বিজেপিকে একটিও ভোট নয়, বাংলা এবং হিন্দি পোস্টারে ছয়লাপ শিলিগুড়ি 

বিজেপিকে একটিও ভোট নয়, বাংলা এবং হিন্দি পোস্টারে ছয়লাপ শিলিগুড়ি 

এই পোস্টারই চোখে পড়ছে শিলিগুড়ি শহরজুড়ে।

আজ নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় এই পোস্টার লাগানো হয়েছে। এমনকি একই ইস্যুতে আগামী ১০ই মার্চ শিলিগুড়িতে একটি মিছিলেরও ডাক দিয়েছে তারা।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: বিজেপি রাজ্যে সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতি করছে। হিন্দু, মুসলিমের মধ্যে বিবাদ তৈরি করছে। রাজ্যেও দাঙ্গা বাঁধাবার  চেষ্টা করছে, এই অভিযোগ তুলে বিজেপিকে একটিও ভোট না দেওয়ার আর্জি জানিয়ে পোস্ট পড়ল শিলিগুড়ি শহরজুড়ে। তাদের স্লোগান, মধ্যযুগ ফিরিয়ে আনার সব চেষ্টা ব্যর্থ হোক। রাজ্যে ধর্মীয় মৌলবাদ দূর হোক।

আজ নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় এই পোস্টার লাগানো হয়েছে। এমনকি একই ইস্যুতে আগামী ১০ই মার্চ শিলিগুড়িতে একটি মিছিলেরও ডাক দিয়েছে তারা। বুধবার থেকে শহরে তারা পোস্টার লাগানো শুরু করেছে। নাগরিক মঞ্চের পক্ষে মুক্তি সরকার জানালেন, "দেশজুড়ে বিজেপি যেভাবে জাতপাত নিয়ে রাজনীতি করছে তাতে বাংলায় তাদের কোনও জায়গা নেই। পাশাপাশি তিনি বলছেন, "কোনও ভাবেই রাজ্যে অশান্তি সৃষ্টি করতে দেওয়া হবে না।দক্ষিণবঙ্গে নো ভোট টু বিজেপি নামে একটি সংগঠন পোস্টার লাগাচ্ছে। এখানে তারা মানুষের কাছে আবেদন করছে যাতে মানুষ বিজেপিকে ভোট না দেয়। কিন্তু কাকে ভোট দেবে সেটা সকলে বিবেচনা করেই দেবেন।"

বাংলা এবং হিন্দিতে এই লিফিলেট সাঁটানো হয়েছে শহরজুড়ে। নির্বাচনে দোরগোঁড়ায় এই ধরনের পোস্টারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে শহরজুড়ে। কেননা সরাসরি বিজেপিকে ভোট নয় পোস্টার কেন? যেখানে অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের নাম নেই। এ নিয়ে বিজেপির জেলা সাধারণ সম্পাদক রাজু সাহা বলেন, "তৃণমূল এবং সিপিএমের আঁতাতেই এই পোস্টার পড়েছে। কারণ তাঁরা জানে এই বছর তারা কেউই ক্ষমতায় আসবেনা। তাই বিজেপিকে হারানোর জন্য এসব কৌশল করানো হচ্ছে। গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কারা এর পেছনে রয়েছে, তা বের করা হবে।"

অন্য দিকে ফ্যাসিবাদ বিরোধী সংগঠনটি সাফ জানিয়ে দিয়েছে, ধারাবাহিকভাবে এই ধরনের প্রচার চলবে। দিল্লিতে কৃষি আইন বিরোধী আন্দীলন চালিয়ে আসছে কৃষকেরা। কেন্দ্র নীরব। তাই সাধারন মানুষকে সচেতন করে তুলতেই মিটিং, মিছিল, পথসভাও হবে। সব মিলিয়ে ভোটের আগে পোস্টার, ফ্লেক্সকে ঘিরে রাজনৈতিক উত্তাপ বাড়ছে এবার সমতলের শিলিগুড়িতেও।

Published by:Arka Deb
First published:

লেটেস্ট খবর