• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • Woman Shoots Herself In Hardoi: বন্দুক থুতনিতে ঠেকিয়ে সেলফির চেষ্টা! খুলি উড়ে গেল মহিলার

Woman Shoots Herself In Hardoi: বন্দুক থুতনিতে ঠেকিয়ে সেলফির চেষ্টা! খুলি উড়ে গেল মহিলার

লখনউয়ের হরদই অঞ্চলের বাসিন্দা রাধিকা গুপ্তা হাতে বন্দুক নিয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে প্রাণ হারালেন।

লখনউয়ের হরদই অঞ্চলের বাসিন্দা রাধিকা গুপ্তা হাতে বন্দুক নিয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে প্রাণ হারালেন।

লখনউয়ের হরদই অঞ্চলের বাসিন্দা রাধিকা গুপ্তা হাতে বন্দুক নিয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে প্রাণ হারালেন।

  • Share this:

    #লখনউ:

    শখ থাকা ভাল। কিন্তু সেই শখ যদি জীবন কেড়ে নেয় তা হলে! তবে উত্তরপ্রদেশের হারদুই অঞ্চলের মহিলা যেটা করলেন তা স্রেফ শখ নয়। সেটা আসলে দুঃসাহস। আর এমন দুঃসাহস দেখানোর জন্য জীবন দিয়ে মূল্য চোকাতে হল তাঁকে। গুলিভর্তি বন্দুক নিয়ে ছবি তুলতে চেয়েছিলেন তিনি। অসাবধানতাবশত ট্রিগারে চাপ দিয়ে ফেলেন। ব্যস, আর শেষরক্ষা হল না। বন্দুক থেকে গুলি ছিটকে এসে সেই মহিলার খুলি উড়িয়ে দিল। এমন মর্মান্তিক ঘটনায় গোটা এলাকা এখন থমথমে। আচমকা গুলি চলল কী করে! ভেবে কূল পাচ্ছে না পুলিশও।

    লখনউয়ের হরদই অঞ্চলের বাসিন্দা রাধিকা গুপ্তা হাতে বন্দুক নিয়ে একখানা ছবি তুলতে চেয়েছিলেন। আসলে যোগীরাজ্যে এমন ছবি তোলার হিড়িক নতুন কিছু নয়। সেখানে সাদারণত বিয়ের অনুষ্ঠানে অনেকেই প্রকাশ্যে গুলি চালান। আবার কখনও স্রেফ শখের জন্য কেউ বন্দুক হাতে ছবি তোলেন। বন্দুক জিনিসটা উত্তরপ্রদেশে সাধারণ ব্যাপার। আর সেই মহিলাও তাই বন্দুক হাতে নিয়ে ছবি তুলে রাখতে চেয়েছিলেন। বন্দুক হাতে ছবি তুলতে গিয়ে এমন বিপদ ঘটবে কে জানত! গুলিভর্তি বন্দুক নিয়ে ছবি তুলতে গিয়ে সর্বনাশ হল। জানা গিয়েছে সেই মহিলা সেলফি তুলতে চেয়ছিলেন। বন্দুকের কার্তুজ তিনি বের করে রাখেননি। গুলিসমেত বন্দুক এক হাতে তুলে নেন। তার পর বন্দুকের নল রাখেন থুতনিতে। আরেক হাতে মোবাইল নিয়ে সেলফি তুলতে যান। তখনই অসাবধানতাবশত গুলি বেরিয়ে সোজা লাগে তাঁর থুতনিতে। খুলি উড়ে যায় তাঁর।

    স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, ২৬ বছর বয়সী রাধিকার বিভিন্ন পোজে সেলফি তোলার শখ। আর সেই শখ পূরণ করতে গিয়েই এত বড় দুর্ঘটনা! শ্বশুরের বন্দুক নিয়ে তিনি এদিন সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন। পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে ছিটকে আসা গুলি তাঁর খুলি এফোঁড় ওফোঁড় করে দিয়েছিল। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ওই তরুণী। চলতি বছর মে মাসেই বিয়ে হয়েছিল রাধিকার। বন্দুকটি ছিল তাঁর শ্বশুরের। ১২-বোর একনলা বন্দুকটি এতদিন থানায় জমা ছিল। কারণ ওই এলাকায় পঞ্চায়েত নির্বাচন ছিল। বৃহস্পতিবার সেই বন্দুক ফেরত পান রাধিকার শ্বশুর। বন্দুকের লাইসেন্স ছিল। রাধিকার ঘর থেকে গুলির শব্দ শুনে ছুটে যান পরিবারের লোকজন। রক্তাক্ত রাধিকাকে তড়িঘড়ি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে গিয়েছে অনেক। রাধিকার মৃতদেহের পাশেই পড়ে ছিল মোবাইল। বন্দুক সমেত একটি সেলফি তিনি তুলেছিলেন।

    Published by:Suman Majumder
    First published: