• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • Heavy Rainfall In Sikkim: সিকিমে আটকে বাংলার ১৪ জন পর্যটক, মোবাইল বন্ধ, উদ্বিগ্ন পরিবারের লোকজন

Heavy Rainfall In Sikkim: সিকিমে আটকে বাংলার ১৪ জন পর্যটক, মোবাইল বন্ধ, উদ্বিগ্ন পরিবারের লোকজন

Heavy Rainfall In North Bengal: ১৪ জন পর্যটকের আজও ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তাঁরা গ্যাংটকে আটকে পড়েছেন।

Heavy Rainfall In North Bengal: ১৪ জন পর্যটকের আজও ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তাঁরা গ্যাংটকে আটকে পড়েছেন।

Heavy Rainfall In North Bengal: ১৪ জন পর্যটকের আজও ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তাঁরা গ্যাংটকে আটকে পড়েছেন।

  • Share this:

#রাজকুমার কর্মকার, আলিপুরদুয়ার: গত কয়েকদিন ধরে রাজ্যজুড়ে লাগাতার বৃষ্টি হচ্ছে। বিরামহীন বৃষ্টিতে জনজীবন কার্যত বিপর্যস্ত। দক্ষিণবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকা নতুন করে জলের তলায় চলে গিয়েছে। ফের কোটালের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। তবে আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, দক্ষিণবঙ্গে বৃহস্পতিবার থেকে আবহাওয়ার উন্নতি হতে পারে। রোদের দেখা পাওয়া যেতে পারে। তবে দুর্ভোগ চলবে উত্তরবঙ্গে। আজ থেকে ব্যাপক বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে উত্তরবঙ্গে।

গত কয়েকদিন ধরে বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গের বহু জায়গায় ধস নেমেছে। সিকিমের সঙ্গে বাংলার যোগাযোগ কার্যত বিচ্ছিন্ন। সিকিমের সঙ্গে বাংলার যোগাযোগকারী ১০ নম্বর জাতীয় সড়কে ধস নেমেছে। ফলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে সিকিম ও বাংলার। পুজোর ছুটিতে এই সময় বাংলা থেকে প্রচুর মানুষ সিকিমে ঘুরতে যান। সেইসব পর্যটকদের অনেকেই সিকিমে আটকে রয়েছেন। লাগাতার বৃষ্টিতে সিকিম থেকে ফিরতে পারছেন না অনেকে। এদিকে, দার্জিলিং ও কালিম্পংয়ের বহু এলাকাও ধসে বিপর্যস্ত। বহু জায়গায় রাস্তা বন্ধ।

আরও পড়ুন- আজ থেকে বৃষ্টিতে ভাসবে উত্তরবঙ্গ, দক্ষিণবঙ্গের মানুষের জন্য বড়সড় স্বস্তির খবর

ভারি বর্ষনের জেরে আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারে ১৪ জন পর্যটক সিকিমে আটকে রয়েছেন। আজই সিকিম থেকে ফেরার কথা ছিল পর্যটকদের দলটির। কিন্তু রাস্তা বন্ধ থাকায় তারা সিকিমের গ্যাংটকে আটকে পড়েছেন। এর মধ্যে আলিপুরদুয়ারের চারটি পরিবার ও কোচবিহারের একটি পরিবার রয়েছে।

আলিপুরদুয়ার শহরের উদয়ন বিতানের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সজল মিত্র ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা আটকে পড়েছেন সিকিমে। এছাড়া আলিপুরদুয়ারের মধ্যপাড়ার দুটো পরিবার, সূর্যনগর এলাকার একটি পরিবার ও কোচবিহারের একটি পরিবার সিকিমে আটকে পড়েছেন। তাঁদের মোবাইল ফোন বন্ধ। ফলে বাড়ির লোকজন তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না। উদ্বিগ্ন পরিবারের সদস্যরা।

Published by:Suman Majumder
First published: