পঞ্চান্নতম বিবাহবার্ষিকীতে আরও একবার বাবারই বিয়ে দিল ছেলেমেয়েরা

পঞ্চান্নতম বিবাহবার্ষিকীতে আরও একবার বাবারই বিয়ে দিল ছেলেমেয়েরা
বিয়ের আসরের ব্যাকগ্রাউন্ডে সানাই এর সুরে আরো একবার বাঁধা পড়লো দুটি মন

বিয়ের আসরের ব্যাকগ্রাউন্ডে সানাই এর সুরে আরো একবার বাঁধা পড়লো দুটি মন

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: জীবনে কেটে গিয়েছে সত্তরটি বসন্ত, যৌবনের নিটোল গালে এখন বলিরেখার ছাপ স্পষ্ট, বার্ধক্য থাবা বসিয়েছে শরীরে-কিন্তু দুজনের দুটি মন আজো চিরসবুজ। তাই সত্তর ছুঁই ছুঁই বয়সে ফের আরেকবার বিয়ের পিড়িতে বসে পড়লেন রায়গঞ্জের মিলনপাড়ার দম্পতি রিলিফ কুমার রায়  ও গৌরী রানী রায়। সৌজন্যে ছেলে,মেয়ে ও নাতি নাতনিদের আবদার।

নিউক্লিয়ার ফ্যামিলির নয়া নিয়মই এই যে বৃদ্ধ বাবা-মা একাকীত্বে ভুগবেন। এর ঠিক বিপরীত মেরুতে দাঁড়িয়ে বৃদ্ধ বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটাতে অভিনব উদ্যোগ নিল রায়গঞ্জের মিলনপাড়ার বাসিন্দা রিলিফ কুমার রায়ের ছেলে, মেয়ে ও নাতি,নাতনিরা। শনিবার বাড়িতেই বসেছিল বিয়ের আসর। লাল বেনারসী তে সজ্জিত গৌরী দেবীকে পাশে নিয়ে বিয়ে সারলেন রিলিফ বাবু। পুরোহিতের মন্ত্রোচ্চারণ, সাতপাক ঘোরা,শুভদৃষ্টি বাদ ছিল না কোনো কিছুই।

বিয়ের আসরের ব্যাকগ্রাউন্ডে সানাই এর সুরে আরো একবার বাঁধা পড়লো দুটি মন। বয়সের সংখ্যাকে  তুড়ি মেরে উড়িয়ে উচ্চারিত হলো "ভালোবাসি,ভালোবাসি।  ছেলে,নাতি-নাতনীদের এই উদ্যোগে কিছুটা লজ্জা পেলেও আনন্দ গোপন করেননি এই বৃদ্ধ দম্পতি।  দুজনেই জানালেন," ছেলে, মেয়েদের উদ্যোগেই আরো একবার বিয়ের পিড়িতে বসা। খুব ভালো লাগছে। ছেলে,মেয়েরা বাবা,মাকে যেন এভাবেই ভালোবাসে।" অন্যদিকে রিলিফ বাবুর নাতি-নাতনি রা বলেন," দাদু-দিদার পঞ্চান্নতম বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষেই এই আয়োজন। তারা যাতে ভালো থাকে,আনন্দে থাকে সেজন্যই এই উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। বৈদিক নিয়ম মেনেই বিয়ে দিয়েছেন পুরোহিত। পরিবারের সকলে মিলে খুব মজা করলাম। "


এই বিয়েতে পুরোহিত ছিলেন প্রতিবেশী শ্যামল চক্রবর্তী। তিনি বলেন," জীবনে প্রথম এধরনের বিয়ে দেওয়ার অভিজ্ঞতা। ভালো লাগছে। সব নিয়ম মেনেই বিবাহ পর্ব শেষ হয়েছে। "মেয়ে মধুমিতা দাস জানান, বয়স্কদের আনন্দ দিতেই তাদের এই উদ্যোগ। বয়েস হলে তাদের আনন্দ কমে যায়। বিবাহ বার্ষিকীতে তাদের  এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা। শনিবার বাড়ির সকলেই নিরামিষ খান। তাই এই অনুষ্ঠানের পর সবাইকে নিরামিষ খেতে হবে। রবিবার বাড়িতে মাছ, মাংস সব কিছু খাওয়ানো হবে। নাতি প্রনব সরকার জানালেন,  দাদু দিদিমা সুস্থ থাকুক ভাল রাখতেই  এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

Published by:Arka Deb
First published: