Dilip Ghosh: 'দিদিমণির মাথার ঠিক নেই', আক্রান্ত হওয়ার পরদিনই ফের 'ফর্মে' দিলীপ

Dilip Ghosh: 'দিদিমণির মাথার ঠিক নেই', আক্রান্ত হওয়ার পরদিনই ফের 'ফর্মে' দিলীপ

মমতাকে নিশানা দিলীপের

বুধবার শীতলকুচিতে তাঁর গাড়ি ভাংচুরের ঘটনার পর পর বৃহস্পতিবার কোচবিহারের একাধিক সভা থেকে আক্রমণাত্মক মনোভাবই দেখা যায় দিলীপ ঘোষকে।

  • Share this:

#কোচবিহার: বুধবারই কোচবিহারের শীতলকুচি তে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের গাড়িতে ভাঙচুর করা হয়। যা নিয়ে রাজ্য রাজনীতি কার্যত তোলপাড়। কোচবিহার জেলা জুড়ে থানাতে অবস্থান-বিক্ষোভ ডাক দেয় জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই বৃহস্পতিবার কোচবিহার জেলা জুড়ে শেষবেলার প্রচারে কার্যত ঝড় তুললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই কোচবিহার জেলা তে একাধিক কর্মসূচি ছিল রাজ্য সভাপতির। বুধবার শীতলকুচিতে তাঁর গাড়ি ভাংচুরের ঘটনার পর পর বৃহস্পতিবার কোচবিহারের একাধিক সভা থেকে আক্রমণাত্মক মনোভাবই দেখা যায় দিলীপ ঘোষকে। কখনও পুলিশকে আক্রমণ, আবার কখনও তৃণমূল নেত্রী তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ একের পর এক সভা থেকে।

বুধবারই তার গাড়ি ভাঙচুর হওয়ার ঘটনার পর ওই দিন রাতেই সাংবাদিক সম্মেলন করে জানিয়েছিলেন, বৃহস্পতিবার কোচবিহারের যাবতীয় কর্মসূচি শেষ করেই তিনি যাবেন। সেই মোতাবেক এদিন সকাল সাতটা থেকেই জনসংযোগে নেমে পড়েন দিলীপ ঘোষ। কখনো কোচবিহারের সাগর দিঘিতে প্রাতঃভ্রমণ করতে করতে ভোটারদের সঙ্গে জনসংযোগ, আবার কখনো চা চক্রে স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় দেখা গেল রাজ্য সভাপতি কে। যদিও বুধবারের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনার পর এদিন বেশ স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই দেখা গেছে রাজ্য সভাপতিকে। এদিন সিতাইতেও জনসভা করেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। জনসভা থেকে তিনি বলেন " গতকাল শীতলকুচি তে গিয়েছিলাম। আমাদের সভা শেষ হয়ে যাবার পর আমাদের দুষ্কৃতী আক্রমণ করে। ওরা জানে যদি ঠিকঠাক ভোট হয় তাহলে তৃণমূলকে খুঁজে পাওয়া যাবে না।" সিতাই এর জনসভা থেকে এর আগে সিতাই তে না আসতে পারার আক্ষেপ প্রকাশ করেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন " তিন বছর আগে আমি আসতে চেয়েছিলাম এখানে। আমাকে বারবার পুলিশ বাধা দিয়েছে।"

মাথাভাঙ্গা,নাটাবাড়ি এবং তুফানগঞ্জ এও জনসভা করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। তুফানগঞ্জ এর জনসভা থেকে দিলীপ ঘোষ বলেন " রাজ্যে প্রথম বিজেপি সরকার আসতে চলেছে। জঙ্গলমহল শুরু করেছে পরিবর্তনের ভোট।" অন্যদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি তারপর গতকাল হামলার ঘটনায় কোচবিহার জেলা পুলিশ এখনো পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেফতার করেছে বলে জানা গিয়েছে। পাশাপাশি কোচবিহার জেলার এসপি ঘটনার বিস্তারিত রিপোর্ট কমিশনকে পাঠিয়েছে বলেও কমিশন সূত্রে খবর। রিপোর্টে একশ থেকে দেড়শ জন হওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। পাশাপাশি গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা মারার কথা উল্লেখ আছে রিপোর্টে বলেও কমিশন সূত্রে খবর। বিজিবি সূত্রে জানা গিয়েছে শুক্রবার জলপাইগুড়ি জেলাতে একাধিক কর্মসূচি রয়েছে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের।

Published by:Suman Biswas
First published:

লেটেস্ট খবর