ছেলের জন্মদিনে সকলের হাতে গাছের চারা তুলে দিলেন বিশ্বাস দম্পতি

বিশ্বাস দম্পতির এই উদ্যোগকে সাদুবাদ জানিয়েছেন টুঙ্গিদিঘির বাসিন্দারা।

বিশ্বাস দম্পতির এই উদ্যোগকে সাদুবাদ জানিয়েছেন টুঙ্গিদিঘির বাসিন্দারা।

  • Share this:

#করণদিঘি: করোনা আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেনের অভাবে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। অক্সিজেনের অভাবে যাতে কোন মানুষের মৃত্যু না হয় তা সুনিশ্চিত করতে ছেলের জন্মদিন না করে বৃক্ষ রোপন এবং পথ চলতি মানুষের হাতে গাছে তুলে দিলেন বিশ্বাস দম্পতি। বিশ্বাস দম্পতির এই উদ্যোগকে সাদুবাদ জানিয়েছেন টুঙ্গিদিঘির বাসিন্দারা।

উত্তর দিনাজপুর জেলার রূপাহার থেকে ডালখোলা পর্যন্ত ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণ করতে গিয়ে জাতীয় সড়কের ধারে বহু গাছ কাটতে হয়েছে। ২০২০ সালে সারা বিশ্ব জুড়ে করোনা সংক্রমণে অক্সিজেনের অভাবে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। উত্তর দিনাজপুর জেলার করণদিঘি ব্লকের বাসিন্দা মৌমিতা জানা, করণদিঘি ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের নার্সিং ষ্টাফ। স্বাস্থ্য কর্মী হওয়ার সুবাদে তিনি চাক্ষুস করেছেন মানুষে অসহায়তা। তাই মৌমিতা দেবীর ছেলে সার্থক বিশ্বাসের ঘটা করে জন্মদিন পালন না করে বৃক্ষ রোপনের উপর জোর দিলেন। বিশ্বাস দম্পতি তার সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে টুঙ্গিদিঘিতে পথ চলতি মানুষের হাতে চারা গাছ তুলে দিলেন। মৌমিতা দেবী জানান, বিশ্ব উষ্ণায়ন রোধে গাছ লাগানো জরুরি।

জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণ করতে গিতে জাতীয় সড়কের দুধারে বহু গাছ কাটা হয়েছে। যেহারে গাছ কাটা হচ্ছে সেই পরিমাণ গাছ লাগানো হচ্ছে না। করোনা আক্রান্ত রোগী কৃত্তিম অক্সিজেনের জন্য হাহাকার করছে।অক্সিজেন না পেয়ে বহু মানুষের মৃত্যু ঘটছে। করোনা আবহে সরকারিভাবে সব ধরনের অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ছেলের জন্মদিনকে স্মরনীয় করে রাখতে বৃক্ষ রোপন এবং চারা গাছ বিতরণ করলেন। চারা গাছ নিতে সাধারণ মানুষের উৎসাহ এবং উদ্দীপনা দেখে খুশি তারাও। মৌমিতা দেবী জানিয়েছেন, আজ তিনি যে উদ্যোগ নিয়েছেন এভাবে আরও বেশি সংখ্যায় মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। না হলে তার এই প্রচেষ্টা সার্থক রূপ পাবে না। গাছ হাতে পেয়ে খুশি টুঙ্গিদিঘির বাসিন্দা অমল সিংহ। অমলবাবু জানান, গাছ পেয়ে তিনি খুশি।

Published by:Pooja Basu
First published: