বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রবীণ এবং বিশেষভাবে সক্ষম ভোটারদের ভোটগ্রহন শুরু উত্তর দিনাজপুরে

বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রবীণ এবং বিশেষভাবে সক্ষম ভোটারদের ভোটগ্রহন শুরু উত্তর দিনাজপুরে

বাংলার ভোট

প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে ১২/১৩ টি টিম বের হয়েছে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে ভোট গ্রহণ করানোর জন্য৷

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: আশি উর্দ্ধ বয়স্ক পুরুষ ও মহিলা ভোটার এবং বিশেষভাবে সক্ষম ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু করল উত্তর দিনাজপুর জেলা নির্বাচন দফতর।  নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে শুক্রবার থেকে উত্তর দিনাজপুর জেলার ৯ টি বিধানসভা কেন্দ্রেই বিশেষভাবে সক্ষম ও অশীতিপর বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের ভোট নেওয়ার কাজ শুরু করল জেলা নির্বাচন দফতরের আধিকারিক ও কর্মীরা। বুথে বুথে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট না দিয়ে, বাড়িতে বসেই ভোটদান করতে পেরে ভীষণ খুশি প্রবীণ ভোটাররা।

বাড়িতেই ভোট কেন্দ্র তৈরি করে ভোট দিচ্ছেন প্রবীণ নাগরিক এবং বিশেষভাবে সক্ষম ভোটাররা। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে আশি বছরের উর্দ্ধে বয়স্ক ভোটারদের এবং শারীরিক ভাবে অক্ষম ভোটারদের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে গিয়ে ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু করল উত্তর দিনাজপুর জেলা নির্বাচন দফতর। ভোট কর্মীরা ছাড়াও পুলিশ এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী সঙ্গে থাকছে। জেলা রিটার্নিং অফিসার তথা জেলাশাসকের নির্দেশ অনুযায়ী উত্তর দিনাজপুর জেলার ৯ টি বিধানসভা কেন্দ্রেই শুক্রবার থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট নেওয়া শুরু হল। মূলত যেসব ভোটাররা বুথে গিয়ে ভোট দিতে পারবেন না অর্থাৎ বার্ধক্যজনিত কারণ কিংবা শারীরিক অক্ষমতার কারণে বুথে গিয়ে ভোটদান করতে পারছে না, তাদের জন্যই এই ব্যবস্থা করেছে নির্বাচন কমিশন।

প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে ১২/১৩ টি টিম বের হয়েছে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে ভোট গ্রহণ করানোর জন্য৷ এদিন রায়গঞ্জ বিধানসভার উদয়পুরের বাসিন্দা  অশীতিপর নব্বই বছরের বৃদ্ধ রামকানু সরকারের বাড়িতে পৌঁছে যান ভোট কর্মীরা। যথাযথ পরিকাঠামোর মধ্য দিয়ে বাড়িতে নিজের ঘরে বসেই ২০২১ সালের বিধানসভা ভোট দিলেন রামকানু সরকার। এভাবে বাড়িতে বসে ভোট দিতে পেরে খুব ভাল লাগলো বলে জানালেন তিনি। বয়েস হলেও ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে গিয়ে দীর্ঘ লাইনের মধ্যে পড়তে হয়। এই ভয়ে অনেক সময় ভোট দিতে অনিহা তৈরী হয়।  রায়গঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের একটি সেক্টরের দায়িত্বে থাকা সহকারী সেক্টর কিশোর পাল জানালেন নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী আশি বছরের উর্দ্ধে ভোটারদের এবং বিশেষভাবে সক্ষম ভোটারদের জন্য এমন ব্যবস্থায় খুব সুবিধাই হয়েছে৷

Published by:Pooja Basu
First published: