• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • UNABLE TO GET JOB 24 YEAR OLD MPSC ASPIRANT DIES BY SUICIDE IN PUNE LEAVES NOTE RC

Student Suicide: 'কোভিড না এলে পরীক্ষা-চাকরি হত, জীবনটা অন্যরকম হত', সুইসাইড নোটে লিখলেন চাকরিপ্রার্থী!

'কোভিড না এলে পরীক্ষা-চাকরি হত, জীবনটা অন্যরকম হত', সুইসাইড নোটে লিখলেন চাকরিপ্রার্থী!

মহারাষ্ট্র পাবলিক সার্ভিস কমিশনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন স্বপ্নিল লোঙ্কার নামের ২৪ বছরের এক যুবক (Student Suicide)।

  • Share this:

    #পুনে: মহারাষ্ট্র পাবলিক সার্ভিস কমিশনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন স্বপ্নিল লোঙ্কার নামের ২৪ বছরের এক যুবক। গত বুধবার সেই ছাত্রেরই দেহ তাঁর বাড়ি থেকে উদ্ধার করল পুলিশ। পুলিশ সূত্রে খবর, মহারাষ্ট্র পাবলিক সার্ভিস কমিশনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও, কোনও চাকরি পাননি ওই যুবক। করোনার অতিমারির কারণে চাকরি পাওয়ার গোটা প্রক্রিয়াটিই পিছিয়ে গিয়েছে। আর সে কারণেই এই চরম পথ বেছে নিয়েছেন তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে পুনের হাদাসপুর এলাকায়।

    পুনের হাদাসপুর পুলিশ স্টেশনের এক সিনিয়র অফিসার জানিয়েছেন, স্বপ্নিলের বাবা পুনের শানিওয়ার পেথ এলাকায় একটি প্রিন্টিং প্রেস চালান। বাবা ও মা দু'জনেই বুধবার সেখানে কাজের জন্য গিয়েছিলেন। বোনও কোনও কারণে সেদিন বাইরে গিয়েছিলেন। দুপুরে বাড়ি ফেরার পর দাদাকে কোথাও দেখতে পাননি বোন। এর পর দাদার ঘরে ঢুকেই ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান তিনি। বাবা-মাকে খবর দিয়ে পুলিশকেও জানায় বোন। স্বপ্নিলকে হাসপাতালেও নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তবে ততক্ষণে স্বপ্নিলের মৃত্যু হয়েছে।

    স্বপ্নিলের ঘর থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি সুইসাইড নোট। সেখানে লেখা ছিল, 'এমপিএসসি, সব মায়া জাল। এর ভিতরে পড়ো না। দিন দিন বয়স ও বোঝা বেড়েই চলেছে।' সুইসাইড নোটে স্বপ্নিল আরও লিখেছেন, 'আমার নিজস্বতা বৃদ্ধি পেলেও আত্মবিশ্বাস ভেঙে গিয়েছে। দু বছর হয়ে গিয়েছে প্রিমিলিমস পাশ করেছি। অনেক ধার হয়ে গিয়েছে, যা একটা বেসরকারি চাকরি করলে মিটবে না। কোভিড না থাকলে সব পরীক্ষাগুলো সময় মতো হত, জীবনটা অন্যরকম হত।'

    একই সঙ্গে নিজের এমন চরম সিদ্ধান্তের পিছনে কারও দায় নেই বলে লিখে গিয়েছেন তিনি। তবে তাঁর যে স্বপ্নভঙ্গ হয়ে যাওয়াই মৃত্যুর কারণ তা স্পষ্ট হয়েছে সুইসাইড নোটে। পুলিশ একটি দুর্ঘটনায় মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ২০২০ সাল থেকেই এমপিএসসি-র পরীক্ষা আর হয়নি।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: