যুব সমাজের উপর হামলায় মোদি সরকার সক্রিয় মদত দিচ্ছে দুষ্কৃতীদের, প্রতিক্রিয়া সনিয়ার

যুব সমাজের উপর হামলায় মোদি সরকার সক্রিয় মদত দিচ্ছে দুষ্কৃতীদের, প্রতিক্রিয়া সনিয়ার
সনিয়া গান্ধি

সনিয়ার বক্তব্য, প্রতিদিন ভারতের বিভিন্ন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে, হয় পুলিশ, না হলে বিজেপির লুম্পেনরা হামলা করছে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে হিংসার ঘটনার তীব্র নিন্দা করলেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি৷ এক বিবৃতিতে সনিয়া বললেন, 'দেশের যুবক ও ছাত্রদের প্রতিদিন চুপ করিয়ে রাখা হচ্ছে৷ মোদি সরকারের শাসনে ভারতের যুব সম্প্রদায়ের উপর গুণ্ডাদের এই রকম বর্বরচিত আক্রমণ খুবই উদ্বেগজনক ও নিন্দনীয়৷'

সনিয়ার বক্তব্য, প্রতিদিন ভারতের বিভিন্ন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে, হয় পুলিশ, না হলে বিজেপির লুম্পেনরা হামলা করছে৷ তাঁর কথায়, 'গতকাল জেএনইউ-এর ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের উপর হাড়হিম করা হামলা দিল্লিবাসীকে রিমাইন্ডার, এই সরকার এ ভাবেই গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করতে থাকবে৷ ছাত্র ও যুবকদের এখন শিক্ষা, চাকরি, উজ্জ্বল ভবিষ্যত্‍ প্রয়োজন৷ এগুলি গণতন্ত্রের অধিকার৷'

শুধু কংগ্রেসই নয়, জেএনইউ-য়ে হামলার নিন্দায় সরব বিজেপি-র এক সময়ের বন্ধু শিবসেনাও৷ শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের কথায়, 'জেএনইউ-এর উপর এই হামলা আমায় ২৬/ ১১ মুম্বই হামলার কথা মনে করিয়ে দিল৷ এই দেশে ছাত্র-ছাত্রীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে৷'

জেএনইউ-এর ঘটনা নিয়ে সোমবার একটি প্রেস বিবৃতি জারি করেন রেজিস্ট্রার প্রমোদ কুমার৷ সেই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, হস্টেল ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে জেএনইউ ক্যাম্পাসে লাগাতার তাণ্ডব চালাচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীরা৷ বিকেল সাড়ে ৪টে নাগাদ রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ার বিরোধী ছাত্র-ছাত্রীরা রেজিস্ট্রেশনে ইচ্ছুক পড়ুয়াদের বাধা দেয়৷ ৩ জানুয়ারি থেকে মুখ ঢেকে হামলা চালাচ্ছে আন্দোলনকারী ছাত্র-ছাত্রীরা৷ রেজিস্ট্রেশন অফিস ভাঙচুর করা হয়৷ তছনছ করা হয় কম্পিউটার, সার্ভার৷ ক্লাস করতেও বাধা দেয়৷ ৫ জানুয়ারি আন্দোলনকারীরা প্রথমে হস্টেলে হামলা চালায় নবাগতদের উপর৷ নিরাপত্তাকর্মীদেরও মারধর করা হয়৷ দু দলের ছাত্রদের সংঘর্ষ রুখতে পুলিশ ডাকে কর্তৃপক্ষ৷ পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়৷

First published: 03:22:14 PM Jan 06, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर