রফতানি বন্ধ, বিক্রি কমেছে প্রায় ৫০ শতাংশ! কী হবে আগামিদিন?

রফতানি বন্ধ, বিক্রি কমেছে প্রায় ৫০ শতাংশ! কী হবে আগামিদিন?
  • Share this:

#শিলিগুড়ি: এবারে করোনার বড়সড় প্রভাব পড়েছে শিলিগুড়ির মাছ বাজারেও। করোনা আতঙ্কে প্রায় ৫০ শতাংশ মাছ রপ্তানী বন্ধ হয়ে গিয়েছে। কেননা শহরের বিভিন্ন বাজারে তো বটেই, পাশাপাশি পাহাড়, সিকিম এবং নেপালে মাছ যায় শিলিগুড়ি রেগুলেটেড মার্কেট থেকে। এমনকী উত্তরবঙ্গের অন্য কয়েকটি জেলাতেও এখান থেকেই মাছ রপ্তানী হয়ে থাকে। পাশাপাশি ভুটানের একটি অংশেও মাছ রপ্তানী হয়। করোনার জেরে সিকিমে পণ্য আমদানী রপ্তানী বন্ধ। নেপাল থেকেও ব্যবসায়ী এবং সাধারন বাসিন্দাদের আনাগোনা অনেকাংশে কমেছে। বন্ধ রয়েছে ভুটান গেটও। পাহাড় থেকেও লোকজন কম নামছে সমতলে। আর এর জেরেই মাছ রপ্তানী এক ধাক্কায় অনেকটাই কমেছে শিলিগুড়ি রেগুলেটেড মার্কেটে।

সেইসঙ্গে শিলিগুড়িতে মাছের পাইকারী ব্যবসায়ীরাও কম মাছ নিচ্ছে। শহরের বিভিন্ন বাজারেও মাছ বিক্রির হাল খারাপ। এর ফলে চিন্তায় মাছের আড়তদাররা। শিলিগুড়ি রেগুলেটেড মার্কেট মাছ মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক অরুন ছেত্রী জানান, প্রভাব তো পড়েছেই। কেননা বাইরে মাছ যাচ্ছে না। তবে শিলিগুড়ির বাজারে মাছ বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু শহরের বাইরে মাছ রপ্তানী বন্ধ হয়ে যাওয়াতেই সমস্যা বেড়েছে। তবে আমদানী এখোনও পর্যন্ত ঠিক আছে।

এক আড়তদার পার্থ বন্দোপাধ্যায় জানান, রপ্তানী অনেকাংশেই কমেছে। একটা আতঙ্ক কাজ করছে। আমদানীও কিছুটা কমেছে। অন্ধ্রপ্রদেশ ছাড়া অন্য জায়গা থেকেও মাছ আমদানি হচ্ছে না। বিভিন্ন আন্তঃরাজ্য চেক পোস্টে আটকে দেওয়া হচ্ছে মাছ বোঝাই লরি। ১ মার্চ পর্যন্ত সরকার রাজ্যে সতর্কতা জারি করেছে। বাইরে রপ্তানী বন্ধ হওয়ায় মাছের দামও কিছুটা কমেছে বলে আড়তদারদের দাবী। আর এমনটা চলতে থাকলে আর্থিক সংকট তৈরী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা ক্রমেই করোনা ছড়াচ্ছে দেশজুড়ে। রাজ্যেও এক জন করোনা আক্রান্ত রোগীর খোঁজ মেলায় আতঙ্ক বাড়ছে। তবু অযথা আতঙ্কিত না হওয়ারই পরামর্শ আড়তদারদের। সাধারন ব্যবসায়ীদের মধ্যেও সচেতনতা বাড়ানোই লক্ষ্য।

First published: March 18, 2020, 3:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर