corona virus btn
corona virus btn
Loading

ধস থেকে কোনওরকমে রক্ষা পেল টয় ট্রেনের লাইন, সম্পূর্ণ বন্ধ ৫৫ নং জাতীয় সড়ক!

ধস থেকে কোনওরকমে রক্ষা পেল টয় ট্রেনের লাইন, সম্পূর্ণ বন্ধ ৫৫ নং জাতীয় সড়ক!

অবিরাম বৃষ্টির জেরে নাঝেহাল উত্তরবঙ্গ...ধসে জেরবার দার্জিলিং...বন্ধ ৫৫ নং জাতীয় সড়ক!

  • Share this:

Partha Sarkar

#দার্জিলিং: ধসে জেরবার পাহাড়। গত ৪৮ ঘণ্টায় লাগাতার বৃষ্টির জেরে একাধিক জায়গায় ধস নেমেছে। দার্জিলিং ও রিম্বিকের সংযোগকারী সড়ক যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। রিম্বিকের কাছে বড়া হাট্টা ও ছোটা হাট্টা এলাকায় হুড়মুড়িয়ে পড়ে পাথরের চাঁই। গাছপালা নিয়ে উপড়ে পড়ে রাস্তায়। গোটা রাস্তা জুড়ে ধস। আবহাওয়া প্রতিকূল থাকায় আজও দিনভর ধস সরানোর কাজ শুরুই করতে পারেনি জিটিএ'র বিভাগীয় আধিকারীকেরা। সকালের দিকে ধস সরানোর কাজে হাত লাগায় পূর্ত দফতরের কর্মীরা। কিন্তু ফের বৃষ্টি নামায় ব্যহত হয় ধস সরানোর প্রক্রিয়া। এর জেরে রিম্বিক ও দার্জিলিংয়ের মধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। সমস্যায় পড়েছেন একাধিক পাহাড়ি গ্রামের বাসিন্দারা। কবে স্বাভাবিক হবে তা নিয়ে ধন্দ্বে সব পক্ষই।

আর রাস্তা না খুললে সমস্যা আরও বাড়বে। একেই করোনা আবহ। তার ওপর ধসে জনজীবন আরও ব্যহত হয়ে পড়েছে। আজও ওই এলাকায় একাধিক জায়গায় আরও ছোটো ছোটো ধস নেমেছে। স্থানীয় বাসিন্দারা দ্রুত রাস্তা সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন। জিটিএ'ও জানিয়েছে, সবরকম চেষ্টা চালানো হচ্ছে স্বাভাবিক অবস্থা ফেরানোর। কিন্তু বৃষ্টি ও কুয়াশা বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে ধস নেমেছে ৫৫ নং জাতীয় সড়কে। লাগাতার বৃষ্টির জেরে শিলিগুড়ি ও দার্জিলিংয়ের সংযোগকারী ৫৫ নং জাতীয় সড়কের রাস্তা পুরোপুরি ধসে গিয়েছে। গয়াবাড়ি ও পাগলাঝোড়ার মাঝে ধস নামায় বিপাকে স্থানীয় একাধিক গ্রাম। অল্পের জন্যে রক্ষে পেয়েছে টয় ট্রেনের লাইন।

বেশ বড় অংশের পিচের রাস্তা এখন খাদে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যান ন্যাশনাল হাইওয়ের আধিকারিকরা। আজ আর ধস সরানোর কাজ শুরু হয়নি। তবে যে ভাবে ধস নেমেছে তা সংস্কার করা যথেষ্ট সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। জাতীয় সড়ক দিয়ে পণ্যবাহী লরি চলাচল করে। তবে বিপাকে পাগলাঝোড়া, মহানদী, গয়াবাড়ি, রংটংয়ের বাসিন্দারা। ঘুরপথে তাঁদের যেতে হবে কার্শিয়ং বা দার্জিলিং। তবে শিলিগুড়ির সঙ্গে শৈলশহরের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েনি। রোহিণী এবং পাঙখাবাড়ি হয়ে গাড়ি চলাচল করছে স্বাভাবিকভাবে।

Published by: Simli Raha
First published: June 29, 2020, 6:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर