• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • রোহিঙ্গাদের নিয়ে সিনেমা বানাতে চান প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

রোহিঙ্গাদের নিয়ে সিনেমা বানাতে চান প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবিরে এক শিশুর সঙ্গে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ৷ ছবি: প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার ইনস্টাগ্রাম হ্য়ান্ডেলের সৌজন্যে ৷

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবিরে এক শিশুর সঙ্গে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ৷ ছবি: প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার ইনস্টাগ্রাম হ্য়ান্ডেলের সৌজন্যে ৷

  • Share this:

    #কক্সবাজার: রোহিঙ্গাদের সংগ্রামী জীবন নিয়ে সিনেমা বানাতে চান বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সোমবার চারদিনের সফরে বাংলাদেশের কক্সবাজারে গিয়েছিলেন এই বলিউড তথা হলিউডি অভিনেত্রী, সংগীতশিল্পী, প্রযোজক ৷

    সফর শেষে ফেরার আগে প্রিয়াঙ্কা সাংবাদিকদের বলেন, ‘কখনও যদি দুঃস্থ রোহিঙ্গা শিশুদের নিয়ে কোনও সিনেমা বানাতে পারি, তাহলে তার নাম দেব সারভাইবাল।’

    ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত প্রিয়াঙ্কা সফরের প্রায় পুরোটা সময় কক্সবাজারে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরে কাটান। ওই সময় তিনি রোহিঙ্গাদের মুখ থেকে শোনেন মায়ানমার সেনাবাহিনীর পরিচালিত অত্যাচার আর বর্বরতার কথা। তিনি রোহিঙ্গা শিশুদের সঙ্গেও অনেক সময় কাটান।

    I was quite literally knocked off my feet...a spontaneous, unfiltered moment with these amazing kids, who I spent a couple of hours with laughing and learning. It was as if for those few hours we all forgot where we were, and let ourselves be kids again (me included). One of the last stops on my field visit was at a @unicef Learning Center in the Balukhali Camp. Here, children are given a basic education of math, English, and Burmese through a colorful and engaging curriculum of song, drama, role playing. The age of the children in this classroom ranges between 7-10 years old, and for many of these kids this is their first school experience. There are over 400,000 children at these camps, but currently only 1/3 have access to education because of the lack of space and teachers. Given everything these kids have been through, their was no shortage of excitement or hope when I asked the kids what they wanted to be when they grow up. Whether it be a journalist, doctor, school teacher, or in the military, receiving an education means they’re getting a chance to create the future they aspire for themselves. The children are also taught basic hygiene, which is very important in a camp such as this, because of wide spread diseases like cholera and watery diarrhoea. Basics, like how to properly wash your hands, has actually helped to significantly reduce illnesses, and what’s amazing is that these kids go home and teach their parents and siblings the good health practices they’ve learned. Its initiatives like this that are setting these kids up for a brighter future. As I sit amongst them, singing along, the lyrics have more meaning than ever... “deep in my heart, I still believe, we shall overcome one day! .” I know they will. For those who’ve asked how they can contribute, here’s the answer... help every child get an education by logging on to www.supportunicef.org #childrenuprooted @unicef @unicefbangladesh

    A post shared by Priyanka Chopra (@priyankachopra) on

    প্রিয়াঙ্কা নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, ‘‘আমি কক্সবাজার থেকে লস অ্যাঞ্জেলেসে ফিরে যাব। তবে আমার মাথায় একটি বিষয়ই ঘুরপাক খাচ্ছে যে, ‘‘আমি কত সৌভাগ্যবান যে, আমি এত সুবিধা পেয়েছি।’’ আমি আমার জীবন গড়ার পেছনে সহায়তাকারী প্রতিটি ব্যক্তিকে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করছি।’’ তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভ থেকে রোহিঙ্গা শিশুদের সহায়তায় বিশ্ববাসীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

    First published: