ম নেয়। লকডাউনে আগামী দিনে কিছু প্রতিযোগিতার আয়োজন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

PARTHA PRATIM SARKAR

Published by:Piya Banerjee
First published: