Forgery Of Lakshmi Bhandars Form In Jalpaiguri: 'লাইনে দাঁড়াতে হবে না, এদিকে আসুন', ফের লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম বিক্রি করে ধৃত যুবক

ফের টাকার বিনিময়ে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপ করার অভিযোগ উঠল।

ফের টাকার বিনিময়ে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপ করার অভিযোগ উঠল।

  • Share this:
    #জলপাইগুড়ি: ফের টাকার বিনিময়ে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপ করার অভিযোগ। কিছুদিন আগে শিলিগুড়িতে এক যুবককে পাকড়াও করেছিল পুলিশ। এভার জলপাইগুড়ির এক যুবক শ্রীঘরে গেলেন। লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের লাইনে এমন কাণ্ডের খবর ছড়িয়ে পড়তেই চাঞ্চল্য জলপাইগুড়িতে। শিলিগুড়ি, রাজগঞ্জের পর এবার জলপাইগুড়ি সদর ব্লকে টাকার বিনিময়ে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের ফর্ম ফিলাপ করার অভিযোগ উঠল। এই ঘটনায় অভিযুক্ত যুবককে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই গ্রেফতার করেছে জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানার পুলিশ। দুয়ারে সরকার প্রকল্পে আবেদনপত্র নিতে জলপাইগুড়ি সদর ব্লকের খড়িয়া অঞ্চলে সকাল থেকেই ব্যাপক ভিড় ছিল। অভিযোগ, সেখানে রঞ্জন হাজরা নামে এক যুবক টাকার বিনিময়ে ফর্ম ফিলাপ করে দিচ্ছিল। অভিযোগ পেয়ে ক্যাম্পে থাকা পুলিশ ছুটে আসে ঘটনাস্থলে। এর পরই সেই যুবককে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। ঘটনায় ডিএসপি হেডকোয়ার্টার সমীর পাল বলেছেন, অভিযোগ পাওয়ার পর প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই রঞ্জন হাজরা নামের ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম নকল করা আটকাতে সবরকম চেষ্টা করছে নবান্ন। তবুও একের পর এক অভিযোগের খবর আসছে। কোনও ব্যক্তি অভিযোগ জানাতে চাইলে হেল্পলাইন নম্বরও চালু করেছে রাজ্য। সেই হেল্পলাইন নম্বর- ১০৭০-২২১৪৩৫২৬‌। লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম নিয়ে সবরকম দুর্নীতি রুখতে কড়া পদক্ষেপ নবান্নর। পুলিশকেও এই ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। এদিন রঞ্জন হাজরা নামের ওই যুবক অনেককেই টাকার বিনিময়ে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম দেওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। লাইনে দাঁড়ানো অনেকের কাছে গিয়ে তাঁর কাছ থেকে ফর্ম নেওয়ার জন্য বলে সেই যুবক। তখনই লাইনে দাঁড়ানো কয়েকজন প্রতিবাদ করেন। তার পর তাঁরাই পুলিশের কাছে ওই যুবকের নামে অভিযোগ করেন। প্রায় সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে ওই যুবককে হাতেনাতে ধরে ফেলে পুলিশ। প্রতিটি মানুষ যাতে দুয়ারে সরকার শিবির থেকেই লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের ফর্ম পান, তা নিশ্চিত করার জন্য কড়া প্রশাসন।
    Published by:Suman Majumder
    First published: